• বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অবৈধ ক্লিনিক বন্ধের তৎপরতা নেই, ক্ষোভ এলাকাবাসীর

  মো. আফসার খাঁন, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)

২০ জুন ২০২২, ১৪:১৪
অবৈধ ক্লিনিক বন্ধের তৎপরতা নেই, ক্ষোভ এলাকাবাসীর
অবৈধ ক্লিনিক (ছবি : অধিকার)

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে অবৈধ ক্লিনিকগুলো বন্ধে সারা দেশে অভিযান চালালেও গাজীপুরের কালিয়াকৈরে তেমন কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। ফলে ভাড়া বাসা/মার্কেট ভাড়া নিয়ে রমরমা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন এসব অবৈধ ক্লিনিকের মালিকরা। এসব ক্লিনিকের মালিক-কর্মচারীদের রোসানলে পড়ছেন রোগীরা। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন বৈধ ক্লিনিকের মালিক, ভুক্তভোগী রোগী ও তাদের স্বজনরা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বৈধ ক্লিনিক মালিক, রোগী ও তাদের স্বজন সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আওতায় মাত্র ছয়টা ক্লিনিকের বৈধতা থাকলেও সেগুলোর প্রয়োজনীয় বেশিরভাগ কাগজপত্রের নবায়ন নেই। একবারেই নেই কয়েকটির কোন কাগজপত্র।

শুধু মাত্র ক্লিনিকের জন্য আবেদন দিয়েই চালানো হচ্ছে এসব ক্লিনিক গুলো। এছাড়া সরকারী হাসপাতালের সংশ্লিষ্টদের সাথে আতাতের মাধ্যমে চলছে প্রায় ৩০/৩২টি অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার।

এগুলোর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নাকের ডগায় মাত্র ৪০গজ সামনে রয়েছে ডিজিল্যাব ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কালিয়াকৈর বাইপাস সাহেব বাজার এলাকায় ন্যাশনাল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, বাইপাস বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দেওয়াল ডিজিটাল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, সিকদার মেডিকেল সেন্টার, ট্রাক স্ট্যান্ড এলাকায় রোমাইছা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, বাস টার্মিনালের পশ্চিম পাশে রাবেয়া ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, চান্দরা ত্রিমোড় এলাকায় এ্যাপোলো হাসপাতাল ও মুইন ডায়াগনস্টিক সেন্টার।এছাড়াও আরো রয়েছে পল্লীবিদ্যুৎ এলাকায় জীবন জেনারেল হসপিটাল, মৌচাক পপুলার ও সুফিয়া হাসপাতাল, ফুলবাড়িয়া বাজারে উকামাতু মেডিকেল সেন্টার ও মেডিট্রাস্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার। দিন দিন আরো ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে অনেক অবৈধ ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ডেন্টাল ক্লিনিক।

এসব ক্লিনিকে রক্ত, কফ, মলমূত্র, এক্স-রে, আলট্রাসনোগ্রামসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন অদক্ষ কর্মীরা। এ কারণে প্রতিনিয়ত নানা ভাবে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন রোগী ও তাদের স্বজনরা। কখনো কখনো ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। আবার কখনো কখনো নার্স দিয়ে গর্ভবর্তী মায়েদের ডেলিভারি ও অপারেশন করানোর অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও সরকারি হাসপাতালের অনেক ডাক্তার অফিস ফাঁকি দিয়ে অবৈধ ক্লিনিকগুলোতে গিয়ে রোগী দেখছেন এবং অপারেশনও করছেন। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এসকল অবৈধ ক্লিনিকের মালিক ও চিকিৎসকরা রোগী ও স্বজনদের কাছ থেকে গলাকাটা অর্থ আদায় করে নিচ্ছেন। ওই টাকার ভাগ যাচ্ছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অসাধু কর্মকর্তাদের পকেটেও। গত ২৬মে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে সারা দেশের সকল অনিবন্ধিত হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলো ৭২ঘন্টার মধ্যে বন্ধের নির্দেশনা দেওয়া হয়। এরপর সারা দেশে অভিযান চালালেও অজ্ঞাত কারণে কালিয়াকৈরে অবৈধ ক্লিনিক বন্ধে প্রশাসনের কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কালিয়াকৈরবাসী।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আল বেলাল জানান, এখানে প্রায় ৩০/৩২টি অবৈধ ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। এদের মধ্যে ৯টি বন্ধ করা হলেও আবার কিভাবে চালু হল? তা আমার জানা নেই। তবে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিষয়ে অভিযান চালিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ মুঠোফোনে বলেন, উপজেলাতে যে কয়টি অবৈধ ক্লিনিক রয়েছে সেগুলোকে অভিযান পরিচালনা করে অচিরেই বন্ধ করে দেয়া হবে।

বন্ধ করে দেয়া ক্লিনিক গুলো আবার চালো করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যদি তারা ক্লিনিক গুলো আবার চালু করে তবে পূর্নরায় আবার অভিযান পরিচালনা কর হবে।

ওডি/কেএইচআর

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড