• শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রতারক জাহাঙ্গীরের খপ্পরে নিঃস্ব ব্যবসায়ী

  আলমগীর হোসেন, লক্ষ্মীপুর

২৪ নভেম্বর ২০২২, ১৩:২৭
প্রতারক জাহাঙ্গীরের খপ্পরে নিঃস্ব ব্যবসায়ী

প্রতারক জাহাঙ্গীরের খপ্পরে পড়ে আফসার উদ্দিন ব্যবস্থাপক পরিচালক নবরুপা হোল্ডিংস লি: নিঃস্ব হয়ে বিচারের জন্য বিভিন্ন লোকের দারে দারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এর প্রতিবাদে গতকাল বুধবার (২৩ নভেম্বর) লক্ষ্মীপুর জেলা সাংবাদিক ফোরামের কার্যালয়ে একটি সাংবাদিক সম্মেলন আয়োজন করেন তিনি।

এ সময় আফছার উদ্দিন বলেন, ২০১১ সালের আগস্ট মাসে লক্ষ্মীপুর নিউ মার্কেটের নিচ তলায় ১৮ নম্বর রুমটি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে জাহাঙ্গীর আলমকে বরাদ্দ দেয়া হয়। সেই বছরের ২৯ নভেম্বর উক্ত দোকান ঘরটি রেজিস্ট্রেশন করে বুঝি দেওয়া হয়েছে। পরে জাহাঙ্গীর আলম বিদেশ চলে যায়। বছর খানেক পর বিদেশ থেকে ফিরে দেখে ১৮নং দোকানটি আবুল খায়ের নামে এক ব্যক্তির দখলে রয়েছে। দোকানের মালিক জাহাঙ্গীর লক্ষ্মীপুর জেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক, রায়পুর ২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. নুর উদ্দিন চৌধুরীকে অবগত করে বিচার দাবি করেন।

তিনি আরও বলেন, এ সময় মোসলে উদ্দিন, নিজাম, জাহাঙ্গীর আলম, রফিকুল ইসলাম বাবুল পাঠানসহ উপস্থিতে বিচার করা হয়। সেখানে এমপি সাহেব বলেছেন- ১৮ লক্ষ টাকা ফেরত দিয়ে দোকান ঘরটি জাহাঙ্গীর থেকে নতুন করে রেজিস্ট্রি করে নিতে বলে নবরুপা ব্যবস্থাপনা পরিচালককে। নয়ন সাহেবের কথা অনুযায়ী ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লি. ধানমন্ডি শাখার চলতি হিসাব নং ১৮৫৮ চেক নং আই বি বি এল ৪০৫৮৭৩৪ সংসদ সদস্য নুর উদ্দিন চৌধুরীর নয়নে কাছে চেকটি হস্তান্তর করা হয়। শর্ত থাকে যে জাহাঙ্গীর আলম আমার নামের দোকানঘরটি রেজিস্ট্রেশন করে ১৮ লক্ষ টাকার চেক নগদায়ন করবে।

আফছার উদ্দিন বলেছেন, জাহাঙ্গীর আলম প্রতারণা করে উক্ত দোকান ঘরটি রফিকুল ইসলাম বাবুল পাঠান নামে আমমোক্তার রেজি. দিয়ে ফের আবার বিদেশ চলে যায়। এমপি সাহেব আমার চেক খানা ফেরত না দিয়ে রায়পুরে উপজেলার আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বাবুল পাঠানের কাছে চেকটি হস্তান্তর করেন। পরে বাবুল পাঠান দোকান ঘরটি দখল শর্তে বাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর জেলা যুগ্ম জজ আদালতে দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৪০/২০১৬ ইং। মামলার রায় ডিগ্রি হয় বাবুল পাঠানে পক্ষে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, বাবুল পাঠান ১৮ লক্ষ টাকার চেক খানা ফেরত না দিয়ে ফের প্রতারক জাহাঙ্গীরকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে নতুন করে দ্বিতীয় যুগ্ম জেলা জজ লক্ষ্মীপুর আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং ৫৮১/২০১৬ ইং। মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। পরে আমি মহামান্য হাইকোর্টে ন্যায় বিচার দাবি করে আপিল করি অভিযুক্ত প্রতারক জাহাঙ্গীর, বাবুল পাঠানের বিরুদ্ধে। গত ১০ মে ২০১৬ সালে জাহাঙ্গীর আলম পিতা শাহ আলম উকিল নোটিশ দেয়া হলে তার আইনজীবী প্রেমধন মজুমদার (এপিপি) নিজ হাতে উকিল নোটিশে জবাবে স্বাক্ষর করেন। উকিল নোটিশ জবাবে উল্লেখ ছিল প্রমাণাদি নিয়ে চেকের টাকা গ্রহণ করার জন্য।

আফছার উদ্দিন বলেছেন, জাহাঙ্গীর আলম ও তার আইনজীবী প্রেমধন মজুমদার কোন প্রকার যোগাযোগ না করে আমার বিরুদ্ধে আরেকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির করে আসছে। আফছার উদ্দিন বাদী হয়ে ঢাকা মোহাম্মদ পুর থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে জিডি করি। মহামান্য হাইকোর্টে মামলাটি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সকল কার্যক্রম স্থগিত রাখার অনুরোধ করছি। পাশাপাশি আমার ১৮ লক্ষ টাকা চেক খানা ফেরত দেওয়ার দাবি করি জাহাঙ্গীর, বাবুল পাঠানের শাস্তি দাবি জানিয়েছেন নবরূপা হোল্ডিংস লি: ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফছার।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড