• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ক্রেতা নেই তরমুজের

  নেহাল আহম্মেদ প্রান্ত, আদমদীঘি (বগুড়া)

১৯ মে ২০২২, ১৪:১৬
ছবি : দৈনিক অধিকার

সদ্য শেষ হওয়া রমজান মাসে সারা দেশের ন্যায় বগুড়ার সান্তাহারেও তরমুজের দাম ছিল চড়া। নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যবিত্তরাও তরমুজ কেনা থেকে দূরে ছিলেন। কম দামে তরমুজ ছাড়েননি ব্যবসায়ীরাও। তবে মাত্র ২০ দিনের ব্যবধানে সেই তরমুজ এখন ব্যবসায়ীদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

জানা গেছে, রমজানের প্রথম দিকে সান্তাহারে তরমুজ ব্যবসায়ীরা ৪০-৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছিলেন। পুরো রমজানেই ৩০০ টাকার তরমুজ প্রায় ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। এখন ১০০ টাকা দিয়েও তরমুজ কিনছেন না সাধারণ ক্রেতারা।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার (১৯ মে) সান্তাহার রেলগেট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা তরমুজের পসরা সাজিয়ে বসে আছেন। তবে কিনছেন না ক্রেতারা। এতে লোকসানের মুখে পড়েছেন তারা। রেলগেট এলাকার বিভিন্ন দোকানে লাখ লাখ টাকার তরমুজ নষ্ট হওয়ার পথে রয়েছে। অনেক তরমুজে পচন ধরতে শুরু করেছে। আবার নষ্ট হওয়া তরমুজ নিয়েও বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। কেউ কেউ এসব তরমুজ খাওয়াচ্ছে গবাদিপশুদের। আবার কেউ কেউ ফেলে দিচ্ছেন।

কী কারণে তরমুজের দাম এত কমে গেল তা সুনির্দিষ্ট করে কেউ বলতে পারছেন না। তবে বিরূপ আবহাওয়া অর্থাৎ টানা বৃষ্টিপাত, সঠিক বিপণন ব্যবস্থার অভাব এবং একটু দেরিতে তরমুজ তোলার কারণে চাহিদা কমেছে বলে মনে করছেন অনেকে।

পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান রোজার সময় প্রচণ্ড গরম থাকায় মানুষের মধ্যে তরমুজ কেনার চাহিদা অনেক বেশি ছিল। কিন্তু ইদের দিন থেকে বেশ কিছুদিন টানা বৃষ্টির কারণে গরম কমে যায়। প্রকৃতিতে স্বাভাবিক আবহাওয়া বিরাজ করায় কিছুটা তরমুজের চাহিদা কমে।

সান্তাহার রেলগেট এলাকার তরমুজ ব্যবসায়ী রাঙ্গা খান দাম কমার বিষয়ে বলেন, এখন বাজারে মৌসুমি ফল লিচু এবং আম ওঠা শুরু হয়েছে। এখন অন্যান্য ফলের সরবরাহ বেশি থাকায় তরমুজের দাম ও চাহিদা দুটোই নেই বললেই চলে।

আরেক তরমুজ ব্যবসায়ী এরশাদ আলী বলেন, এসব তরমুজ দেড় থেকে দুই সপ্তাহ আগেই বাজারে বিক্রি হতো ৩৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে। তবে যোগান বাড়ায় এবং বৃষ্টির কারণে পচনের ভয়ে এসব অল্প দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। অন্যথায় লাভ তো দূরের কথা, ব্যবসার আসল টাকা তোলাই কঠিন হয়ে যাবে।

সান্তাহারে কয়েকটি দোকানে তরমুজের বর্তমান দাম জানতে গিয়ে দেখা গেছে, কালো বা জাপানি, বাংলালিংক জাতের বড় তরমুজগুলো ওজন ভেদে বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকায়। এমনকি সান্তাহারের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় ভ্যানে করে মাইকিং করে ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করছেন অনেক খুচরা বিক্রেতা।

ওডি/মাহমুদ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড