• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

গৃহকর্মীর রহস্যজনক মৃত্যু, গৃহকর্ত্রী গ্রেফতার

  কাজী শাহরিয়ার রুবেল, আমতলী (বরগুনা)

১০ আগস্ট ২০২২, ১৬:৩০
গৃহকর্মীর রহস্যজনক মৃত্যু, গৃহকর্ত্রী গ্রেফতার
উদ্ধারকৃত মরদেহ (ফাইল ছবি)

রাজধানীতে গৃহকর্মীর কাজ করতে এসে প্রাণ গেছে রেখা বেগম (২০) নামে এক তরুণীর। তিনি বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের টেপুরা গ্রামের মৃত দুধা গাজীর মেয়ে। গৃহকর্ত্রী পাওনা টাকা না দিয়ে রেখাকে নির্যাতন করে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ গৃহকর্মীর স্বজনদের। গত ৪ আগস্ট রাজধানীর বনানী এলাকার একটি বহুতল ভবনে ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রেখার কোনো বাবা-মা নেই। বাবার নাম দুধা গাজী আর মায়ের নাম রাজিয়া। বাবা-মাকে হারিয়ে খালা পারভীন বেগমের কাছে ঠাই পায় রেখা। এরপর খালার সংসারে নেমে আসে অভাব। পারভীন বেগমের স্বামী পেশায় রাজমিস্ত্রি। ২০১০ সালে রেখাকে নিয়ে তার খালা ঢাকা চলে যান। ঢাকা যাওয়ার কয়েক দিন পর রেখা বিমান বন্দর এলাকা থেকে হারিয়ে যান। তখন তার বয়স মাত্র ১০ বছর। অনেক চেষ্টা করেও তাকে আর খুঁজে পাননি পারভীন বেগম। হারিয়ে যাওয়ার প্রায় দুই বছর পর রেখা গ্রামের বাড়িতে ফিরে আসেন।

রেখা জানান- হারিয়ে যাওয়ার পর বনানী এলাকার একটি বাড়িতে তালাকপ্রাপ্ত এক গৃহকর্ত্রীর বাসায় কাজ করতেন তিনি। ২০১০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত রেখাকে কোনো বেতন দেয়নি তাই সে বাড়ি ফিরে এসেছে। পরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রেখার গৃহকর্ত্রী তাকে বকেয়া বেতন দেওয়ার আশ্বাস দিকে তিনি আবারও তার বাসায় নিয়ে যান।

গৃহকর্মী রেখার খালা পারভীন বেগম জানান, রেখা বনানী যাওয়ার পর তার গৃহকর্ত্রী রেশমা বেগম বাড়ির লোকজনের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। রেখাকে বাড়ির বাইরে যেতে দেওয়া হতো না। এমনকি অন্য কারও সঙ্গে না মিশতেও বাধ্য করা হতো। ফোনে যোগাযোগ ছাড়া গৃহকর্ত্রী রেশমা সম্পর্কে তারা কিছুই জানে না। তার বাসাও চিনে না। রেশমার সাথে পরবর্তীকালে যোগাযোগের চেষ্টা করলে ফোন নাম্বার ব্লকলিস্ট করে রাখে।

তিনি জানিয়েছেন, সম্প্রতি রেখা তার পাওনা টাকা পরিশোধের জন্য অনুরোধ জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গৃহকর্ত্রী রেশমা তাকে অমানবিক নির্যাতন করে। নির্যাতনের কারণেই বাবা-মা মারা যাওয়া অসহায় রেখাও মারা যায়।

এ বিষয়ে বনানী থানার এসআই গুলশান আরা বলেন, গত ৪ আগস্ট গৃহকর্ত্রী মোবাইল ফোনে জানান তার বাসার গৃহকর্মী আত্মহত্যা করেছেন। সন্ধ্যা ৬টায় পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। গৃহকর্ত্রী রেশমাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। নিহত রেখার পরিচয় না পেয়ে বেওয়ারিশ হিসাবে হিমঘরে রাখা হয়।

তিনি আরও বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে রেশমা তার গৃহকর্মীর ঠিকানা দিলে আমতলী থানার মাধ্যমে গত সোমবার সকালে তার স্বজনদের খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে মঙ্গলবার স্বজনরা রেখার মরদেহ হিমঘর থেকে নিয়ে যায়।

লাশের শরীরে বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

রেখার চাচা মজিবুর রহমান গাজী বলেন, ২০১০ সাল থেকে রেশমা বেগম নামে এক তালাকপ্রাপ্ত গৃহকর্ত্রীর বাসায় কাজ করত। কাজের বিনিময়ে কোনো মজুরি পাননি রেখা। টাকার জন্য রেখা তার গৃহকর্ত্রীকে চাপ দিতে থাকলে অমানবিক নির্যাতন করে তাকে হত্যা করা হয়েছে। অসহায় রেখার শরীরে বঁটির কোপসহ মারধরের মারাত্মক আঘাতের জখম রয়েছে। টাকা না দিয়ে পরিকল্পিতভাবে রেখাকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে রেশমা বেগম। আমরা আইনের কাছে এমন মর্মান্তিক ঘটনার তদন্ত পূর্বক বিচার চাই।

বনানী থানার ওসি নূরে আজম মিয়া জানান, গৃহকর্মী রেখাকে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে গৃহকর্ত্রী রেশমা বেগমকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া মাত্র আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড