• মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাঁশখালীতে বোরো চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা

  শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম)

০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৬:৪২
বাঁশখালীতে বোরো চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা
বোরো চাষে ব্যস্ত কৃষকরা। ছবি : অধিকার

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় বোরো চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এখন পুরোদমে চলছে বোরো চাষের মহোৎসব। কেউ বীজতলা থেকে ধানের চারা তুলছেন, কেউবা আবার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতায় ব্যস্ত রয়েছেন। এবারের মৌসুমে আবহাওয়া ভালো থাকলে ধানের বাম্পার ফলনের আশা করছেন স্থানীয় কৃষকরা।

তবে, সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃষকদের কাছ থেকে ছড়ার পানির জন্য অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বাঁশখালী উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এবারের বোরো মৌসুমে বাঁশখালী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ১০ হাজার হেক্টরের কিছু বেশি জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বীজতলার হিসাব এবং মাঠ হিসাব অনুযায়ী ১১ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হচ্ছে। এবার ১০ হাজার ৩০০ জন কৃষককে বোরো ধানের উফসী ও হাইব্রিড বীজ দেওয়া হয়েছে। উফসী বীজের সাথে সারও দেওয়া হয়েছে বোরোচাষিদের মাঝে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বাড়ি সংলগ্ন ভিটায় ধানের চারা তুলছেন কৃষাণী ও পরিবারের শিশু-কিশোররা। পুরুষরা ঝুড়ি কাঁধে করে ধানের চারা নিয়ে যাচ্ছেন মাঠে। কেউ চাষ দেওয়া জমির ঘাস পরিষ্কার করছেন। ঘাস পরিষ্কার শেষে সারিতে লাগানো হচ্ছে ধানের চারা।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও উপজেলার পুঁইছড়ি, চাম্বল, শীলকপ, বৈলছড়ী, কালীপুর, সাধনপুর, পুকুরিয়া, বাহারছড়া, খানখানাবাদ, কাথারিয়া, ছনুয়া, শেখেরখীল, গন্ডামারা, সরল ও জলদী এলাকায় বোরো চাষাবাদ শুরু করেছে কৃষকরা। কোনো কোনো ইউনিয়নে দো-ফসলি জমির ওপর বোরো চাষাবাদ হয়েছে।

আবার লবণসহিষ্ণু এলাকায়ও ব্যাপক হারে বোরো চাষাবাদ করা হয়েছে। চম্বল, জলদী, বৈলছড়ী, সাধনপুর, পুঁইছড়ি, নাপোড়া, কালীপুর ও শীলকূপের আশপাশের ছড়ার পানি দিয়ে ব্যাপকভাবে এলাকায় কৃষকরা বোরো চাষাবাদ শুরু করেছে।

সরকারিভাবে কৃষি অফিস থেকে বিদ্যুৎচালিত মিটার ও ডিজেল ব্যবহার করে গভীর ও অগভীর নলকুপের পানি ব্যবহার করা হয়। প্রধান সড়কের পূর্ব ও পশ্চিম পার্শ্বে বিদ্যুৎচালিত সেচ যন্ত্র ব্যবহারকারীদের কৃষি জমিতে পানি সেচের মূল্য তালিকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

এ দিকে কৃষি অফিসের দেওয়া পানির মূল্য তালিকা উপেক্ষা করে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃষকদের কাছ থেকে ছড়ার পানির জন্য অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি নিয়ম উপেক্ষা করে বিদ্যুৎ ও ডিজেল চালিত নলকূপের মালিকরা কৃষকদের কাছ থেকে জোরপূর্বক অধিক টাকা আদায় করে নিচ্ছে। কোনো কোনো জায়গায় নলকূপের মালিকরা কৃষকদের জমি নিয়ে নিজেরাই জমি চাষাবাদ করছে এ অভিযোগও রয়েছে।

বামের ছড়া ও ডানের ছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক জয়নুল আবেদিন রিপন বলেন- শিলকূপ-জলদী-চম্বল এলাকায় ইকোপার্কের বামের ছড়া ও ডানের ছড়ার পানির ওপর অধিকাংশ কৃষক নির্ভরশীল। সরকারিভাবে নির্ধারিত কানি প্রতি পানির মূল্য ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে, সাধারণ কৃষক ছড়ার পানি বিক্রির ব্যাপারে বিভিন্নজনের কাছ থেকে বিভিন্ন ধরনের মূল্য আদায় করার অভিযোগের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- বিভিন্ন এলাকায় সমিতির উদ্যোগে বাঁধ নির্মাণ করে পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে বাঁধ নির্মাণে যে পরিমাণ অর্থ খরচ হয়েছে এবং নির্ধারিত চাষযোগ্য জমির ওপর ভিত্তি করে কানি প্রতি ১ থেকে দেড় হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এতে অনিয়মের কিছুই নেই। এর পরেও অনিয়মের কোনো অভিযোগ আসলে তা আমরা সমিতির মাধ্যমে সঠিক ব্যবস্থা নিব।

বাঁশখালী উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আবু সালেক জানান, উপজেলার কৃষকরা এখন বোরো ধান চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন মাঠে। এবারের মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ধান চাষ করে কৃষকেরা লাভবান হতে পারব বলে আশা করছি। এবার ধানে লাভ পেলে আগামীতে আরও বেশি জমিতে ধান চাষ করার আগ্রহ পাবে কৃষকরা।

আরও পড়ুন : বিদ্যুতের খুঁটি রেখেই সড়ক নির্মাণ, দুর্ঘটনার শঙ্কা

কৃষি অফিসার জানান, এবার চলতি বোরো মৌসুমে ১০ হাজার ৩০০ জন কৃষককে বোরো ধানের উফসী ও হাইব্রিড বীজ দেওয়া হয়েছে। উফসী বীজের সাথে সারও দেওয়া হয়েছে বোরো চাষিদের মাঝে। মাঠ পর্যায়ে আমাদের সার্বক্ষণিক তদারকি ও পরামর্শ অব্যাহত রয়েছে।

ওডি/ওএইচ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড