• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

গোদাগাড়ীর সহকারী কমিশনারের অপসারণ চান কলেজ শিক্ষক

  রাফিকুর রহমান লালু, রাজশাহী

০৭ মে ২০২২, ২২:০২
অধ্যাপক ফজিলাতুন নেছা
সম্মেলনে কথা বলছেন সহকারী অধ্যাপক ফজিলাতুন নেছা। (ছবি : অধিকার)

রাজশাহীর গোদাগাড়ীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাছমিনা খাতুন ও সার্ভেয়ার মোক্তারুজ্জামানের অনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধসহ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন গোদাগাড়ী মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক ফজিলাতুন নেছা।

শনিবার (৭ মে) দুপুর ৩টায় রাজশাহী মডেল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ওই শিক্ষক।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অধ্যাপক ফজিলাতুন নেছা বলেন, গোদাগাড়ী উপজেলার রামনগর মৌজার জেএল দাগ নং ১৯, আর এস ২০৭, জমির পরিমাণ ০.২৭ উল্লেখিত জমি আমার মায়ের ক্রয়কৃত। সেই জমির সকল বৈধতা দেখে জেনে খারিজ হয়। ১৪২৮ সাল পর্যন্ত খাজনা গ্রহণ করেন ভূমি অফিস।

তিনি বলেন, উল্লেখিত জায়গার উপর একটি কু-চক্রী মহলের নজর পড়ে। সেই কু-চক্রী মহল গোদাগাড়ীর সহকারী কমিশনার ভূমির সাথে আঁতাত করে সেই জমি নিজেদের দাবি করে একটি নাটকীয় আবেদনের মাধ্যমে গত ২০/৪/২০২২ তারিখে একটি মনগড়া প্রতিবেদন দাখিল করে। সেই প্রতিবেদনে তিনি স্পষ্ট ভাবে কিছু উল্লেখ করতে পারেনি। তিনি বৈধ দলীল ও কাগজের নাম মাত্র অজুহাত দেখিয়ে অপর পক্ষের নিকট থেকে ১৫ লক্ষ টাকা গ্রহণ করে তাদের পক্ষে রায় প্রদান করেন। তার এমন বিষয় নিয়ে আমার পুরো পরিবার চিন্তিত হয়ে পড়ি।

তিনি আরও বলেন, আমার মায়ের ক্রয়কৃত জায়গাটি ভাগ বাটোয়ারায় আমার ভাগে পড়ার কারণে বিষয়টি নিয়ে আমি ও আমার স্বামী বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে জানতে পারি, এই জমি দখল নিতে মাদক কারবারি চক্র জড়িত। কালো অর্থে সজ্জিতদের সাথে হাত মিলিয়ে আমার পরিবারকে হয়রানি ক০রা হচ্ছে।

অধ্যাপক ফজিলাতুন নেছা বলেন, গোদাগাড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আমার বৈধ কাগজ দলীল থাকার পরেও তিনি কিভাবে এমন নাটকীয় ঘটনার জন্ম দিলেন সেটি আমি স্পষ্ট নয়। আমি একজন শিক্ষিকা হয়ে সত্য উদঘাটন নিয়ে আজ অসহায়ত্ব বোধ করছি। আজ মাদক সম্রাট, ভূমি দস্যু আর স্বার্থ লোভী সহকারী কমিশনার ভূমির রোষানলে পড়ে নিজের বৈধ জায়গা নিয়ে বিপাকে পড়েছি। গোদাগাড়ী ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মোক্তারুজ্জামানের বিরুদ্ধে পূর্বেও নানা অভিযোগ রয়েছে। সিরাজগঞ্জের এই চতুর ব্যক্তির বিরুদ্ধে গোদাগাড়ী উপজেলার মাদার পুরের জৈনক ব্যক্তির ২য় স্ত্রীর সাথে নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ রয়েছে। পূর্বে সরকারি পুকুর অবৈধ ভাবে দেওয়ার চেষ্টা এই নিয়ে আদালতে মামলা সহ নানা অভিযোগ রয়েছে এই ভূমি অফিসের বিরুদ্ধে।

কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হয়েও অপরাধীদের রোষানলে পড়ে নিজের জমি হারাতে বসেছি। ভূমি সহকারী কর্মকর্তার অনৈতিক ফাঁদে পড়ে সঠিক সমাধানের দিন গুনছি। ভূমি সহকারী কর্মকর্তার অপসারণসহ তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি।

ওডি/জেআই

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড