• রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হাসপাতালের ৫ কোটি টাকার টেন্ডারে একের পর এক অনিয়ম

  কাজী কামাল হোসেন, নওগাঁ

২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:৩২
হাসপাতালের ৫ কোটি টাকার টেন্ডারে একের পর এক অনিয়ম
নওগাঁ সদর হাসপাতাল (ফাইল ছবি)

নওগাঁর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে ওষুধ, যন্ত্রপাতি, গজ-বেন্ডেজসহ প্রায় ৫ কোটি টাকা মূল্যের এমএসআর সামগ্রী সরবরাহের টেন্ডার পাইয়ে দিতে হাসপাতাল তত্বাবধায়ক ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরীর বিরুদ্ধে নানা অপকৌশলের অভিযোগ উঠেছে। পিপিআর বহির্ভূত জটিল শর্তাবলী আরোপ করে টেন্ডার নোটিশ প্রদান করায় অসংখ্য ঠিকাদার টেন্ডারে অংশ নিতে পারছেন না।

গত বছর টেন্ডারের শর্তাবলী পরিবর্তন করার দাবি জানিয়ে স্থানীয় ঠিকাদাররা যৌথভাবে তত্বাবধায়ক বরাবরে আবেদন করলেও তা আমলে নেওয়া হয়নি।

এমনকি চলতি অর্থবছরের টেন্ডারের নোটিশ প্রদানের পর থেকে শর্তাবলী স্বাভাবিক করার জন্য দেন-দরবার করলেও কোনো কাজ হচ্ছে না বলে ঠিকাদাররা অভিযোগ করেছেন। এতে করে একদিকে বিপুল সংখ্যক শিডিউল বিক্রি না হওয়ায় ঠিকাদারদের মধ্যে প্রতিযোগিতা হচ্ছে না। একই সাথে সরকারের রাজস্ব ক্ষতি হবে, তেমনি নওগাঁবাসীও অধিক স্বাস্থ্যসেবা থেকেও বঞ্চিত হবে বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

অভিযোগে জানা গেছে, নওগাঁ ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের জন্য ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে ওষুধ-পত্রাদি, যন্ত্রাংশ, গজ-ব্যান্ডেজ, আসবাবপত্রসহ এমএসআর সামগ্রী সরবরাহের লক্ষে ৬টি গ্রুপে প্রায় ৫ কোটি টাকা মূল্যের টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। টেন্ডার নোটিশে বিজ্ঞপ্তিতে গত ১ সেপ্টেম্বরে টেন্ডার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয় এবং আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত শিডিউল বিক্রির শেষ তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ১৯ দিন অতিবাহিত হলেও গতকাল সোমবার পর্যন্ত মাত্র ৬ থেকে ৭টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান শিডিউল সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয় ঠিকাদারদের অভিযোগ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী যোগসাজশ করে পিপিআর বহির্ভূত টেন্ডারে জটিল শর্তারোপ ও নানা অপকৌশলে তার পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য এই পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে বলে স্থানীয় ঠিকাদারদের অভিযোগ।

তারা জানান গত বছর একইভাবে জটিল শর্ত আরোপ করে টেন্ডার আহবান করায় স্থানীয় কোনো ঠিকাদাররা ওই টেন্ডারে অংশ নিতে পারে নাই। স্থানীয় ঠিকাদারদের মধ্যে মেসার্স এন এল ট্রেডার্স, মেসার্স জীম মেডিসিন সেন্টার, আলম ট্রেডার্স, মেসার্স বাবু ফার্মেসি, মেসার্স সামেনা মেডিক্যাল হল ও মেসার্স শফিকুল আলম নামে প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে টেন্ডারের শর্ত পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে যৌথভাবে তত্বাবধায়কের বরাবরে আবেদন করেন।

যৌথ আবেদনের উপর কোন গুরুত্বই দেওয়া হয়নি উল্লেখ করে মেসার্স এন এল ট্রেডার্সের সত্ত্বাধিকারী মো. নফিউল হোসেন কেতন বলেন, নওগাঁ সদর হাসপাতালের এমএসআর সামগ্রী সরবরাহে নানা অপকৌশলে গত ৩ বছর ধরে আমাদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। হাসপাতালের তত্বাবধায়ক গত বছর আর্থিক সুবিধা নিয়ে তার পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দিয়েছেন। আবার চলতি বছরে একইভাবে তার পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দিতে পিপিআর বহির্ভূত টেন্ডারে জটিল শর্তাবলী যুক্ত করা হয়েছে। অথচ পিপিআরের স্বাভাবিক নীতিমালা অনুযায়ী এমএসআর সামগ্রী সরবরাহ নেওয়া কথা।

মেসার্স আলম ট্রেডার্সের সত্ত্বাধিকারী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, নওগাঁ জেনারেল হাসপাতালে টেন্ডারে এর আগে বিগত ৫ বছরের মধ্যে ৬টি গ্রুপ মিলে সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকার কাজের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়েছে এবং সলভেন্সীর প্রত্যায়ন হিসাবে ব্যাংক কর্তৃক সলভেন্সেী সনদ দিলেই টেন্ডারে অংশ নিতে দেওয়া হয়েছে।

অথচ চলতি ২০২২-২৩ অর্থ বছরে নওগাঁ জেনারেল হাসপাতালে এমএসআর সামগ্রী সরবরাহের টেন্ডারের ৬টি গ্রুপের মধ্যে প্রথম 'ক’ গ্রুপের প্রায় দেড় কোটি টাকার ওষুধ-পত্রাদি ক্রয়ে তিন বছরের মধ্যে ২ কোটি টাকার কাজ করার অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়েছে।

আবার ঙ’ গ্রুপের প্রায় ৩৫ লাখ টাকার কেমিক্যাল ক্রয়ের ক্ষেত্রে ৪০ লাখ টাকার এবং চ’গ্রুপের প্রায় ২৪ লাখ টাকার আসবাবপত্র ক্রয়ের বিপরীতে ৩০ লাখ টাকার কাজ করার অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়েছে। একই সাথে শিডিউল দাখিলকারী ঠিকাদারদের প্রত্যেকের গ্রুপ অনুযায়ী ব্যাংক সলভেন্সেী হিসাবে প্রত্যেকের ব্যাংক হিসাবে ৬ কোটি টাকা টাকার লিকুইডমানি থাকতে হবে বলে টেন্ডার নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে। এর একটি শর্ত পূরণ করা না হলে ওই ঠিকাদার টেন্ডারে অংশ নিতে পারবেন না।

এ ব্যাপারে এমএসআর সামগ্রী সরবরাহকারী ঠিকাদার মো. হাসানুজ্জামান বাবু বলেন, গত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে নওগাঁ হাসপাতালের এমএসআর সরবরাহের টেন্ডারে স্বাভাবিক শর্তাবলীর মাধ্যমে টেন্ডারে অংশ নিয়েছি। অথচ এরপর থেকে টেন্ডারে জটিল শর্তারোপ করে আমাদেরকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। বিশেষ কোন ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য এমন জটিল ও কঠিন শর্তারোপ করা হয়েছে।

এ দিকে নওগাঁ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের এমএসআর সামগ্রী সরবরাহের টেন্ডারে জটিল শর্তারোপ পরিবর্তন করে স্বাভাবিক শর্তারোপসহ টেন্ডার অংশগ্রহণমূলক ও হাসপাতালের যাবতীয় অনিয়ম দুর্নীতি দূর করে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনার লক্ষে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন নওগাঁবাসী।

এ ব্যাপারে নওগাঁ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী বলেন, পিপিআর ২০০৬ ও ২০০৮ অনুসরণ করেই টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোনো অনিয়মের আশ্রয় নেওয়া হয়নি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড