• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

উপজেলা চেয়ারম্যানকে নিয়ে দুই নারীর ঝগড়া, হাতাহাতি

  রফিক খান, মানিকগঞ্জ

০৮ জুন ২০২২, ২০:০১
উপজেলা চেয়ারম্যানকে নিয়ে দুই নারীর ঝগড়া, হাতাহাতি
প্রতীকী ছবি

স্বামীর সাথে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে পাশের এলাকার কলেজ পড়ুয়া এক তরুণীকে নিজ বাড়িতে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ঘটিয়েছে দ্বিতীয় স্ত্রী। এই ঘটনায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে আটকে রাখে স্থানীয় লোকজন।

পরে পারিবারিক অভিভাবক এবং পুলিশি সহযোগিতায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে এলাকায় চলছে তুমুল সমালোচনা। কারণ যাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মাঝে ঝগড়া, হাতাহাতি সেই ব্যক্তি জনগণের ভোটে নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান!

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার চালা ইউনিয়নের দিয়াবাড়ী (সাটিনাদা) এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ইউপি (ইউনিয়ন পরিষদ) চেয়ারম্যান কাজী মজিদ এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গত ৫ তারিখ বিকেলে আমার ইউনিয়নের একটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ উপস্থিত হয়ে আমাকে ফোনে জানালে আমি ঘটনাস্থলে যাই।

তিনি আরও জানান, সুমাইয়া (ছদ্মনাম) নামের লেছড়াগঞ্জ এলাকার একজন নারী সেই জনপ্রতিনিধির স্ত্রী দাবি করে এবং তার স্বামীর সাথে রিয়া আক্তারের (ছদ্মনাম) সাথে অনৈতিক সম্পর্কের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ বাড়িতে আসেন। এক পর্যায়ে দুই নারীর ভেতরে তুমুল কথা কাটাকাটি এবং বাকবিতন্ডা হয়। আশেপাশের লোকজন জড়ো হলে জনপ্রতিনিধির দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করা সুমাইয়াকে আটকে রাখে এবং পরিবারে খবর দেওয়া হয়। পরিবারের লোকজন পুলিশে জানালে ঘটনাস্থল থেকে সুমাইয়াকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনার পর খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুমি আক্তারের বাড়িতে মাঝে মধ্যেই উপজেলা চেয়ারম্যান দেওয়ান সাইদুরের আসা-যাওয়া ছিল। দীর্ঘদিন ধরেই মহল্লার লোকজনের কাছে এ বিষয়টি কানাঘোষা হচ্ছিল। তবে জনপ্রতিনিধি হওয়ায় কেউ এই বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করেনি। মেয়েটির পরিবার বিষয়টি জানতো বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

কলেজছাত্রীর বাড়িতে হওয়া ঘটনার দিন উপস্থিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন, জনপ্রতিনিধির দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করা সেই নারীর অভিযোগ তার স্বামীর সাথে কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীর প্রেম এবং অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর ভেতরে তৈরি হয়েছে দ্বন্দ্বের। একাধিকবার না করা সত্ত্বেও কলেজছাত্রী তার স্বামীর সাথে সম্পর্ক ধরে রেখেছে।

তবে সেই জনপ্রতিনিধির দ্বিতীয় স্ত্রী রয়েছে বিষয়টি এলাকাতে প্রতিষ্ঠিত নয়। এ বিষয়ে স্থানীয়রা তাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি নিশ্চিত করেন সেই জনপ্রতিনিধির সাথে তার বছরখানেক আগে বিয়ে হয়েছে এবং কাবিননামাও সঙ্গে আছে।

ঘটনার পরদিন রাতে সেই জনপ্রতিনিধি কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীর বাড়িতে আসেন এবং খোঁজখবর নেন। এ বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে আসে। শুরু হয় বাড়তি সমালোচনা।

এ বিষয়ে কলেজছাত্রীর সাথে যোগাযোগ হলে তিনি বলেন, আমার বাড়ির উপর এসেছে খারাপ ব্যবহার করেছে এ জন্যই তাকে আটকে রাখা হয়েছিল। সে কোন জনপ্রতিনিধিদের স্ত্রী তা আমার জানা নেই। এর আগে তাকে আমি দেখিনি তবে, বছর খানেক আগে আমার ছবি ব্যবহার করে তার আইডি থেকে অরুচিকর মন্তব্য লিখে পোস্ট করা হয়। বিষয়টি আমার নজরে আসলে তার সাথে আমার যোগাযোগ হয়। আমার ছবি কেন ব্যবহার করলেন জানতে চাইলে একপর্যায়ে সে আমাকে গালমন্দ করে।

আপনার ছবি ব্যবহার করে কেন অন্য কেউ কুরুচিকর মন্তব্য করবেন বা বাড়িতে এসে কেনইবা আপনাকে লাঞ্ছিত করবে এমন প্রশ্ন জানতে চাই কলেজছাত্রী কোনো উত্তর দিতে পারেননি।

ছবি ব্যবহার করে কুরুচিকর মন্তব্য করায় কেন আইনি পদক্ষেপ নেননি এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি একজন নারী । এ বিষয়ে যদি আমি আইন-আদালত করি তাহলে আমার সম্মান যাবে এই ভয়ে কোনো আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করা নারীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এটা একান্তই আমার ব্যক্তিগত বিষয়। এ বিষয়ে আমি কথা বলতে রাজি নই।

জনপ্রতিনিধির সাথে সম্পর্কের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার সাথে পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে। ব্যক্তিগত কোন সম্পর্ক নাই। আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

এ বিষয়ে হরিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘এ বিষয়ে আমার জানা নেই। আমার থানার কোন পুলিশ সেই ঘটনাস্থলে গিয়েছিল কিনা তা আমি জানি না।

আরও পড়ুন: অভিনব কায়দায় গরু চুরির চেষ্টা!

এ বিষয়ে হরিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান দেওয়ান সাইদুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা এবং ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েও মন্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

ওডি/এমকেএইচ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড