• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সন্তানের জম্ম দিয়েই পরীক্ষার কেন্দ্রে রুনা আক্তার

  মাহাবুবুর রহমান রানা, সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ)

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:৫৭
সন্তানের জম্ম দিয়েই পরীক্ষার কেন্দ্রে রুনা আক্তার
সন্তানের জম্ম দিয়েই পরীক্ষার কেন্দ্রে রুনা আক্তার (ছবি : অধিকার)

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া কর্ণেল মালেক উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী রুনা আক্তার। এই ছাত্রীকে তার পিতা-মাতা প্রায় দুই বছর আগে বাল্য বিয়ে দেয়। এরপর তিনি গত বুধবার সন্তান প্রসবের ব্যাথা নিয়ে পরীক্ষায় অংশ নেন। ওইদিন রাতেই তিনি সাটুরিয়ার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে সিজিরিয়ান করে কন্যা সন্তানের মা হন।

বৃহস্পতিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে তিনি ক্লিনিক থেকে সরাসরি হেঁটে পরীক্ষা কেন্দ্রে আসলে তার হাতে ব্যান্ডিস ও কোমরে বেল বাঁধা অবস্থায় দেখেন কেন্দ্রের বাহিরে দায়িত্বরত নারী শিক্ষিকারা। তখন তারা জানতে পারেন ওই ছাত্রী রাতে সন্তান প্রসব করেছেন। বিষয়টি কেন্দ্র সচিবকে জানালে রুনা তার সিটে বসেই পরীক্ষা দিবেন বলে জানায়।

এ ঘটনায় কেন্দ্র সচিব বলেন, ইংরেজী পরীক্ষা চলকালীন সময়ে হরগজ শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের আরও দুই শিক্ষার্থী সন্তান প্রসব করেছেন।

রুনা আক্তার জানায়, দুদিন আগে থেকে পেটে ব্যাথা করছিল। সে ব্যাথা নিয়েই অন্যন্য পরীক্ষায় অংশ নিয়েছি। বিষয়টি কাউকে জানাইনি। বুধবার রাতে বেশি ব্যাথা অনুভব করায় তার পরিবার সাটুরিয়ার একটি নার্সিং হোমে আমাকে ভর্তি করে। ওই রাতেই সিজিরিয়ান করে কন্যা সন্তানের জম্ম হয়। আমি ও আমার নবজাত শিশু ভালো আছি। একদিনের শিশু বাচ্চাকে ক্লিনিকে রেখে আজকে গণিত পরীক্ষায় অংশ নিয়েছি।

কর্ণেল মালেক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল সালামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, লেখাপড়ায় রুনা আক্তারের অনেক আগ্রহ আছে। ওই ছাত্রী অত্র বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগের ছাত্রী। পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে সে একটি কন্যা সন্তানের জম্ম দিয়েছে। তারা দুজনই সুস্থ্য আছে।

সাটুরিয়া উপজেলা এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিব ও সরকারি সাটুরিয়া আদর্শ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জসিম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মঙ্গলবার ইংরেজী পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর আরো দুই ছাত্রী সন্তান প্রসব করে। ওইসব পরীক্ষার্থীরা সুস্থ্য আছেন। রুনা আক্তার গণিত পরীক্ষায় তার সিটে বসেই পরীক্ষা দিচ্ছে। তবে ওইসব পরীক্ষার্থীর জন্য একজন মেডিক্যাল অফিসার সর্বাক্ষণিক দেখাশুনা করছেন।

সাটুরিয়ার সচেতন মহল মনে করছে- মেয়েদের অভিভাবকরা সচেতন না হলে বাল্যবিয়ে রোধ করা সম্বব নয়। সচেতন না হলে অকালেই ঝড়ে পড়বে এসব মেয়েরা।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড