• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘লাখপতি অফারে’র নামে জমজমাট সুদের কারবার

  কাজী কামাল হোসেন, নওগাঁ

১০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:২২
‘লাখপতি অফারে’র নামে জমজমাট সুদের কারবার
সমিতির অফিসের ব্যানার (ছবি : অধিকার)

নওগাঁর মান্দায় সমবায় সমিতির নামে চলছে জমজমাট সুদের ব্যবসা। জেলা এবং উপজেলা সমবায় দফতর থেকে রেজিস্ট্রেশন নিয়ে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন বাহারি নামে এসব সমবায় সমিতি নামক তথাকথিত শত শত ঋণদান প্রতিষ্ঠান। কেউ কেউ 'লাখপতি অফার' এর নামে দিচ্ছেন লোভনীয় প্রস্তাব। এসব সুদ ব্যবসায়ীর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ।

সতীহাট বাজারের ব্যবসায়ী রেজাউল ইসলাম, শিক্ষক আবুল কালামসহ অন্যান্য ভুক্তভোগীরা বলেন, সেভিংস এন্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি., সোনালী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি., সুরমা মাল্টিপারপাস, এমনকি পদ্মা, মেঘনাসহ এসব সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে গ্রামের হতদরিদ্র থেকে শুরু করে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা হচ্ছেন সর্বস্বান্ত। তারা সাদা চেকে স্বাক্ষর নিয়ে ইচ্ছেমতো টাকা বসিয়ে মামলা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে অহরহ। অথচ এসব বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছে না সমবায় দফতর।

বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সাধারণ মানুষ ও ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। ইতোমধ্যে বহু মানুষ ঘরবাড়ি বিক্রি করে দেশান্তরী হয়েছেন। অনেকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। অপর দিকে সুদ ব্যবসায়ীরা আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে।

জানা গেছে, মৈনম ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামের আব্দুল মান্নান নামে এক ব্যক্তি সমবায় দফতর থেকে রেজিস্ট্রেশন নিয়ে মৈনম ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের মোড়, গণেশপুর ইউনিয়নের সতীহাট-ঋষি পাড়া, কসব ইউনিয়নের পলাশবাড়ী এবং ভারশোঁ ইউনিয়নের চৌবাড়িয়া বাজারে সোনালী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি. নামে লাখপতি বানানোর সুদের কারখানা খুলে বসেছেন।

অধিক লাভের লোভনীয় অফার দিয়ে সোনালী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতিতে টাকা জমা রাখতে সাধারণ মানুষকে প্রলুব্ধ করছে। 'লাখপতি অফার' এর নামে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষকে আকৃষ্ট করা হচ্ছে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, তারা সেভিংস এন্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি., সোনালী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি.সহ বিভিন্ন সমবায় সমিতি সাধারণ মানুষকে ডিপিএস জমা করার প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ প্রতারণা করে আসছেন। কোনো সদস্য দুই থেকে তিন কিস্তি টাকা জমা দিতে না পারলেও তেমন কোনো চাপ থাকে না। কিন্তু তিন-চার বছর হওয়ার পর খেলাপির দায়ে হঠাৎ তার ডিপিএস কেটে দেওয়া হয়।

কোনো ডিপিএসকারী বিপদে পড়ে যদি ঋণ নিতে যান তাহলে তার কাছ থেকে চড়া সুদ আদায় করা হয়। স্থানীয়দের দাবি যে, এসব অবৈধ সমবায় সমিতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া হলে যে কোনো মুহূর্তে গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাবে আব্দুল মান্নানের মতো প্রতারকরা।

সেভিংস এন্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি. এর মালিক উৎপল চন্দ্র বলেন, আমরা ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ব্যবসায়িক লোন দিয়ে থাকি। যা ৩০% সুদসহ একশত দিনে একশ কিস্তির মাধ্যমে পরিশোধ করতে হয়।

সোনালী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি. এর মালিক আব্দুল মান্নান বলেন, উপজেলা সমবায় অফিসের নির্দেশনার আলোকে আমরা এসব ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকি।

উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মুহা. আখতার হোসেন বলেন, সমবায় সমিতির রেজিস্ট্রেশন নিয়ে যদি কেউ এনজিওর কার্যক্রম পরিচালনা করে সেটি অন্যায়। পরিদর্শন শেষে এসবের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে মান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আবু বাক্কার সিদ্দিক বলেন, সমবায় সমিতি লি. এর রেজিস্ট্রেশন নিয়ে এনজিওর মত একাধিক শাখায় ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করার বিষয়টি অবগত নয়। তবে এ বিষয়ে সমবায় কর্মকর্তার সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড