• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ধর্ষণে জন্ম নেওয়া শিশু পেল পিতৃ পরিচয়, বাবার যাবজ্জীবন 

  শেখ শান্ত ইসলাম, খুলনা

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:০৩
ধর্ষণে জন্ম নেওয়া শিশু পেল পিতৃ পরিচয়, বাবার যাবজ্জীবন 
যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামি (ছবি : অধিকার)

খুলনায় ধর্ষণ মামলায় আদালত আসামি রফিকুল ইসলাম ঢালীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। একইসাথে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এছাড়া ধর্ষণের ফলে জন্ম নেওয়া সন্তানকে পিতৃ পরিচয় দেওয়ার সিদ্ধান্ত দেন বিচারক। রায় ঘোষণার সময় আসামি নিজেও আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) খুলনা নারী নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আ. সালাম খান রায়টি ঘোষণা করেন। রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন- রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফরিদ আহমেদ।

আদালতের সূত্র জানা যায়, আসামি রফিকুল ইসলাম ঢালী ও ভিকটিম মহানগরীর ছোট বয়রা গোলদারপাড়া এলাকার বাসিন্দা ও পরস্পর প্রতিবেশী। ধর্ষণের শিকার হওয়া ওই নারীকে আসামি বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ২০০৯ সালের ২৬ আগস্ট থেকে একই বছরের ১৬ অক্টেবর পর্যন্ত একাধিকবার ধর্ষণ করে।

এরপর ভিকটিম অন্তসত্বা হয়ে পড়লে আসামিকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে। এক পর্যায়ে ভিকটিমকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিতে থাকে আসামি। পরবর্তীকালে ভুক্তভোগী নারী রফিকুল ইসালাম ঢালীকে আসামি করে সোনাডাঙ্গা থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এরপর সোনাডঙ্গা থানার এসআই মুনসুর শফিকুল ইসলাম ২০১০ সালের ২৬ জানুয়ারি রফিকুলকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফরিদ আহমেদ বলেন, রায়ে সন্তুষ্ট। ধর্ষণের ফলে যে সন্তান জন্ম লাভ করেছে আজ তার বয়স হয়েছে ১২ বছর। এ রায়ের মাধ্যমে ওই সন্তান পিতৃ পরিচয় পেয়েছে। এটা তার জন্য বড় প্রাপ্তি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড