• সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

খাদ্য বান্ধব কার্যক্রম উদ্বোধনের পরপরই বন্ধ চাল বিতরণ

  নেহাল আহম্মেদ প্রান্ত, আদমদীঘি (বগুড়া)

১২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:১৫
খাদ্য বান্ধব কার্যক্রম উদ্বোধনের পরপরই বন্ধ চাল বিতরণ
চালের জন্য অপেক্ষায় থাকা লোকজন (ছবি : অধিকার)

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার ইউনিয়নে সারাদেশের ন্যায় খাদ্য শস্যের বাজার মূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ ও নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীকে খাদ্য সহায়তা দেয়া এবং বাজার দর স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে খাদ্য বান্ধব কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় সান্তাহার ইউনিয়নের হেলালিয়া হাটে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম খান রাজু। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন- আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী অফিসার শ্রাবণী রায়।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- সান্তাহার ইউপি চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানা তৃপ্তি। উদ্বোধনের ১০ মিনিটের মধ্যেই সুবিধাভোগীদের কার্ড না থাকায় বন্ধ হয়ে যায় চাল বিতরণ।

ছাতনী এলাকার শহিদুল ইসলাম নামের একজন উপকারভোগী বলেন, সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমার কাছে থেকে ১২০ টাকা নিয়েছে আমাকে কার্ড ঠিক করে দেওয়ার কথা বলে কিন্তু আমাকে এখনো কার্ড দেয় নাই। আমি চাল নিতে এসে কার্ড না থাকায় চাল পাচ্ছি না।

সান্তাহার ইউনিয়নের বাসিন্দা রিপু নামে আরেক উপকারভোগী বলেন, আমি ৫ বছর ধরে চাল পাই আমার কার্ডও আছে। খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর তালিকায় নাম থাকা স্বত্বেও ৬ মাস ধরে চাল ও আমার কার্ড দিচ্ছে না ইউপি চেয়ারম্যান।

কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে সুবিধাভোগীদের কাছে থেকে ১০০ থেকে ৫০০ টাকা করে নিয়ে কার্ড না দেওয়ারও অভিযোগ ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানা তৃপ্তির বিরুদ্ধে উঠেছে।

এ বিষয়ে সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানা তৃপ্তি বলেন, ১০০ থেকে ৫০০ টাকা করে নিয়ে কার্ড করে দেওয়ার বিষয়টি সঠিক নয়। কার্ড অনলাইন করার জন্য ইউপি সদস্যদের ৫০ টাকা করে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। যদি কোন ইউপি সদস্য ৫০ টাকার বেশি নেয় সেই দায় আমার নয়।

তিনি আরও বলেন, ২০১৬ সালের খাদ্য বান্ধব কার্ড করার জন্য যে তালিকা তৈরি করেছিল সেই তালিকাতে ৪০০ থেকে ৫০০ জনের কার্ড ভুয়া আছে। সেই কারণে কার্ড বিতরণ করা হয়নি।

সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এরশাদুল হক টুলু বলেন, খাদ্য বান্ধবের কোনো ভুয়া কার্ড নেই। তিনি আমার উপর ঈর্ষান্বিত হয়ে উপকারভোগীদের হয়রানি করেছে।

খাদ্য বান্ধব চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে আদমদীঘি উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক গোলাম রব্বানী বলেন, সান্তাহার ইউপির জন্য নতুন করে ডাটাবেজ তৈরি করা হয়েছে এবং খাদ্য বান্ধবের কার্ড ইউপি চেয়ারম্যান কোন ইউপি সদস্যদের কাছে কার্ড হস্তান্তর না করার কারণে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড