• মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

স্কুলে মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ

  শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম)

২২ জুলাই ২০২২, ০২:০২
স্কুলে মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ
স্কুলে মোবাইল ফোন ব্যবহার (ফাইল ছবি)

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার 'নাপোড়া শেখেরখীল উচ্চ বিদ্যালয়'-এ শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন স্কুলটির প্রধান শিক্ষক।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকালে স্কুল চলাকালীন এসেম্বলির সময় উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মাইকিং করে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। 'মোবাইল বাদ দিয়ে বই ধরুন, মোবাইল ব্যবহার বন্ধ করুন' এ স্লোগান নিয়ে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এর পূর্বে ২ থেকে ৩ মাস ধরে প্রতি শ্রেণিকক্ষে আলাদাভাবে শিক্ষকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহারের নানা ক্ষতিকর দিক তুলে ধরা হয়। মোবাইল ফোন ব্যবহার না করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়। এসেম্বলির সময় শ্রেণিকক্ষে মোবাইল ব্যবহার বন্ধ ঘোষণার পরপরই উপস্থিত শিক্ষার্থীরা হাততালি দিয়ে ধন্যবাদ জানান এবং সিদ্ধান্তটির সাথে একাত্মতা পোষণ করেন।

বিদ্যালয়টির সহকারী শিক্ষক কাইচার উদ্দিন দৈনিক অধিকারকে বলেন, বর্তমান সময়ে শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধ ও ছাত্রত্ব দিন দিন অবনতি হচ্ছে। স্কুল থেকে যদি বাচ্চারা এসব ম্যানার তারা না পায় তবে ভবিষ্যতে তারা সমাজের জন্য কলঙ্ক বয়ে আনবে। তাছাড়া পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে নাপোড়া-শেখেরখীল উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি সুনাম আছে। আমরা তা অব্যাহত রাখতে নিয়মিত বাচ্চাদের কাউন্সিলিং করি। মোটিভেশনাল স্পিস দিই। অভিভাবকদের সাথে পরামর্শ সভা করি। আমাদের শেষ যেটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি তা মোবাইল ব্যবহারে সম্পূর্ণভাবে বন্ধের ঘোষণা দিয়েছি। আশাকরি, আমরা ভালো একটি জাতি গঠনে এই ধরণের উদ্যোগ নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে পারব।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ জাহাঙ্গির আলম দৈনিক অধিকারকে জানান, মফস্বল এলাকার অধিকাংশ শিক্ষার্থী মোবাইল ফোনের সঠিক ব্যবহার করছে না। খোদ তারা শ্রেণিকক্ষে মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে। এতে নানা অপ্রীতিকর অবস্থার আশংকা রয়েছে। শিক্ষার্থীরা মোবাইলের অপব্যবহার করে মোবাইল ফোনের প্রতি আসক্তি হয়ে পড়ছে। এতে পড়ালেখার সঠিক পরিবেশ যেমন বজায় থাকছে না তেমনি পড়ালেখার প্রতি মনোযোগ হারাচ্ছে দিন দিন।

তিনি বলেছেন, শিক্ষাগুরুর মর্যাদা যেন ভুলতে বসেছে বর্তমান প্রজন্ম। তাই কিছুদিন পরপর শোনা যাচ্ছে শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষক লাঞ্ছনার খবর। আর শিক্ষার্থীদের এমন অবক্ষয়ের জন্য দায়ী পরিবার ও অনিয়ন্ত্রিত মোবাইল ফোন। মোবাইলের প্রতি আসক্তি শিশুদের সামাজিক দক্ষতা নষ্ট করছে। ফলে তৈরি হচ্ছে শিশুদের নানা ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যা। শিশুদের পারিবারিক ও মানবিক মূল্যবোধের বিকাশ ব্যাহত হচ্ছে। তাই স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের এ থেকে দূরে রাখতে হবে। মূলত লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগ সৃষ্টি ও মানোন্নয়নের জন্য আমাদের এ পদক্ষেপ।

তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে আমরা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সাথে ও সচেতন অভিভাবকদের সাথে বসে মতবিনিময় করেছি। তারা এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে এবং সাধুবাদ জানিয়েছে। তাছাড়া ২ থেকে ৩ মাস আগে শ্রেণিকক্ষে এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করা হয়েছে। আজ এসেম্বলিতে চূড়ান্ত ঘোষণা দিয়েছি। আগামী শনিবার অভিভাবকদের সাথে নিয়ে অভিভাবক সমাবেশ করবো। এতে তাদেরকে সচেতন করা হবে। বাচ্চাদের বাঁচাতে হবে। আমরা চাই বাচ্চারা মোবাইল বাদ দিয়ে বই ধরুক। আমি মনে করি বাঁশখালীর প্রত্যেক স্কুলে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন ব্যবহার বন্ধ করলে আমরা অভিভাবকরাই উপকৃত হবো।

উল্লেখ্য, বাঁশখালীর দক্ষিণ জনপদের 'নাপোড়া-শেখেরখীল উচ্চ বিদ্যালয়' বরাবরের মতো ২০২০ সালে রেজাল্টে উপজেলা প্রথম, বিজ্ঞান মেলায় বাঁশখালীতে প্রথম, সার্বিক শৃঙ্খলা,পড়ালেখার দিক দিয়ে প্রথম হলেও শিক্ষার্থী অনুপাতে আমাদের দালান নাই, ডিজিটাল ল্যাব নাই। স্কুলের অর্থায়নে কিছু শ্রেণি কক্ষ বাড়ালেও প্রায় ২ হাজার ৫ শত জন শিক্ষার্থী অনুপাতে শ্রেণি কক্ষ খুবই কম। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করতে হয় আমাদের। যদি সরকার বা ঊর্ধ্বতন কারো অবকাঠামোগত সহায়তা পাই তাহলে বাঁশখালীর শ্রেষ্ঠ স্কুল হিসেবে উপহার দেয়ার কথা নিশ্চিত করেন ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক।

জানা যায়, ২০১৭ সালে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) থেকে শ্রেণিকক্ষে কোনো শিক্ষার্থী বা শিক্ষক মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না বলে একটি পরিপত্র জারি করা হয়। তৎকালীন মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান স্বাক্ষরিত জারি করা পরিপত্রে বলা হয়, সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কিছু শিক্ষক-শিক্ষার্থী মোবাইল ফোন নিয়ে শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করছেন বা শ্রেণীকক্ষে মোবাইল ফোনে কথা বলছেন, এতে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান ও পাঠগ্রহণ ব্যাহত হচ্ছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড