• শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইদে পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে মানুষের ঢল

  এম মোবারক হোসেন, পঞ্চগড়

১৩ জুলাই ২০২২, ১৮:০০
ইদে পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে মানুষের ঢল
পর্যটনকেন্দ্র (ছবি : অধিকার)

পবিত্র ইদুল আজহা উপলক্ষে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার দর্শনীয় স্থানগুলোতে হাজারো মানুষের ঢল নেমেছে। এ যেন এক প্রাণের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।

সরে জমিনে গিয়ে দেখা যায়, জেলার বিনোদন কেন্দ্র গুলোতে কেউবা বাইসাইকেল, মোটরসাইকেল, রিকশা-ভ্যান, মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন যানবাহনে শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণী, শিক্ষার্থীসহ সব বয়সী মানুষ দলবেঁধে ঘুরেছেন। মোবাইল ফোনে সেলফি আর ছবি তুলতে ভুল হচ্ছে না কারও। প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যা স্বপরিবারে কিংবা বন্ধুদের নিয়ে মনের আনন্দে বেড়াচ্ছেন সবাই।

এছাড়া স্থানীয় লোকজনও পরিবার-পরিজন নিয়ে ইদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে দিনভর ঘুরে বেড়িয়েছেন জেলার তেঁতুলিয়া রওশনপুরে জেমকন গ্রুপের কাজী অ্যান্ড কাজী টি এস্টেট, আনন্দধারা, আনন্দ গ্রাম, শিশু পার্ক, সমতলের বুকে বিখ্যাত অর্গানিকসহ বিভিন্ন চা বাগান, বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট-ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট, ভারত-বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী মহানন্দা নদীর পাড়, মুক্তাঞ্চল তেঁতুলিয়ার স্মৃতিসৌধ, তেঁতুলিয়া ডাকবাংলো, তেঁতুলিয়ার বেরং কমপ্লেক্সসহ পিকনিক কর্ণারে মিলনমেলা দেখা গিয়েছে।

গত দুইটি বছর করোনা ভাইরাসের কারণে ইদসহ বিভিন্ন সময়ে পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রগুলো অনেকটা বন্ধ ছিল। কিন্তু এবার তা নেই। তাই এবার পঞ্চগড়ের পর্যটকরা যেন বাঁধনহারা। ইদের আনন্দ উপভোগ করতে ইদের দিন বিকাল থেকেই স্থানীয় ও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসতে শুরু করে।

ইদের আগেই সংশ্লিষ্টরা জানিয়ে বলেছিলেন- পবিত্র ইদুল ফিতরের ছুটিতে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় থাকবে। ইদ পরবর্তী চার দিন (বুধ থেকে শনিবার পর্যন্ত) স্থানীয় পর্যটকসহ প্রতিদিন গড়ে কয়েক হাজার পর্যটক পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় উপস্থিত থাকবেন।

এদিকে,আশপাশের জেলা ও উপজেলা থেকে অনেকেই পরিবার নিয়ে আসেন তেঁতুলিয়ার মহানন্দা নদীর পাড়ে। ইদ আনন্দে ছেলেমেয়েসহ পরিবারের সবাইকে নিয়ে এখানে বেড়াতে আসছেন।

পঞ্চগড় সদরের ধাক্কামারা এলাকা থেকে স্বপরিবারে বেড়াতে আসা পর্যটক মাসুদ রানা বলেন, প্রকৃতির হিমালয় কন্যার রূপ বৈচিত্র্য থেকে সত্যিই আমরা বিমোহিত। স্বপরিবারে এমন সুন্দর একটা জায়গায় আসতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। তাছাড়া সারি সারি চা বাগান, মহানন্দা নদী খুবই ভালো লাগে।

দিনাজপুর খানসামা হতে আগাত আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন,আমরা প্রতি ইদে বন্ধুরা মিলে বেড়াতে যায়। তবে এবার তেঁতুলিয়ায় বেড়াতে এসে বেশ উপভোগ করেছি। বিশেষ করে এখানকার সমতল ভূমিতে সারি সারি চা বাগানে সবুজের সমারোহ দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। এখানটা প্রকৃতির রূপের চাদরে মোড়ানো। এছাড়া বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত ঘেঁষে বয়ে যাওয়া মহানন্দা নদীর পাড়ে এলে খুব ভালো লাগছে।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, উত্তরের সর্বশেষ উপজেলায় পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে তেঁতুলিয়াকে নতুন করে সাজানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে দৃষ্টিনন্দন লোকবাংলার সংস্কৃতির কিছু ভার্স্কয স্থাপন করা হয়ে। অপ্রতিরোধ্য জাদুঘর গড়ে তোলা হয়েছে। পর্যটনে আমাদের আরও নতুন নতুন ভাবনা আছে। ধীরে ধীরে সেগুলো বাস্তবায়ন করা হবে।

টুরিস্ট পুলিশ পঞ্চগড় জোনের অফিসার ইনচার্জ মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, এবারের ইদে আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করতে টুরিস্ট পুলিশ পঞ্চগড় জোন কাজ করছে। জেলার বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানগুলো আগত আমদের টহল অব্যহত রয়েছে। বিশেষ করে আসত পর্যটকরা যাতে হয়রানি বা ইভটিজিং এর শিকার না হয় সে জন্য সার্বিকভাবে কাজ করছে টুরিস্ট পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, পর্যটকরা যদি টুরিস্ট পুলিশের কাছে কোনো ধরনের সহযোগিতা চায় সেক্ষেত্রে টুরিস্ট পুলিশ পঞ্চগড় জোন তাদেরকে সার্বক্ষনিক সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড