• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখম করলেন শিক্ষক, বাবার নালিশ শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে

  এস. এম. মিজানুর রহমান মজনু, ভালুকা, ময়মনসিংহ

১৭ আগস্ট ২০২২, ১৩:৪৩
শিক্ষার্থীকে মারধর
পঞ্চম শ্রেণীর মো. ছিদরাতুল মুনতাছির রিজভী (১১)। ছবি-অধিকার

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণীর মো. ছিদরাতুল মুনতাছির রিজভী (১১) নামে এক শিক্ষার্থীকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) অভিযোগের বিষয়টি দৈনিক অধিকারকে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ আহমেদ।

এর আগে রবিবার (১৪ আগস্ট) শিক্ষার্থীর বাবা মো. শামছুদ্দিন খান উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

লিখিত অভিযোগ ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের হবিরবাড়ি গ্রামের মো. শামছুদ্দিন খানের ছেলে মো. ছিদরাতুল মুনতাছির রিজভী। সে ৮০ নং পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী। গত বৃহস্পতিবার ১১ আগস্ট স্কুল ছুটি শেষে বাড়িতে যাচ্ছিল রিজভী। এরপর ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জসিম উদ্দিন কিছু শিক্ষার্থী দিয়ে রিজভীকে ডেকে এনে মারধর করে। পরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে নিয়ে যান তার বাবা মো. শামছুদ্দিন খান। পরে তিনি প্রধান শিক্ষককে না পেয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে জানান।

পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণী শিক্ষার্থী মো. ছিদরাতুল মুনতাছির রিজভী জানান, স্কুলে বসার জায়গা নিয়ে স্কুলের এক ছাত্রের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে স্কুল ছুটি শেষে বিদ্যালয়ের পেছনে আমার ক্লাসের একজনে সঙ্গে হাতাহাতি হয়। পরে এক লোক আমাদেরকে প্রধান শিক্ষকের কাছে নিয়ে আছে। পরে প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন স্যার আমাকে প্রথমে হাতে পড়ে পায়ে মারধর করে। পরে শরীরে জ্বর আসে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা মো. শামছুদ্দিন খান দৈনিক অধিকারকে জানান, আমার ছেলে মো. ছিদরাতুল মুনতাছির রিজভী স্কুল ছুটি শেষে বাড়ি ফেরার পথে পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জসিম উদ্দিন কিছু ছাত্র দিয়ে ছেলেকে ডেকে এনে মারধর করে। ছেলেকে আমি ও আমার স্ত্রী বুঝালেও সে ভয়ে স্কুলে যাচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, গত শনিবার (১৩ আগস্ট) প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি আমাকে নিয়ে বসে। সেখানে মারধরের কথা স্বীকার করেন প্রধান শিক্ষক। আমার ছেলেকে যেভাবে নির্মমভাবে মারধর করেছে। আর কোনো অভিভাবকের সন্তানকে এভাবে মারধর না করে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে সুষ্ঠু বিচার চাই এবং আমার ছেলে যেন স্কুলে লেখাপড়া করতে পারে। মারধরের বিষয়ে প্রশ্ন করলে পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জসিম উদ্দিন। তিনি অস্বীকার করে বলেন, রিজভী আরেক ছাত্র সঙ্গে মারামারি করেছিল। আমি মৌখিকভাবে শাসন করেছি।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে দুই ব্যক্তি। তারা বলেন, মারধরের ঘটনা সত্য। মিটিংয়ে মারধরের কথা স্বীকার করেন প্রধান শিক্ষক।

মারধর বিষয়ে পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. সানোয়ার হোসেন মুঠোফোন দৈনিক অধিকারকে বলেন, মারধরের ঘটনাটি শুনেছি শনিবারে। প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিনের ফোন নাম্বার চাইলে তিনি বলেন, ফোন নাম্বার দেওয়া যাবে না। একপর্যায়ে বলে ফোন নাম্বার নেই। তবে অভিযোগ পেয়েছেন বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে ভালুকা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ আহমেদ দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বাচ্চাদের কোনো প্রকার শাসন বেতের আঘাত করা যাবে না। বাচ্চাদের মাতৃস্নেহে-পিতৃস্নেহে পাঠ দান করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, পাখিরচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন কর্তৃক পঞ্চম শ্রেণী ছাত্র রিজভীকে যে বেতের আঘাত করা হয়েছে। প্রেক্ষিতে তার বাবা মো. শামছুদ্দিন খান একটি লিখিত অভিযোগ আমার কাছে প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রমাণিত হলে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড