• মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

একজন শিক্ষক দিয়েই ২ বছর ধরে চলছে একটি স্কুল

  হুমায়ুন কবির সূর্য, কুড়িগ্রাম:

০৪ আগস্ট ২০২২, ১৩:৩১
চিলমারী
নটারকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস নিচ্ছেন একমাত্র শিক্ষিকা। ছবি- অধিকার

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে গত দুবছর ধরে একটি স্কুলে একজন শিক্ষক দিয়ে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। দীর্ঘদিন শিক্ষক সংকটের কারণে স্কুল থেকে ঝরে পরেছে অনেক শিশুই। অর্ধেক শিক্ষার্থী চলে গেছে অন্য প্রতিষ্ঠানে। এমন অবস্থায় বারবার অনুরোধ করেও মেলেনি শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ। ফলে স্কুলের শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের মুখে পরলেও কুম্ভকর্ণের মতো ঘুমিয়ে আছে চিলমারী উপজেলা শিক্ষা অফিস।

সভাপতির দায়িত্ব পেয়েও সহকারি শিক্ষা অফিসার একবারও পরিদর্শন করেননি স্কুলটি। নেননি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। ফলে বেহাল দশা এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের।

সরজমিন চিলমারী নৌ-বন্দর থেকে শ্যালো নৌকায় দেড় ঘন্টা পর পৌছানো হয় চিলমারী উপজেলার অস্টমীর চর ইউনিয়নেরর ডাটিয়ার চর গ্রামে অবস্থিত নটারকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। স্কুলে শিক্ষার্থীরা তখন বিচ্ছিন্নভাবে ক্লাস ও ক্লাসের বাইরে অবস্থান করছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোছা. রোজিনা খাতুন জানান, তিনি একাই গত দু’ছর ধরে স্কুলে পড়াশুনা চালিয়ে আসছেন।

১. স্কুল প্রাঙ্গনে খেলাধুলায় মেতে কিছু শিক্ষার্থী

স্কুলটি ১৯৯১ সালে ব্রহ্মপূত্র নদের কোলে অবস্থিত নটারকান্দি গ্রামে প্রথম প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৮ সালে স্কুলটি নদী গর্ভে বিলিন হলে ওই বছর পার্শ্ববর্তী ডাটিয়ার চরে স্কুলটি পূণরায় প্রতিষ্ঠা করা হয়। সেই থেকে স্কুলটি এখানেই রয়েছে। ২০১৩ সালে স্কুলটি জাতীয়করণের সময় ৫জন শিক্ষক দিয়ে স্কুলের পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এরপর ২০২০ সালে পর্যায়ক্রমে স্কুলের ৪ জন শিক্ষক অবসরে যান । এরপর থেকে ওই বিদ্যালয়ে আর কোন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়নি। ফলে গত দু’বছর ধরে একজন শিক্ষক দিয়ে স্কুল পরিচালনা করায় শিক্ষার্থী ঝরে পরে বেহাল দশা হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির।

স্কুলের হাজিরা খাতা অনুযায়ী বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮৭জন। বৃহস্পতিবার স্কুলে সব ক্লাস মিলে উপস্থিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৭৭জন। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রোজিনা খাতুন জানান, প্রধান শিক্ষক মো. আমজাদ হোসেন ২০২০ সালে অবসরে যান। এরপর একই বছর সহকারি শিক্ষক মো. আছির উদ্দিন, আব্দুস ছামাদ ও মো. সোলায়মান হোসেন অবসরে গেলে আমি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আমার একার পক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করা খুবই কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে। এজন্য জরুরী ভিত্তিতে ৫টি শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া জরুরি হয়ে পরেছে।

স্কুলের অভিভাবক মাহমুদ আলী, স্থানীয় অধিবাসী জহুরুল ইসলাম ও জব্বার আলী জানান, এডহক কমিটির আহবায়ক হয়েও এই স্কুলে একবারও ভিজিটে আসেননি চিলমারী উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার একেএম জাকির হোসেন। তার অবহেলার কারণে স্কুলটির শিক্ষা কার্যক্রম এখন ধ্বংসের পথে। শূন্যপদে চরাঞ্চলের শিক্ষিত ছেলেমেয়েদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ারও দাবি জানান তারা। স্কুলের ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী সীমা, মেরিনা ও ফারিয়া এবং ৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী মোজাহিদ ও আখতারুন জানায়, স্কুলে শিক্ষক না থাকায় সিলেবাস অনুযায়ী পড়াশুনা হচ্ছে না। ফলে অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা অন্য প্রতিষ্ঠানে চলে গেছে।

যোগদানের পর স্কুল ভিজিট না করার কথা স্বীকার করে চিলমারী উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার একেএম জাকির হোসেন জানান, আমি চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে উপজেলায় যোগদান করেছি। নানান ব্যস্ততার কারণে স্কুল পরিদর্শন করা সম্ভব হয়নি। বিষয়টি প্রশাসনের নজরে রয়েছে। দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে চিলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহবুবুর রহমান জানান, জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় বিষয়টি আমার নজরে আসে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন। এর আলোকে ২/৩ জন খন্ডকালিন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। যাদের বেতন উপজেলা প্রশাসন থেকে ব্যয় করা হবে। পরবর্তীতে শিক্ষক নিয়োগ হলে এই সমস্যা আর থাকবে না।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড