• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাংলাবাজার ঘাটে ঢাকাগামী যাত্রীর ঢল

  এস. এম. রাসেল, মাদারীপুর

০৭ মে ২০২২, ১৮:৫১
বাংলাবাজার ঘাটে যাত্রীর ঢল
বাংলাবাজার ঘাটে যাত্রীর ঢল। (ছবি : সংগৃহীত)

ইদের ছুটি শেষে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের জেলাগুলোতে ফিরতে শুরু করেছেন দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কর্মজীবী মানুষ। মাদারীপুর জেলার শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ গত কয়েকদিনের তুলনায় বেশি দেখা গেছে।

শনিবার (৭ মে) সকাল থেকেই বাংলাবাজার ঘাট এলাকায় ঢাকামুখী যাত্রীদের ঢল নামে।

ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বাংলাবাজার ঘাট থেকে শিমুলিয়াগামী প্রতিটি ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোটই ছিল যাত্রীতে পরিপূর্ণ। অল্প সংখ্যক ফেরি চলাচল করায় ঘাট এলাকায় পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে অসংখ্য যানবাহন। এদিকে দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো থেকে আসা যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন যাত্রীরা। যাত্রী নিয়ন্ত্রণে একাধিক সংস্থাকে কাজ করতে দেখা গেছে।

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ৫টি ফেরি দিয়ে ২৪ ঘণ্টা যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে বলে জানান বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন। অন্যদিকে যাত্রীদের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে নৌরুটে ৮৭টি লঞ্চ ও দেড় শতাধিক স্পিডবোট রয়েছে।

অল্প সংখ্যক ফেরি চলাচল করায় ঘাট এলাকায় পারাপারের অপেক্ষায় যানবাহনের দীর্ঘ লাইন তৈরি হয়েছে। এ এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব, ফায়ার সার্ভিসসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করছেন।

বাংলাবাজার ঘাটের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, ইদ শেষে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করেছে। ফলে বাংলাবাজার ঘাটে রয়েছে ঢাকামুখী যাত্রী ও যানবাহনের চাপ। কর্মস্থলে যোগ দিতে মানুষ ব্যক্তিগত যানবাহনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে পদ্মা পাড়ি দিয়ে ঢাকার দিকে ছুটছেন। বেশি চাপ পড়েছে লঞ্চ ও স্পিডবোটে।

বাংলাবাজার লঞ্চ ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ঘাট থেকে শিমুলিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি লঞ্চ ও স্পিডবোট যাত্রীতে পরিপূর্ণ। লোডমার্ক অনুযায়ী লঞ্চগুলো যাত্রী পারাপার করছে। এ রুটে ৫টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করছে বিআইডব্লিউটিএ। ফেরিগুলোতে সাধারণ যাত্রী, অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি যানবাহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে। তবে সীমিত সংখ্যক ফেরি চলাচল করায় ঘাট এলাকায় যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। তীব্র গরমে দীর্ঘসময় ঘাটে আটকে থেকে নারী, শিশুসহ যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

ঘাট এলাকায় কথা হয় বরিশাল থেকে আসা যাত্রী নিজাম মাতব্বরের সঙ্গে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘বাইকের ভাড়া অন্য সময় ৭০ টাকা নেওয়া হয়, অথচ এখন নেওয়া হচ্ছে ১০০ টাকা। কিন্তু রিসিটে ৭০ টাকাই লেখা হচ্ছে। যাই হোক, টাকা বে‌শি নি‌লেও সমস‌্যা নেই। তাও য‌দি ফেরি পাই।’

মাদারীপুরের মস্তফাপুর থে‌কে আসা যাত্রী রুনা খান ব‌লেন, ‘অনেক গরম আর জ্যাম। তারপরও এভাবেই যেতে হবে। কারণ কাল থেকে অফিস শুরু।’

লঞ্চ ঘাটে খুলনা থে‌কে আসা যাত্রী মোশারফ হোসেন ব‌লেন, ‘দাঁড়ানোর জায়গা নেই। মনে হয় ঠেসেঠুসে যাত্রী তুলছে। ঘাটের দায়িত্বে যারা আছে, তারা কিছুই করে না। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে খালি বাঁশি ফুঁ দেয়। আমরা লঞ্চ মালিকদের কাছে জিম্মি হয়ে গেছি। এখন ভালোয় ভালোয় ঢাকা যেতে পারলেই হলো।’

বিআইডব্লিউটি এর বাংলাবাজার লঞ্চ ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন বলেন, ‘প্রতিবারই ইদ শেষে ফেরার পথে যাত্রীদের চাপ একটু বেশি থাকে। এবারও যাত্রী চাপ রয়েছে। শনিবার ভোর থেকেই এ অঞ্চলে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় রয়েছে। ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী বহন করতে দেওয়া হচ্ছে না। অনেক সময় যাত্রীরা তাড়াহুড়ো করে ওঠেন, তখন আর তেমন কিছু করার থাকে না। তাও চেষ্টা করছি নিয়ম মেনেই যাত্রী পারাপার করার।’

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘এ রুটে ৫টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও জরুরি গাড়ি পার করা হচ্ছে। কিছু গাড়ি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রতিটি ফেরিতেই ব্যাপক চাপ। আমরা সিরিয়াল অনুযায়ী সব গাড়ি পার করছি। বাইকের জন্য পৃথক ঘাট করা হয়েছে।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রা‌সেল জানান, বাংলাবাজার ঘাঁটে মাত্র পাঁচটি ফেরি চলাচল করছে। তাই যাত্রী‌দের সামাল দি‌তে একটু কষ্ট হচ্ছে। ত‌বে ঘাঁটে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এখনো ঘটেনি।

ভাড়া বেশি আদায়ের অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘ঘাঁটে বে‌শি ভাড়া কেউ নি‌লে পু‌লিশ‌কে জানান। আমরা ব্যবস্থা নেব।’

ওডি/জেআই

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: inbox.odhi[email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড