• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পেটানোর পর কর্মীর কলিজা বের করার হুমকি ছাত্রলীগ নেতার

  মোঃ রাফিকুর রহমান লালু, রাজশাহী :

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:১৪
ছাত্রলীগ

ফেসবুকে পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে রাজশাহী নগরীর গ্যালাক্সি ম্যাট ইনস্টিটিউটের ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম সবুজের কলিজা ছিড়ে ফেলার হুমকির অভিযোগ উঠেছে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন অমির বিরুদ্ধে।

রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন অমির বিরুদ্ধে এক ছাত্রলীগ নেতাকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। রাজমাহী বিমানবন্দরে শনিবার সকালে ছাত্রলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীর সামনে আমিনুল ইসলাম সবুজ নামে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে অমি প্রকাশ্যে বেধড়ক পিটিয়েছেন। পেটানোর পরে ওই ছাত্রলীগ নেতার কলিজা টেনে বের করে নেয়ারও হুমকি দিয়েছেন অমি। এছাড়া অমি ওই ছাত্রলীগ নেতার পিতামাতাকে উদ্দেশ্য করে মোবাইল ফোনে দিয়েছেন অশ্লীল গালিগালাজ। পোটানোর কারণে বাম কানে শুনতে পাচ্ছেন না আহত সবুজ। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এর আগে অমি রাজশাহী মেডিকেল কলেজের নিজ হোস্টেলে এক ছাত্রকে রাতভর নির্যাতন করেছিলেন।

জেলা ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র জানায়, বাগমারা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী এবং রাজশাহী মহানগরীর গ্যালাক্সি ম্যাটস ইনস্টিটিউটের ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সবুজ সম্প্রতি ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। অমির বাড়িও বাগমারায়। এর পর সবুজের ওই ফেসবুক পোস্টটি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অমির নজর আসে। অমি পোস্টের বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার (১সেপ্টেম্বর) রাতে ফোনে মোহনপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাকের সাথে আলোচনা করেন। অমি এসময় রাজ্জাককে বলেন, সবুজ যেন তাকে ফোন দেয়। রাজ্জাক এরপর সবুজকে অমির কাছে ফোন দিতে বলেন। সবুজ রাত ১২টার দিকে অমিকে ফোন দেন।

সবুজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি ফোন দেওয়ার পর অমি ফোন রিসিভি করেন। এরপর তিনি আমাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। জেলা ছাত্রলীগের একজন শীর্ষ নেতা যে ভাষায় কথা বলেছেন, এটি কল্পনাও করা যাই না। ফোনালাপের অধিকাংশ সময় তিনি আমার বাবা-মার নাম উচ্চারণ করে গালিগালাজ করেন। এ সময় তিনি বলেন, তোর কলিজা টেনে বের করে ফেলব।

সবুজ বলেন, এ ঘটনার পর শনিবার সকালে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের এমপি প্রকৌশলী এনামুল হককে বিমানবন্দরে অর্ভ্যথনা জানানোর জন্য যাই আমি। এ সময় সেখানে ছাত্রলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী এমপির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। আমাকে সামনে পেয়েই অমি আমার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। এরপর সবার সামনে আমাকে মারতে শুরু করেন। অমি আমার দুই কানে বেশ কয়েকটি থাপ্পড় দেন। তার থাপ্পড়ের কারণে আমি এখন বাম কানে শুনতে পাচ্ছি না। বিষয়টি আমি ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের জানিয়েছি। আমাকে মারধর এবং বাবা-মাকে অশ্লীল গালিগালাজের বিচার দাবি করছি। আমি বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। আবারও যেকোনো সময় হামলার আশঙ্কা করছি।

সবুজকে মারধর এবং ফোনে গালিগালাজ দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অমি বলেন, সবুজ ফেসবুকে একটি উল্টাপাল্টা পোস্ট দিয়েছে। সে আমার এলাকার ছেলে হয়ে আমার বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করে। এ কারণে আমার মাথা ঠিক ছিল না। তাকে গালিগালাজ করে ফেলেছি। তাকে কয়েকটি চড়থাপ্পড় দিয়েছি। তাকে শাসন করেছি। আবার বলেছি, তোমার সামনে অনেক সুযোগ আছে। ভালোভাবে ছাত্র রাজনীতি করো। এরপর তাকে আমি আদর করে দিয়েছি।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভপাতি সাকিবুল ইসলাম রানা বলেন, মারধর ও গালিগালাজের বিষয়টি শুনেছি। ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল পদে থেকে কোনো নেতাকর্মীর শরীরে হাত দেওয়া ঠিক না। আমরা কর্মীদের বুকে টেনে নিয়ে রাজনীতি করব। কেন তাদেরকে মারধর করব। সাধারণ সম্পাদক অমির বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে, প্রমাণিত হলে বিষয়টি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে অবগত করা হবে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে।

প্রসঙ্গত, গত ২৬ জুলাই জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন অমি রাজশাহী মেডিকেল কলেজের শহিদ মুক্তিযোদ্ধা কাজী নুরুন্নবী হোস্টেলে মিলন হোসেন (১৯) নামে এক এইচএসসি শিক্ষার্থীকে রাতভর নির্যাতন করেন। জেলার পুঠিয়া উপজেলার শিবপুরহাটের আলমগীর হোসেনের ছেলে আহত মিলন হাসপাতালে কয়েকদিন চিকিৎসা নেওয়ার পর সুস্থ হন। মিলন ছাত্রলীগ নেতা অমির ব্যক্তিগত সহকারী (পিএ) হতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণে তাকে নির্যাতন করা হয়।

এ ছাড়া অমির বিরুদ্ধে কয়েকজনের কাছ থেকে চাকরি দেওয়ার নাম করে অর্থ নেওয়ারও অভিযোগও রয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড