• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

খাস জমি অবৈধ বন্দোবস্ত নিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ

  মিলন মাহমুদ, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ)

২৭ অক্টোবর ২০২২, ১৪:৩৮
খাস জমি অবৈধ বন্দোবস্ত নিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে নকশা-পর্চায় খাল থাকলেও নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে খালাকে নাল দেখিয়ে দেয়া হয়েছে অবৈধ বন্দোবস্ত। আর সেই জমিতেই নির্মাণ করা হচ্ছে একাধিক স্থাপনাসহ বহুতল ভবন।

উপজেলার জামির্ত্তা ইউনিয়নের রামকান্তপুর গ্রামের মুন্সিনগর মৌজায় রামনগর বাজারের পাশে এ দখল হয়েছে। স্থানীয় বাবুল হোসেন স্থানীয় বাসিন্দাদের পক্ষে আদালতে মামলাসহ বিভিন্ন দফতরে এ বিষয় নিয়ে অভিযোগ দায়ের করলেও নেয়া হচ্ছে না কোনো আইনগত ব্যবস্থা। এতে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিন স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রামনগর বাজার সংলগ্ন মুন্সিনগর মৌজায় ১৩৬নং দাগে নকশায় দৃশ্যায়িত রয়েছে খাল। ওই খালকে নাল দেখিয়ে ১৯৮৭ সালে আইনুদ্দিন চৌকিদার ও খালেক চৌকিদারের নামে ৯০ শতাংশ জমি বন্দোবস্ত দেন সরকার। ওই জায়গায় খালেক চৌকিদারের ৫০ শতাংশের মধ্যে স্থাপনা নির্মাণ না করলেও আইনুদ্দিন চৌকিদারের মৃত্যুর পর তার ওয়ারিশানগণ ৪০ শতাংশ জমিতে খাল ভরাটের প্রতিযোগিতায় নেমেছে।

সম্প্রতি আইনুদ্দিনের অংশে মেয়ে সখিনা ও চাম্পা, ছেলে আমজাদ মাটি ভরাট করে দোকানপাট নির্মাণ সম্পন্ন করেছেন। অপরদিকে, নাতি কাউছারের পাঁচতলা ভবনের নির্মাণ কাজ চলছে। নির্মাণাধীন বহুতল ভবনের সামনে ব্যাংক-বীমা ভাড়ার জন্য সাঁটানো হয়েছে ব্যানার। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের চোখের সামনে শ্রেণিভুক্ত খালের জায়গায় স্থাপনা নির্মাণ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভূমি সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, খালের বন্দোবস্ত দেয়ার সময় সরকারি আইন মানা হয়নি। তারপরও আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে স্থাপনা নির্মাণ কোনোভাবেই বোধগম্য নয়। এখানে একই সাথে দুটি কাজই নিয়ম বহির্ভূত।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, রামনগর-মধুরচর রাস্তার পাশ ঘেঁষে এটা “আন্দুখালি” খাল নামে পরিচিত। এ খালটি একসময় প্রবহমান ছিল। এটা ভরাট হওয়ায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। তারা খালটি পুনরুদ্ধারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

অভিযোগকারী বাবুল হোসেন বলেন, আমি এ বিষয়ে আদালতে মামলাসহ বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোনো ফল পাচ্ছি না। আমার বাড়িতে ঢোকার রাস্তাটি পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় আছেন বলেও জানান।

মৃত আইনুদ্দিন চৌকিদারের মেয়ে সখিনা ও নাতি কাউছার খাল ভরাটের কথা স্বীকার করে বলেন, বন্দোবস্ত নেয়ার পর আমরা একবার খাজনা দিয়েছি। কিন্তু নামজারী-জমাভাগ করতে পারিনি। ওয়ারিশানগণ বণ্টন করে স্থাপনা নির্মাণ করছি।

জামির্ত্তা ইউনিয়ন উপ সহকারী (ভূমি) কর্মকর্তা মো. আব্দুল কুদ্দুস বলেন, জায়গাটি ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত। স্থাপনা নির্মাণের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি না হলেও বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করার অনুরোধ করেন।

এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিপন দেবনাথ বলেন, বিষয়টি আমি অবগত। কাগজপত্র পর্যালোচনা করে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড