• সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কুষ্টিয়ায় সরকারি কর্মকর্তাদের দাবি আদায় কর্মসূচির স্মারকলিপি প্রদান

  তরিকুল ইসলাম তরুন, কুষ্টিয়া

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:৫৭
কুষ্টিয়ায় সরকারি কর্মকর্তাদের দাবি আদায় কর্মসূচির স্মারকলিপি প্রদান
কর্মবিরতি চলছে (ছবি : অধিকার)

দেশের সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয়ের কর্মী এবং কর্মকর্তারা গেল ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রতিদিন আধাবেলা করে কর্মবিরতি দিয়েছিলেন। একই রীতি চলেছে সংশ্লিষ্ট জেলা অফিসগুলোতেও। খোদ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এমন কর্মবিরতির ঘোষণায় সেবা গ্রহীতারাও বিষয়টি নিয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) নিজ নিজ জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি হস্তান্তরের মাধ্যমে শেষ হচ্ছে এই দফা। একেক জেলায় স্মারকলিপি দিতে অংশ নিচ্ছেন অন্তত ৪০ জনের মতো কর্মচারী-কর্মকর্তা।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন ২০১২ -এর আলোকে নিজেদের নানা প্রাপ্য বাস্তবায়নের দাবিতে এই কর্মসূচি। জনবল কাঠামো নিয়োগ বিধি বাস্তবায়ন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের আওতাধীন কর্মকর্তা হলেও এই বিভাগের প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা পদধারীদের গ্রেড উন্নয়নের ভিত্তিতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা হিসাবে পদায়ন, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তাদের গ্রেড উন্নয়ন।

বাংলাদেশ সচিবালয়ের অনুসরণে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের সকল কর্মচারীদের পদের নাম পরিবর্তন এবং সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন পদে শূন্য থাকা সাতশ জনকে নতুন নিয়োগ ব্যবস্থার দাবিতে এই কর্মসূচি।

দেশের পিআইও, ডিআরআরও এবং কর্মচারীদের আলাদা তিনটি সংগঠনের সম্মিলিত সংগঠন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরাধীন কর্মকর্তা কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে সারাদেশে। এর অংশ হিসাবে গেল ১২ সেপ্টেম্বর থেকে আজ ১৫ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত প্রতি কার্যদিবসে আধাবেলা কর্মবিরতি পালন করে কুমারখালি-খোকসা-দৌলতপুর-মিরপুর-ভেড়ামারা-কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পিআইও অফিসসহ সংশ্লিষ্ট জেলা কার্যালয়।

দৌলতপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান জানান, আমাদের এই ন্যায্য দাবিগুলো বাস্তবায়ন হোক, এতে করে সারাদেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় বর্তমানের তুলনায় কাজের গতি ও স্বচ্ছতা আরও অনেক বেশি বাড়বে। প্রকৃতপক্ষে জনবল অনুপাতে আমাদের দপ্তরের কাজ সামলানো খুবই কষ্টসাধ্য।

মিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহমুদুল ইসলাম বলেন, আমাদের দাফতরিক নথিগত এবং আউটডোরের পরিদর্শন পর্যবেক্ষণ সমান তালে করতে হয়, এ ক্ষেত্রে বর্তমান ব্যবস্থাপনা অনুসারে কাজ করতে আমাদের হিমশিম খেতে হয়। প্রায় প্রতিদিনই এই দফতরের স্টাফদের দশ ঘণ্টার বেশি কাজ করা লাগে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বলেন, ২০১২ সালে পাশ হওয়া আইন অনুসারে আমাদের প্রাপ্য পাঁচটি দাবি নিয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আসছি। ১৯৭২ সালে এই দফতর চালু হওয়ার পর থেকে আজ অবধি কোনো শ্রেণিতেই গ্রেড উন্নয়ন হয়নি। আমাদের দাবিগুলো ন্যায্য এবং যৌক্তিক। আমরা ভীষণভাবে আশাবাদী অচিরেই আমাদের এই পাঁচ দফা দাবি মেনে নেয়া হবে।

দাবি আদায় না হলে স্মারকলিপির পর কোনো কর্মসূচিতে যাবেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুসারে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে, তবে আমরা আশা করছি বর্তমান সরকার দেশের উন্নয়নের স্বার্থে, রাষ্ট্রীয় নানা কাজ বেগবান করতে আমাদের দাবি মেনে নিবেন।

বৃহস্পতিবারের কর্মবিরতি শেষে জেলার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্মারকলিপি প্রদান করবেন কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলামকে।

উল্লেখ্য, সারাদেশে বর্তমান সরকারের অবকাঠামো ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে এই দফতর।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড