• শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অঢেল সম্পদের মালিক ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সোচ্চার এলাকাবাসী

  ইয়ার হোসেন সোহান, ঝিকরগাছা (যশোর)

১৫ জুলাই ২০২২, ০০:১৮
অঢেল সম্পদের মালিক ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সোচ্চার এলাকাবাসী
সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে (ছবি : অধিকার)

ঝিকরগাছায় একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বর্হিভূত অঢেল সম্পদ-সম্পত্তি অর্জনের প্রশ্ন তুলেছেন এলাকাবাসী। বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) বিকালে ঝিকরগাছা পৌরসদর কীর্তিপুর ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ে কীর্তিপুর উন্নয়ন কমিটি আয়োজিত জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে এই প্রশ্ন তুলেছেন কমিটির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন (৬৫)।

৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হক খোকনের বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা, ষড়যন্ত্র ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে ও মামলাটি প্রত্যাহারের দাবিতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা আমিনুর রহমানকে (৫৫) একজন স্বার্থানেষী, পরসম্পদলোভী ও মামলাবাজ উল্লেখ করে বলা হয়। এমনকি তিনি কীর্ত্তিপুর শহীদ শেখ রাসেল স্মৃতি সড়কে পৌরসভার পানির পাইপ লাইনের উপর তার অবৈধভাবে নির্মিত বহুতল ভবন ও তৎসংলগ্ন প্রাচীর নির্মাণ এবং বিসি রাস্তার জায়গা বেআইনিভাবে নিজ দখলে রাখার অপচেষ্টা করে।

এর প্রেক্ষিতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী এধরনের বেআইনি কাজ থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করেন। কিন্তু এলাকাবাসীর অনুরোধ উপেক্ষা করে আমিনুর রহমান কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন। অতঃপর বিষয়টি পৌর কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ করলে কর্তৃপক্ষ এসকেভেটর দিয়ে মাটির স্তুপ ও স্থাপনা অপসারণ করতে গেলে অভিযুক্ত আমিনুর রহমান গং সরকারি কাজে বাধাপ্রদান, এসকেভেটর চালক মুজাহিদকে মারধর, ভাংচুর ও ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে।

ফলে, পৌরসভার অনুমতিক্রমে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও স্থানীয় সাংবাদিক একরামুল হক খোকন বাদী হয়ে ঝিকরগাছা থানায় আমিনুর রহমানসহ ৬জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। এতে, ক্ষিপ্ত হয়ে আমিনুর রহমান কাউন্সিলর একরামুল হক খোকনের বিরুদ্ধে একটি হয়রানি ও ষড়যন্ত্রমূলক পাল্টা মামলা করেন। এই মামলায় আমিনুর রহমান তার ভ্রাতা, স্ত্রী-সন্তানসহ ৬ জনকে সাক্ষী করা হয়।

এদিকে, সাক্ষীদের মধ্যে ৪নং সাক্ষী হাফিজুর রহমান ও ৫নং সাক্ষী সেলিম হোসেন ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলায় সাক্ষী করায় গত ১৩জুলাই২২ ঝিকরগাছা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, আমিনুর রহমান অবৈধ টাকা অর্জনের কারণে এলাকার শান্তিপ্রিয় মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে প্রায়ই জরুরি আইনি সেবা ৯৯৯এ ফোন করে অহেতুক হয়রানি করেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আমিনুর রহমান যে সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে বিরোধ করে চলেছেন সেটা একটি বিতর্কিত সম্পত্তি। সেখানে তার মালিকানা নাই। যা নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। তাছাড়া উল্লেখিত সম্পত্তির উপর বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে।

বক্তারা বলেন, তিনি দেওয়ানি আদালতের নির্দেশনা বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে চলেছেন। কমিশনের রির্পোটেরও তোয়াক্কা করেননা মামলবাজ আমিনুর রহমান। তিনি সামাজিক বিচার মানেন না। বরং একের পর এক মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন গল্পকাহিনী বানিয়ে এলাকার শান্তি প্রিয় নিরীহ মানুষদের বিরুদ্ধে সাজানো মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে চলেছেন। আমরা এসব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারে প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে বলা হয়, আমিনুর রহমান কৃষি ব্যাংকে লোন অফিসার হিসাবে চাকুরিকালীন সময়ে ঘুষ গ্রহণ করে নামে-বেনামে ঝিকরগাছা, শার্শা ও কায়েমকোলায় কোটি কোটি টাকার জ্ঞাত আয় বর্হিভূত সম্পদ অর্জন করেছে। এব্যাপারে আমিনুর রহমানের কোটি কোটি টাকার সম্পদ ও আয়কর ফাইল তদন্তের দাবি জানান এলাকাবাসী।

সংবাদ সম্মেলনে এসময় উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা জজ কোর্টের বিজ্ঞ আইনজীবী ও আয়কর উপদেষ্টা এমদাদুল হক দুলু, কীর্তিপুর গ্রাম উন্নয়ন কমিটির সহ সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, মো. আকবর আলী, সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান মনির, যুগ্ম সম্পাদক আসমত আলী, ইদ্রিস আলী, একেএম নুর উদ্দীন সবুজ, জালাল উদ্দীন প্রমুখ।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড