• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ধান কাটায় বাধা দিয়ে প্রতিপক্ষের আঘাতে কৃষক জখম

  আল মামুন, জয়পুরহাট

২৪ মে ২০২২, ১২:৩৯
ধান কাটায় বাধা দিয়ে প্রতিপক্ষের আঘাতে কৃষক জখম
প্রতিপক্ষের আঘাতে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত কৃষক (ছবি : অধিকার)

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার সিলিমপুর গ্রামে বিবাদমান জমির ধান কাটাকে কেন্দ্র জোবায়ের নামে এক কৃষককে পিটিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষ। আহত কৃষককে প্রথমে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় পরবর্তীকালে রোগীকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

গুরুতর আহত জোবায়ের হোসেন জানান, গত রবিবার (২২ মে) সকালে আমি জানতে পারি আমার লাগানো ধানগুলো নজরুলের ছেলে মেহেদী, হাসেমের ছেলে তোতা ও মামুনের ছেলে রাহি কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এ সময় আমি সেখানে গিয়ে তাদের ওই জমির ধান কাটতে বাধা দিলে তারা আমাকে বেধড়ক মারধর করে। এমন অবস্থায় আমি অজ্ঞান হয়ে মাটিয়ে পরে যাই; তারপর আমি আর কিছুই বলতে পারি না।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিতে সরেজমিনে গিয়ে প্রত্যক্ষদর্শী শালগুন উত্তরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ফরেজা বেগমের সঙ্গে কথা হয়। তিনি জানান, জোবায়েরদের ধান প্রতিপক্ষরা কেটে নিয়ে যাচ্ছে, এমন খবর পেয়ে জোবায়ের সেখানে গিয়ে তাদের নিষেধ করলে প্রতিপক্ষ সিলিমপুর গ্রামের নুরুলের হোসেনের ছেলে মেহেদী, হাসমতুল্লাহর ছেলে তোতা, হামিদুর রহমানসহ তিনজন মিলে জোবায়েরকে এলোপাতারি মারধোর করতে থাকে।

তিনি বলেছেন, এ সময় আমি ঘটনাটি দেখতে পেয়ে চিৎকার করতে লাগলে এলাকার মানুষ এগিয়ে আসেন। লোকজনকে আসতে দেখে তখন তারা জোবায়েরকে রেখে পালিয়ে যায়। পরে তার পরিবারের মানুষকে খবর দিলে তারা এসে জোবায়েরকে নিয়ে হাসপাতালে যায়।

ঘটনার আরেক প্রত্যক্ষদর্শী মাসুদ রানা ও মহির উদ্দিন বলেন, আমরা জমির ধান দেখার জন্য মাঠে যেতেই দেখি কয়েকজন মিলে জোবায়েরকে মারছে। আমরা কিছুই না বুঝে তাদেরকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করি এবং চিৎকার করে আরও মানুষকে ডাকি। আমরা না এগিয়ে আসলে হয়তবা তারা তাকে মেরেই ফেলত। পরে লোকজনকে দেখে তারা পালিয়ে যায় এরপর আমরা জোবায়েরের পরিবারকে খবর দেই।

আরও পড়ুন : ইউটিউব দেখে বোমা বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণ

মাত্রায় ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য গোলাম রসুল বলেন, আমি ঘটনাটি থানার ওসির মাধ্যমে জানতে পারি। কালাই থানার অফিসার ইনচার্জ আমাকে ফোন দিয়ে ওই বিবাদমান জমির ধানগুলো কেটে বিক্রি করে দিতে বলেছেন। এরপর সেই টাকাগুলো তার হাতে দেওয়ার কথাও ওসি আমাকে বলেছেন। আর তাই আমি ধানগুলো মাড়াই করে বিক্রির কাজ করছি।

ঘটনার সত্যতা সম্পর্কে প্রতিপক্ষের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, তারা আদালতের রায় পেয়েছেন। তাই তারা সেই জমির ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছেন।

তারা বলেন, আমরা জোবায়েরকে মারপিট করিনি, প্রশাসন তদন্ত করে দেখুক কে মেরেছে।

এ বিষয়ে কালাই থানার অফিসার ইনচার্জ মঈনউদ্দীন বলেন, আমরা ত্রিপল নাইনের ফোন পেয়ে জানতে পারি যে কে বা কারা জমির ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি জানার পরপরই আমি আমার ফোর্সকে ঘটনাস্থলে পাঠাই। পুলিশ গিয়ে ঘটনার সত্যতা জেনে আসে। এরপর আমি জমির ধানগুলো স্থানীয় ইউপি সদস্যের হেফাজতে রাখার কথা বলেছি। পরে মীমাংসার মাধ্যমে যার জমি তাকে ধান দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন : ছয় বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস

তবে মারামারির বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করব বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ওডি/কেএইচআর

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড