• শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পিতাকে হত্যা

  আব্দুর রউফ রুবেল,গাজীপুর:

১৯ জুলাই ২০২২, ২২:০২
শ্রীপুরে

গাজীপুরের শ্রীপুরে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ছেলে ও ভাতিজার পরিকল্পনায় ঘুমন্ত অবস্থায় গিয়াস উদ্দিন (৬০) নামের এক ব্যক্তিকে হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গাজীপুরের সদস্যরা।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মো. আলম (৩৮) ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার কোকসাইর এলাকার কেরামত আলীর ছেলে এবং একই জেলার ত্রিশাল উপজেলার মো. আবু কালামের ছেলে মোঃ আরাফাত (২৬)। সোমবার(১৮ জুলাই) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ময়মনসিংহের পাগলা থানাধীন কোকসাইর এলাকা থেকে মো. আলমকে এবং মঙ্গলবার(১৯ জুলাই) ভোর ৫টার দিকে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর পৌর শহরের কেওয়া এলাকা হতে মো. আরাফাত কে গ্রেফতার করা হয়।

নিহত গিয়াস উদ্দিন (৬০) গাজীপুর জেলার শ্রীপুর পৌর এলাকার ভাংনাহাটি পশ্চিম পাড়া নতুন বাজার গ্রামের প্রয়াত আব্দুল মালেকের ছেলে।

গাজীপুর পিবিআই’র পুলিশ পরিদর্শক মো. হাফিজুর রহমান পিপিএম জানান, ২০২০ সালের ১১ ডিসেম্বর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় গিয়াস উদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। তিনি তার বাড়ীর সামনে রাস্তার পাশে অটোরিক্সার চার্জসহ দৈনিক গ্যারেজ ভাড়া প্রদানের ভিত্তিতে গ্যারেজে গাড়ি রাখত এবং অটোরিক্সা তৈরিসহ অটোরিক্সার বিভিন্ন সরঞ্জামাদি ক্রয়-বিক্রয় করতেন। গিয়াস উদ্দিন গ্যারেজের ভিতর একপাশে কাঠের চৌকির উপর প্রতিদিন রাতে ঘুমাত। প্রতিদিনের ন্যায় ঘটনার দিন ২০২০ সালের ১১ ডিসেম্বর গিয়াস উদ্দিন ওই গ্যারেজে রাতে ঘুমিয়ে পড়ে। পরদিন ১২ ডিসেম্বর সকালে গ্যারেজের ভিতরে ঘুমিয়ে থাকা কাঠের চৌকির উপর ভিকটিম গিয়াস উদ্দিনকে মাথায় রক্তাক্ত জখম প্রাপ্ত অবস্থায় পরিবারের সদস্যরা শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ ঘটনায় ওই দিনই গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মোঃ অলিউল্লাহ বাদী হয়ে শ্রীপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

শ্রীপুর থানা পুলিশ তদন্ত করার পর মামলাটি গাজীপুর পিবিআই তদন্তভার গ্রহণ করে। দীর্ঘসময় তদন্ত করে মোঃ আলম ও আরাফাত সম্পৃক্ততা খুঁজে পায় পিবিআই। পরে তাদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পিবিআই।

গ্রেফতারকৃত আসামীরা জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, গিয়াস উদ্দিনের গ্যারেজে অটোরিক্সা রাখতো গ্রেফতারকৃত মোঃ আলম ও আরাফাত। ঘটনার রাতে গিয়াস উদ্দিনের ছেলে আবুজর (৩২) ও ভাই মোঃ সিরাজের ছেলে ভাতিজা সবুজ (৩২) এর সাথে গিয়াস উদ্দিনের পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় মোঃ সাহাবুদ্দিনদের বিরোধ চলছিল । পরে সাহাবুদ্দিনদের ফাঁসাতে গ্রেফতারকৃতরা আবুজর ও সবুজের পরামর্শে গিয়াস উদ্দিনকে হত্যার পরিকল্পনা করে। ঘটনার দিন গ্রেফতার আলমকে ফোন কলে ডেকে এনে আবুজর, সবুজ, আরাফাতসহ অন্যরা ঘটনাস্থলের পাশের দোকানে বসে চা পান করে। পরে সকলে একত্রিত হয়ে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গ্যারেজে ঢুকে ঘুমন্ত অবস্থায় ভিকটিম গিয়াস উদ্দিনের মাথায় ধাঁরালো চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

এ বিষয়ে পিবিআই এর পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। মূলত ভিকটিম এর ছেলে আবুজর এবং ভাতিজা সবুজ তাদের সহযোগিদের সাথে পরিকল্পনা করে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর জন্য ঘটনার রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় ভিকটিমকে কুপিয়ে হত্যা করে।

তিনি আরও জানান, পিবিআই এর হেফাজতে থাকা অবস্থায় গ্রেফতারকৃত আসামি মোঃ আলম ও মোঃ আরাফাত প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গিয়াস উদ্দিন হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। পরে তাদের মঙ্গলবার গাজীপুর আদালতে সোপর্দ করা হলে তারা নিজেকে এবং ঘটনার সাথে জড়িত অপর আসামিদের নাম প্রকাশ করে গিয়াস উদ্দিন হত্যাকান্ডের বিষয়ে পরিকল্পনা এবং অন্যান্য আসামীদের কার কি ভূমিকা ছিল বিস্তারিত বর্ণনা করে আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড