• বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রংপুরে আবারও ঊর্ধ্বমুখী নিত্যপণ্যের দাম 

  মাহফুজ আলম প্রিন্স, রংপুর

১৩ মে ২০২২, ১৪:৩২
রংপুরে আবারও ঊর্ধ্বমুখী নিত্যপণ্যের দাম 
রংপুরের কাঁচা বাজার (ছবি : অধিকার)

রংপুরের বাজারে দাম বেড়েছে ডিম, সবজি, পেঁয়াজ ও মুরগির। এছাড়া অপরিবর্তিত রয়েছে অন্যান্য পণ্যের দাম।

শুক্রবার (১৩ মে) সকালে নগরীর সিটি বাজার, সাতমাথা বাজার, কামাল কাছনা বাজার, সিও বাজার ছাড়াও শাপলা, টার্মিনাল কাঁচা বাজার এলাকা ঘুরে এসব চিত্র উঠে এসেছে।

এসব বাজারে চায়না রসুন প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১১০টাকা। দেশি রসুন ৫০ টাকা। দেশি আদা ৮০ টাকা। চায়না আদার দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে।

প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকায়। এছাড়া প্যাকেটজাত চিনির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮৫ থেকে ৯০ টাকায়। দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়।

রংপুরের বাজারে বেড়েছে ডিমের দাম। লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা। হাঁসের ডিমের ডজন ১৫০ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়।

ডিম বিক্রেতা জাকির হোসেন বলেন, গত তিন দিনের বৃষ্টির কারণে ডিমের দাম বেড়েছে। ইদের পরে বাজারে ডিমের চাহিদা বেড়েছে। ডিমের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গে দামও বেড়েছে।

বাজারে গরুর মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকায়। খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ টাকায়।

সিটি বাজারের সবজি বিক্রেতা আবুল হোসেন বলেন, বাজারে ইদের পরে সবজির চাহিদা বেড়েছে। রোজায় ক্রেতারা সবজি কম খেয়েছে। ক্রেতাদের চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজির দামও বেড়েছে। দাম বাড়ার কারণ হচ্ছে গত কয়দিনের বৃষ্টি।

এসব বাজারে কাঁচামরিচ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা। কাঁচা কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকায়। এসব বাজারে প্রতিকেজি শসা বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, করলা ৭০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, মুলা ৩০ টাকা, কচুর লতি ৬০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, ধুন্দল ৫০ টাকা, মটরশুঁটি ১০০ টাকা, চাল কুমড়া প্রতিপিস ৩০ টাকা, প্রতিপিস লাউ আকারভেদে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

টার্মিনাল বাজারের পেঁয়াজ বিক্রেতা হারুন মিয়া বলেন, মূলত আমদানি বন্ধ থাকায় পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে। এছাড়া দাম বাড়ার আরেকটি কারণ হচ্ছে গত কয়দিনের বৃষ্টি।

বাজারে আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে আলু। আলু প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকা। কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। ৩৫ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি দরে। আর একটু ভালো মানের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজি দরে।

এসব বাজারে বেড়েছে মুরগির দাম। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা। সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩১০ টাকা। লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৬০ থেকে ২৭০ টাকায়।

সিও বাজারের মুরগি বিক্রেতা কোরবান আলী লিটন বলেন, মুরগির খাবারের দাম বাড়ায় খামারিরা দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। দাম বাড়ার আরেকটি কারণ হচ্ছে গত তিন-চার দিনের বৃষ্টি। এছাড়া রয়েছে সিন্ডিকেটের প্রভাব।

ওডি/ইমা

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড