• রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কারাবিধি অমান্য করে হাজতির উপর অমানুষিক নির্যাতন

  মনিরুজ্জামান, নরসিংদী

২৩ জুলাই ২০২২, ১৭:০৯
কারাবিধি অমান্য করে হাজতির উপর অমানুষিক নির্যাতন
নরসিংদী কেন্দ্রীয় কারাগার (ছবি : অধিকার)

নরসিংদীতে কারাবিধি অমান্য করে জেলা কারাগারে রাতের আধাঁরে লিজন মোল্লা (৩০) নামে এক হাজতিকে পিটিয়ে পা ও কোমরের হাড় ভেঙ্গে ফেলাসহ তারকাটা দিয়ে পুরুষাঙ্গ ছিদ্র করে চিরতরে যৌনশক্তি নষ্ট করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একটি মহলের প্ররোচনায় ও যোগসাজসে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নরসিংদী জেলা কারাগারের জেল সুপার শফিউল আলম’র নেতৃত্বে এ কাজ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন ওই হাজতির পরিবার।

বর্তমানে লিজন মোল্লা শঙ্কটাপন্ন অবস্থায় কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন। এ ব্যাপারে নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন লিজন মোল্লার মা সাজেদা বেগম।

অভিযোগে বলা হয়, একটি মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলায় গত ১২ জুন লিজন মোল্লাকে তার বাড়ী থেকে গ্রেফতার করে নরসিংদী সদর মডেল থানা পুলিশ এবং ১৩ জুন আদালতের নির্দেশে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। গত ১৮ জুলাই জেল হাজত থেকে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। আদালত থেকে পূনরায় জেল হাজতে ফিরে গেলে রাতে কারারক্ষিরা মোবাইল ফোন খোঁজার নামে তার দেহসহ বিছানার আশপাশ তল্লাশি করে চলে যায়।

পরবর্তীকালে রাত গভীর হলে সবাই যখন ঘুমিয়ে পড়ে তখন জেল সুপার শফিউদ্দিনের নেতৃত্বে কয়েকজন কারারক্ষি কারাবিধি অমান্য করে মুখে কালো কাপড় বেধে লিজনের কাছে যায় এবং তার দুই হাতে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে মুখে কাপড় বেধে তাকে বেধড়ক পেটাতে থাকে। এ সময় তার পুরুষাঙ্গে বারবার তারকাঁটা দিয়ে ফুটো করতে থাকে। এর ফলে তার পুরুষাঙ্গ ফুলে যায় এবং বেধরক পেটানোর ফলে বাম পা ও কোমড়ের একটি হাড় ভেঙ্গে যায় (যা তার পরিবারের সদস্যরা কাশিমপুর জেলখানায় দেখা করতে গিয়ে বিস্তারিত জানতে পারে)।

এ দিকে বেধরক পেটানোর ফলে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হয়ে পড়লে কারারক্ষিরা ওই সময়ের মারধর বন্ধ করে চলে যায়। সকালে দ্বিতীয় দফায় তাকে আবার পিটানো হয়। জেলখানায় লিজনকে পিটানোর খবর তার পরিবারের সদস্যদের কাছে পৌঁছলে তারা তাকে দেখতে জেলগেটে ছুটে যায়। সেখানে গেলে লিজনের সাথে তাদের দেখা করতে না দিয়ে জেলা প্রশাসকের নিষেধ আছে বলে তাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এ সময় লিজনের স্বজনদের একজন কারাগারে থাকা অন্য এক হাজতির সাথে দেখা করে জানতে পারে ১৮ জুলাই লিজনের ফেসবুক আইডি থেকে তার কয়েকটি ছবি পোস্ট হয়। এতে করে কারাগারে লিজন মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে সন্ধেহ করে তাকে এভাবে পিটানো হয়।

এ দিকে ছেলের এ খবরে লিজনের মা সাজেদা বেগম বিভিন্ন মহলে ছুটাছুটি করতে থাকে। পরে গত ২০ জুলাই তিনি নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগের ভিত্তিতে নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি কামরুল হাসান সোহেলের নেতৃত্বে ৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি টিম প্রথমে লিজনদের বাড়ীতে গিয়ে তার স্বজনদের সাথে কথা বলে। পরে নরসিংদী জেলা কারাগারে এসে জেল সুপারের স্বাক্ষাত চায়। এ সময় ৪ জনের মধ্যে ২জনকে ভিতরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এ দিকে কারা কর্তৃপক্ষের বেধড়ক পিটুনিতে লিজনের অবস্থা শংকটাপন্ন হয়ে পড়ে।

এ অবস্থা বাহিরে জানাজানি হলে জেল সুপারের সমস্যা হতে পারে বিধায় বিষয়টি ধামাচাপা দিতে প্রতিনিধি টিম জেল গেটে যাওয়ার পূর্বেই তাকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠিয়ে দেয়।

অনুমতি পেয়ে নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি কামরুল হাসান সোহেল ও সিনিয়র সহ সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন রাজু ভিতরে গিয়ে লিজনকে মারপিটের কথা জানতে চাইলে জেল সুপার শফিউল আলম মারধরের ঘটনা অস্বীকার করেন।

তিনি বলেন, ১৮ তারিখ তাকে আদালতে পাঠানো হলে আদালতের গারদখানায় মোবাইলের মাধ্যমে তার ফেসবুকে ছবি পোস্ট দেয়।

গারদখানায় লিজন ফেসবুকে ছবি পোস্ট দিয়েছে এর কোনো সিসি ফুটেজ আছে কি-না জানতে চাইলে জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি ডিসি স্যার জানেন তাছাড়া প্রেস ক্লাবও বিষয়টি জানে। বিষয়টা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাহলে জানেন বলে জেল সুপারকে পাল্টা প্রশ্ন করলে জবাবে তিনি তারা নয় বরং নরসিংদী প্রেসক্লাবের কতিপয় একজন সদস্যের নাম বলেন। উপস্থিত সাংবাদিকরা ওই সাংবাদিকের নাম উল্লেখ করে জিজ্ঞেস করলে ‘সে জানলে প্রেসক্লাব কিভাবে জানলো’ তার দিকে এ প্রশ্ন ছুড়ে দিলে তিনি এর কোনো উত্তর দিতে পারেনি।

কিছুক্ষণ পর তিনি বলেন, ১৮ তারিখ ৩ টার দিকে ওই সাংবাদিক আমার কাছে ফোন করে লিজন কোথায় আছে জানতে চান এবং যদি জেলখানায় থাকে তাহলে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ফেসবুক কিভাবে চালাচ্ছে তা জানতে চান। লিজন কোথায় আছে আমি তখন জানতাম না। তাই আমি তাকে লিজন কোথায় আছে জানাতে পারিনি।

তিনি জানান, লিজনের জন্য কারাগারে থাকাটাই দায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যেই তার কাছে যাচ্ছে তাকেই দেখে নিবে, গুলি করে মেরে ফেলবে। বর্তমানে অন্যান্য কয়েদিরাসহ তারা নিজেরা তার এ কথায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এ সময় সাংবাদিকরা লিজন কেন এমন করছে এ জন্য তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের সামনে আনার জন্য বললে জেল সুপার জানান কারো সাথে যেন লিজনকে স্বাক্ষাত করতে দেওয়া না হয় এ জন্য অতিরিক্তি জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) এর নিষেধ রয়েছে। অথচ লিজনকে তখন কাশিমপুর পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে যা তিনি সাংবাদিকদের সাথে গোপন করে গেছেন।

উল্লেখ্য, কারাগারে যাবার আগে প্রতিনিধি টিম লিজনদের বাড়ী গিয়ে জানতে পারে গ্রেফতার হওয়ার আগে লিজন তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বাড়ীতেই রেখে এসেছিল। মাঝে মধ্যে ওই ফোনটি তার ছোট ভাই চালাতেন। গত ১৮ জুলাই ওই ফোন ব্যবহার করে তার ছোট ভাই লিজনের আইডি থেকেই লিজনের কয়েকটি ছবি পোস্ট দেয়। বর্তমানে ওই মোবাইলটি নরসিংদী জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবে গচ্ছিত রয়েছে।

জেলা কারাগার থেকে প্রতিনিধি টিম তাদের ক্লাব কার্যালয়ে গেলে লিজনের মাসহ বেশ কয়েকজন স্বজনকে ক্লাবে অপেক্ষারত অবস্থায় দেখতে পায়। এ সময় ভিতরে ঢুকতে লিজনের মা সভাপতি কামরুল হাসান সোহেলকে জড়িয়ে ধরে কান্না জুড়ে দেয়। অনেকটা বিলাপের সুরে তার ছেলেকে বাঁচানোর আকুতি জানান তিনি। লিজনের ছোট ভাই উপস্থিত সাংবাদিকদের মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড শুনায়। ওই কল রেকর্ডে জানা যায় লিজনকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। যে ভ্যানে তাকে পাঠানো হয়েছে তাতে থাকা অবস্থায় ওই কল রেকর্ডটি। গাড়ীর আওযাজে স্পট শুনা না গেলেও লিজনের উপর যে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়েছে তা বুঝতে কারোই ভুল হবে না। সে বার বার তাকে বাঁচানোর জন্য আকুতি জানিয়েছেন পরিবারের লোকদের কাছে।

কল রেকর্ডটি শুনার পর জেল সুপারের মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার ফোন করলে তিনি তা রিসিভ করেনি। পরে জেলার রিজিয়া বেগমকে ফোন করে লিজনকে কি কাশিমপুর পাঠানো হয়েছে এ কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন না আমরা পাঠানোর আদেশ কপি পাওয়ার অপেক্ষায় আছি। এ সময় মোবাইল ফোনের কল রেকর্ডের কথা তাকে জানানো হলে তিনি বলেন, তাহলে আমি জেনে নেই বলে ফোনটি রেখে দেন।

এর কিছুক্ষণ পর তিনি নিজে ফোন করে লিজনকে কাশিমপুর পাঠানো হয়েছে স্বীকার করে সেখানে তার কোনো সমস্যা হবে না বলেও জানান। এ দিকে বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) কাশিমপুর কারাগারের গিয়ে লিজনের সাথে স্বাক্ষাত করে তার স্বজনরা। তাকে দেখে সবাই হতচকিত হয়ে যান। দুইজন কারারক্ষীর শরীরে ভর দিয়ে কোমরে প্রচন্ড ব্যাথা নিয়ে কোনো রকমে দাঁড়িয়ে সে দেখা করতে আসে। বাম পা ভাঙ্গা, কোমরের একটি হাড় ভাঙ্গা সারা শরীরে মারের ছোপ ছোপ দাগ। এ সময় লিজন তার স্বজনদের শুধু বিলাপ করে বলে যাচ্ছিল ‘ভাই আমি আর বাঁচতাম না, আমারে হেরা মাইর‌্যা শেষ কইরা ফালাইছে।’

লিজনের মা সাজেদা বেগম বলেন, জেল সুপার বাদী পক্ষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদের প্ররোচনায় আমার ছেলেকে প্রাণে মেরে ফেলার জন্য রাতের আধারে কারাবিধি অমান্য করে লিজনের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছে। আজ আমার ছেলের জীবন শংকটাপন্ন। এ অবস্থায় তার সুচিকিৎসার জন্য আদালতের কাছে জোড় দাবি জানানোসহ তার উপর অমানুষিক নির্যাতনের বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন লিজনের মা সাজেদা বেগম।

জেল সুপার শফিউল আলমের মুঠোফোনে কল করে লিজনকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানোর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারাগারে লিজন কম্বল ও বালিশে আগুন ধরিয়ে দেয়। আমরা বিষয়টি হেড অফিসকে অবগত করলে হেড অফিস থেকে তাকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। কারাগারে জেল কোড অমান্য করে জেল সুপারের নেতৃত্বে মুখে কাপড় বেঁধে কয়েকজন মিলে লিজনকে বেধড়ক মারধরসহ তার পুরুষাঙ্গে তারকাটা দিয়ে ছিদ্র করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেন, লিজনের সাথে আমার কোনো ব্যাক্তিগত শত্রুতা নেই সুতরাং কারাগারে তাকে পেটানোর প্রশ্নই আসে না। তাকে কাশিমপুর পাঠানোর সময় সেখানে ডাক্তার ও উপস্থিত ছিল। তাছাড়া সে যখন হাজিরা দিতে আসবে তখন তাকে পেটানো হয়েছে কি-না তা আপনারা জানতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড