• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ড্রেজার ডুবির ৪৮ ঘণ্টা পরও উদ্ধার হননি ৪ শ্রমিক

  এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম)

২৭ অক্টোবর ২০২২, ১২:৪৮
ড্রেজার ডুবির ৪৮ ঘণ্টা পরও উদ্ধার হননি ৪ শ্রমিক
স্বজনদের আর্তনাদ (ছবি : অধিকার)

৪৮ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে মিরসরাইয়ের ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের কবলে পড়ে ৮ শ্রমিক। নিখোঁজের ঘটনায় চারজনের লাশ উদ্ধার করা হলেও বুধবার রাত ১০টা পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছে আরও চারজন।

ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও চার শ্রমিকের সন্ধান না পাওয়ায় চরম হতাশ নিখোঁজের স্বজনরা। এর আগে মঙ্গলবার রাতে একজন এবং বুধবার সকালে তিনজনের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও কোস্ট গার্ডের সদস্যরা।

নিখোঁজ শ্রমিকদের মধ্যে উদ্ধার হয়েছে আনিস মোল্লার ছেলে ইমাম মোল্লা, আব্দুল হক মোল্লার ছেলে মাহমুদ মোল্লা, সেকান্দার বারীর ছেলে জাহিদ বারী ও রহমান ফকিরের ছেলে আল আমিন ফকির। তাদের উদ্ধারের ৪৮ ঘণ্টা পার হওয়ার পরও এখনো নিখোঁজ রয়েছে আনিস মোল্লার বড় ছেলে শাহিন মোল্লা, নুরু সরদারের ছেলে আলম সরদার, রহমান খানের ছেলে তারেক মোল্লা ও ইউসুফ আলী হাওলাদারের ছেলে বশর হাওলাদার।

এ দিকে বুধবার আপনজনদের খোঁজে সারাদিন সাগরের পাড়ে ঘুরতে দেখা গেছে স্বজনদের।

তাদের একজন এনায়েত উল্ল্যাহ বলেন, শাহীন মোল্লা ও ইমাম মোল্লা নামে নিখোঁজ হওয়া দুই শ্রমিক আমার আপন ভাই। অন্য শ্রমিকরাও একই এলাকার। সোমবার রাতে তারা সাগরে নিখোঁজ হওয়ার খবর শুনে রাতে রওয়ানা দিয়ে মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছেছি। আমার ছোট ভাই ইমাম মোল্লার লাশ উদ্ধার হলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে আমার বড় ভাই শাহিন মোল্লা। ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও এখনো তাদের লাশ পাবো কিনা আদৌ বুঝতে পারছি না।

তিনি আরও বলেন, মঙ্গলবার সকাল থেকে এখানে আছি। রাতে এই সাগর পাড়ে ছিলাম। আজও মনে হয় থাকতে হবে। এদিকে সাগরের পাড়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় নিখোঁজ ব্যক্তিদের ব্যাগগুলো পড়ে আছে, মানুষগুলো এখনো নিখোঁজ রয়েছে। ব্যাগের মধ্যে শার্ট, প্যান্ট, টুপি, কাঁথা, মোবাইল চার্জার পড়ে আছে। সাগরে ডুবে যাওয়া ড্রেজার থেকে তাদের ব্যবহৃত ব্যাগগুলো সাগর পাড়ে নিয়ে আসেন উদ্ধারকর্মীরা।

ব্যাগগুলো দেখিয়ে নিখোঁজ আলম সরদারের ভাই সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এগুলো আমার ভাইদের ব্যাগ। ব্যাগে তাদের ব্যবহৃত জিনিসগুলো পড়ে আছে। চার জনের লাশ উদ্ধার হলেও এখনো আমার ভাইসহ চারজন নিখোঁজ রয়েছে। কতক্ষণে ভাইয়ের লাশ পাবো বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স চট্টগ্রাম জোন-৩ এর উপ-সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ হারুন পাশা বলেন, ড্রেজারটি উল্টে গিয়ে এক চতুর্থাংশ প্রায় ৫ ফুট মাটির ভেতরে ঢুকে গেছে। ফলে ড্রেজারের ২ কমপার্টমেন্টের ভেতরে বালু ঢুকে ভরাট হয়ে গেছে। এতে করে ওখানে ডুবুরির দল ঢুকতে পারছে না। এর আগে বুধবার সকালে বাকি দুইটি কমপার্টমেন্টের ভেতর থেকে বালি ও মাটি সরিয়ে ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ বাকি চারজনের লাশ ভেতরে বালি চাপা অবস্থায় আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ড্রেজারটি উল্টানো গেলে বা সাগরের কিনারে আনার জন্য উদ্ধারকারী বড় জাহাজ বা ক্রেন প্রয়োজন।

মিরসরাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কবির হোসেন বলেন, ড্রেজার ডুবে ৮ শ্রমিক নিখোঁজের মধ্যে চারজনের লাশ পাওয়া গেছে। উদ্ধারকৃত আল আমিনের লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। অন্যদের সুরতহাল করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত লাশের শরীরের অনেকাংশ গলে যাওয়াতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের নির্দেশে ও লাশের স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বাকী লাশগুলো ময়নাতদন্ত ছাড়া পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ড্রেজার ডুবে শ্রমিক নিহতের বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে। সব লাশ উদ্ধার করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিনহাজুর রহমান বলেন, নিখোঁজ ৮ শ্রমিকের মধ্যে চারজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বাকি চারজনকে উদ্ধারে বুধবার সন্ধ্যা থেকে দুইটি স্কেভেটর ও একটি সি ট্রাক দিয়ে ডুবে যাওয়া ড্রেজার টেনে তোলার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। টেনে তোলা গেলে ভেতরে লাশ থাকলে তা উদ্ধার করা সম্ভব হবে। এই অভিযানে ব্যর্থ হলে বিআইডবিøউটি এর উদ্ধারকারী জাহাজ আনার পরিকল্পনা চলছে।

উল্লেখ্য, সোমবার ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে উত্তাল সাগরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরের জন্য বালি উত্তোলন কাজে নিয়োজিত থাকা ড্রেজার ডুবে নিখোঁজ হন ৮ শ্রমিক।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড