• সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সিত্রাংয়ের প্রভাবে শীতকালীন সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

  মনিরুজ্জামান, নরসিংদী

২৬ অক্টোবর ২০২২, ১৬:৪০
সিত্রাংয়ের প্রভাবে শীতকালীন সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে নরসিংদীতে শীতকালীন সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সোমবার দিনভর ঝড়ো হাওয়া আর মুষলধারে বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন প্রকার সবজি, কলা ও রোপা-আমনের ক্ষতি হয়েছে।

জেলার কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, জেলার ৬ উপজেলায় টানা বৃষ্টিতে প্রায় তিনশ হেক্টর ফসলি জমি তলিয়ে গেছে। ৩৯৮ হেক্টর জমির কলা গাছ সম্পূর্ণভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। এছাড়াও প্রায় একশ হেক্টর জমিতে হেলে পড়েছে রোপা আমনসহ বাড়তে থাকা বিভিন্ন ফসল। বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ায় শীতের আগাম সবজিও ক্ষতির মুখে পড়েছে। ক্ষয়ক্ষতির হিসাব নিরূপণে ইতোমধ্যেই মাঠে কাজ করতে শুরু করছে কৃষি বিভাগ।

বিভিন্ন এলাকার সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ধান, কলা ছাড়াও শীতকালীন বেগুন, শিম, লাউ, ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, পেঁপে এবং মুলাসহ বিভিন্ন সবজির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রায় অধিকাংশ ক্ষেতে সদ্য লাগানো চারাগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে।

রায়পুরা উপজেলার লোচনপুর গ্রামের কৃষক হোসেন আলী বলেন, আমার প্রায় দুই বিঘা জমির বেগুন ক্ষেত বৃষ্টির পানি ও ঝড়ের বাতাসের তোড়ে পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গেছে। বৃষ্টির পানি জমে থাকার কারণে পাশের ফুলকপির ক্ষেতটিও ক্ষতি হয়েছে।

পলাশ উপজেলার দড়িচর গ্রামের বর্গাচাষি আব্দুল খালেক বলেন, এক বিঘা নিচু জমি বর্গা নিয়ে আমন ধানের চাষ করেছি। টানা বৃষ্টিতে ধানের মাথা পানিতে তলিয়ে মাটিতে শুয়ে গেছে। এর জন্য যে পরিমাণ ফলন আশা করেছিলাম তার অনেক কম হওয়ার আশঙ্কা করছি।

সদর উপজেলার দক্ষিণ শীলমান্দি গ্রামের কলা চাষি আনোয়ার হোসেন বলেন, গতকালের ঝড়ে আমার প্রায় ৪ বিঘা জমিতে লাগানো কলা ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কলাসহ অধিকাংশ গাছের আগা ভেঙ্গে পড়েছে। এই কলা ক্ষেতই আমার রুজি রুটির একমাত্র অবলম্বন। এ অবস্থায় আমি চোখেমুখে অন্ধকার দেখছি। কি করবো কিছুই বুঝে উঠতে পারছিনা।

শিবপুর উপজেলার উত্তর সাধারচর গ্রামের কৃষক হারুন মিয়া বলেন, আমি ১৫ বিঘা জমিতে শিম এবং প্রায় এক বিঘা জমিতে লাউ চাষ করেছিলাম। পাশাপাশি ১০ শতাংশ জমিতে পেঁপে লাগিয়ে ছিলাম। সোমবারের ঝড়ে আমার শিম ও লাউ ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমার পেঁপে ক্ষেতের প্রায় সব গাছ ঝড়ে ভেঙে গেছে। জেলার অন্যান্য উপজেলার কৃষকদের ও একই অবস্থা।

নরসিংদী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক ড. মো. ছাইদুর রহমান বলেন, এ বছর জেলার ৬টি উপজেলায় ৪১ হাজার ৪১০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন, এক হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজি এবং ২ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে কলা চাষ করা হয়েছে।

বৃষ্টিতে যে সব জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে সেগুলো আবারও আবহাওয়া ভালো হওয়ার সাথে সাথে জেগে উঠবে বলে আশা করছি। প্রাথমিকভাবে প্রায় ৭০০ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে বলেও জানান তিনি।

তবে ক্ষয়ক্ষতির সঠিক হিসাব নিরূপণে মাঠে কাজ করছে কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মীরা। দুই এক দিনের মধ্যে ক্ষয়ক্ষতির প্রকৃত চিত্র পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড