• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কমিটির সভাপতি হতে সন্তানকে দুই স্কুলে ভর্তি, দিচ্ছে হাজিরাও

  নজরুল ইসলাম শুভ, স্টাফ রিপোর্টার, সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ)

২৩ নভেম্বর ২০২২, ১২:১৫
কমিটির সভাপতি হতে সন্তানকে দুই স্কুলে ভর্তি, দিচ্ছে হাজিরাও

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার পাঁচপীর দরগাহ এলাকায় আক্তার মামুন শিপার নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে স্কুল কমিটির সভাপতি হওয়ার জন্য তার মেয়েকে দুই স্কুলে ভর্তি করে দুটি স্কুলেই হাজিরা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পাঁচপীর দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অনিয়মের সত্যতা মিলেছে।

জানা যায়, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের পাঁচপীর দরগাহ এলাকার আক্তার মামুন শিপারের মেয়ে আন নিসা তাসফি মোগরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির নিয়মিত শিক্ষার্থী। তার রোল নম্বর-৫১। প্রথম শ্রেণি থেকেই সে এই স্কুলে অধ্যয়নরত আছে। সম্প্রতি আক্তার মামুন শিপার সভাপতি হওয়ার জন্য তার মেয়ে তাসফিকে প্রত্যয়ন পত্র ছাড়া চলতি বছরের জুন মাসে পাঁচপীর দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি করেন। সেখানে তার রোল নম্বর-৩।

দুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েই তার হাজিরা খাতায় নিয়মিত উপস্থিতি দেখা যায়। সে নিয়মিত মোগরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন তবে পাঁচপীর দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উপস্থিত না হলেও প্রধান শিক্ষক শামসুন্নাহারের নির্দেশে শ্রেণি শিক্ষক সঞ্জয় কুমার দাস নিয়মিত হাজিরা দিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়টির খবর পেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার দুই স্কুলের হাজিরা খাতাসহ প্রধান শিক্ষককে তলব করেছেন।

এ বিষয়ে মোগরাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিতাই চন্দ্র বর্মন জানান, তাসফি আমার প্রতিষ্ঠানের তৃতীয় শ্রেণির নিয়মিত ছাত্রী। সে অন্য কোনো স্কুলে ভর্তি হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। তবে সে আমাদের বিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষার্থী।

এ ব্যাপারে পাঁচপীর দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শ্রেণিশিক্ষক সঞ্জয় কুমার দাস জানান, তাসফি মাঝে মাঝে স্কুলে আসে। তবে সে প্রতিদিনই একবার এসে হাজিরা দিয়ে যায়।

এ বিষয়ে আক্তার মামুন শিপার বলেন, আমার মেয়ে মোগরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে। পরে তাকে জুন মাসে পাঁচপীর দরগাহ স্কুলে ভর্তি করেছি। সে বর্তমানে দুটি স্কুলেই লেখাপড়া করে।

পাঁচপীর দরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুন্নার জানান, চলতি বছরের জুন মাসে তাসফি এ স্কুলে ভর্তি হয়। সে সপ্তাহে বৃহস্পতিবার পাঠদান করে। প্রত্যয়ন পত্র দেওয়া জন্য অভিভাবককে বলা হয়েছে। তবে হাজিরা খাতায় প্রতিদিন কি কারণে উপস্থিতি দেখানো হয়েছে এ বিষয়ে শ্রেণি শিক্ষকই বলতে পারবেন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দৌলতর রহমান জানান, দুটি স্কুলে একই সময়ে উপস্থিত থাকতে পারে বিষয়টি গ্রহণ যোগ্য নয়। বিষয়টি কিভাবে ঘটেছে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড