• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিষণ্ণ মুখ নিয়ে ইদ করলেন বৃদ্ধাশ্রমের ২৭ বোর্ডার

কোনোকিছুর কমতি নেই, এরপরও চোখে-মুখে বিষণ্ণতার ছাপ

  আবিদ মাহমুদ, রাউজান (চট্টগ্রাম)

০৬ মে ২০২২, ১২:৫৮
কোনোকিছুর কমতি নেই, এরপরও চোখে-মুখে বিষণ্ণতার ছাপ
বিষণ্ণ মুখ নিয়ে বসে আছেন বৃদ্ধাশ্রমের নারী বোর্ডাররা (ছবি : অধিকার)

'ইদ মানে আনন্দ, ইদ মানে খুশি। কিন্তু সন্তান বা প্রিয়জন ছাড়া এই ইদ যে কতটা বেদনাদায়ক তা ভাষায় বুঝানো অসম্ভব। ঘর, বাড়ি, সন্তান সবিই আছে, শুধু তাদের মনে মায়া, মমতা, ভালোবাসা বলতে কিছুই নেই। তাই আজ আমি ভালোবাসায় ভরা রাজমহলের (বৃদ্ধাশ্রম) বাসিন্দা। এবারের ইদ আনন্দ নিয়ে এভাবেই বলছিলেন রাউজানের ‘আমেনা-বশর বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্রে’ অবস্থানরত কুমিল্লার বাসিন্দা ষাটোর্ধ এক ছেলে দুই মেয়ের জনক মোমীন।

তিনি বলেন, এই রাজমহলে খাবার, পোশাক, মায়া মমতা, ভালোবাসা, উৎসব সবিই আছে। তবুও প্রিয় সন্তান, আপনজনদের অবহেলা আর তাদের কাছ থেকে দূরে থাকার যন্ত্রণা আমাকে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে। সন্তানরা যখন ছোট ছিল তখন তাদের পাশে থেকে বড় হওয়ার সাহস যুগিয়েছিলাম। আজ সেই সন্তানরা বড় হয়ে আমাকে ছাড়া ইদ আনন্দ করছে। তবুও তাদের জন্য দোয়া করি।

কেমন কেটেছে অবহেলিত বাবা-মাদের ইদ? এবার সেসব খবর নিতে গেলে নিজেদের বেদনা মাখা ইদের গল্প শোনান বৃদ্ধাশ্রমটির বোর্ডাররা।

জানা যায়, ছেলে-মেয়ে, আপনজনের অবহেলিত কিংবা নিঃসন্তান বাবা-মায়েদের মধ্যে ২৭ জনের ঠিকানা হয়েছে চট্টগ্রামে রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়ায় চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের পাশে অবস্থিত ‘আমেনা-বশর বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্রে’। এর মধ্যে ১৩ জন নারী, আর বাকিরা পুরুষ।

তারা বলেন, ইদের জন্য নতুন কাপড়সহ আনুষঙ্গিক নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী। মজার খাবারসহ কোনো কিছুর ঘাটতি ছিল না। তবে প্রিয়জন কিংবা রক্তের সম্পর্কের মানুষগুলো ছাড়া আমাদের অশ্রুসিক্ত ইদ আনন্দ কেটেছে এই বৃদ্ধাশ্রমে।

‘আমেনা বশর’ বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক মো. ফারুক বলেন, একটি পরিবার যেভাবে ইদের আয়োজন করে থাকে আমরাও সেভাবেই ইদের আয়োজন করেছি। চেষ্টা ছিল- অবহেলিত মানুষগুলোর মুখে হাসি ফোটানোর। কোনোকিছুর কমতি ছিল না, এরপরও তাদের চোখে মুখে ছিল বিষণ্ণতার ছাপ। আমরা সব কিছু দিতে পারলেও তাদের বুকের ধন সন্তানদের এনে দিতে পারছি না।

আরও পড়ুন : ঝকঝকে রেলওয়ে স্টেশন দেখে অবাক যাত্রীরা

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১ মে দক্ষিণ রাউজানের নোয়াপাড়ায় চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক সংলগ্ন বিশাল এলাকাজুড়ে ‘আমেনা-বশর বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্রে’র যাত্রা শুরু হয়েছিল। ব্যবসায়ী মো. শামসুল আলম নিজের মা-বাবার নামে বৃদ্ধাশ্রমটির প্রতিষ্ঠা করেন।

ওডি/কেএইচআর

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড