• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

তেঁতুলিয়ায় বানিজ্যভাবে টিউলিপ ফুলের চাষ শুরু

  এম মোবারক হোসাইন, পঞ্চগড়

২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৪:১৭
তেঁতুলিয়ায় বানিজ্যভাবে টিউলিপ ফুলের চাষ শুরু
টিউলিপ ফুল । ছবি : অধিকার

দেশের সর্বোত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে শীতের একটা দীর্ঘ সময় পঞ্চগড়ে বরাবরই তাপমাত্রা কম থাকে। এখানে প্রচুর শীত কালীন বিভিন্ন শাকসবজি চাষ হয়ে থাকে। তবে শীতের দেশের ফুল হিসেবে পরিচিত টিউলিপ এবার তেঁতুলিয়ায় চাষ শুরু হয়েছে।

জানা গেছে, আরএমপিটি'র আওতায় দেশের উত্তরাঞ্চলে টিউলিপ চাষ সম্প্রসারণ উপ-প্রকল্প বিষয়ে সহযোগিতা করেছেন পল্লী কর্ম-বিষয়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ও বাস্তবায়নে ইকো-সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ড অর্গানাইজেশন(ইউএস ডিও)।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পঞ্চগড়ের জেলা সদর হতে ৪০ কিলোমিটার উত্তরের উপজেলা তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়নের দর্জিপাড়া, শারিয়ালজোত গ্রামে ৮ জন মহিলা এ ফুলের চাষ শুরু হয়েছে। গত পহেলা জানুয়ারিতে উপজেলার দর্জিপাড়া এবং সারিয়াল জোত গ্রামের ৮ জন চাষি টিউলিপের বাল্ব বা বীজ রোপণ করেন। তাঁরা এই ৪০ শতক জমিতে ৬ প্রজাতির ৪০ হাজার টিউলিপের বীজ বপন করেন। পরীক্ষামূলকভাবে চাষ করলেও বর্তমানে টিউলিপ ফোটা শুরু হয়েছে বাগানে। টিউলিপের হাসি দেখে চাষিরা অভিভূত। সঠিকভাবে বাজারজাত করতে পারলে লাভবান হবেন বলে আশা করছেন তারা। ইএসডিওর নারী সদস্য ও উদ্যোক্তারা টিউলিপ চাষ করছেন।

সারিয়ালজোত গ্রামের আয়শা আক্তার জানান, টিউলিপ ফোটা নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় ছিলাম। আমি ৫ শতক জমিতে ৫ হাজার চারা লাগিয়েছি। ইএসডিও সহযোগিতা করেছে। ফুল ফোটায় আমি অভিভূত। শুধু অর্থ নয় ফুল চাষ আনন্দও দেয়। তাই সঠিকভাবে বাজারজাত করতে পারলে আমি পরের বছর আরও বেশি করে টিউলিপ চাষ করব।

টিউলিপ সাধারণত ২৫ থেকে ২৮ দিনের মাথায় ফুল ফোটার কথা থাকলেও তেঁতুলিয়ায় ২৩ দিনের মাথায় ফোটা শুরু করেছে। ৬ প্রজাতির টিউলিপ ছয় রং ধারণ করে প্রস্ফুটিত হতে শুরু করেছে। বর্তমানে বেগুনি রংয়ের টিউলিপ ফোটা শুরু করেছে। এরই মধ্যে নানা এলাকা থেকে টিউলিপ দেখতে ছুটে আসছেন পর্যটকরা।

শারিয়াল জোত গ্রামের মুজিবুর রহমান জানান, আমার বাড়ির পাশের জমিতে এ ফুলের চাষ করছে শুনেই এসেছি। আমি এ ফুলের সম্পর্কে জানতাম না। তবে ফুলগুলো অনেক সুন্দর। আগামীতে গ্রামের লোকজন হয়তো চায়ের পাশাপাশি টিউলিপ ফুল চাষে এগিয়ে আসবে।

ইএসডিওর নির্বাহী পরিচালক ড. মুহম্মদ শহীদ উজ জামান জানান, শীত প্রধান দেশের ফুল টিউলিপ। যে এলাকায় শীতে স্থায়িত্ব ও ঠাণ্ডা অনুভূত হয় সেখানে এ ফুল বেশি হয়। তবে সর্বোউত্তরের এ উপজেলায় দেশের অন্য অঞ্চলের চেয়ে তাপমাত্রা কম থাকে। তাই এখানে পরীক্ষামূলকভাবে টিউলিপ চাষের পরিকল্পনা গ্রহণ করেন তারা।

সুইজারল্যান্ড থেকে টিউলিপের বাল্ব কেনেন তারা। প্রতিটি বাল্ব বা বীজ প্রায় ৬৫ টাকা মূল্যে কেনা হয়। প্রথমবারেই ফুল ফোটায় তারা নিশ্চিত হতে পেরেছেন যে তেঁতুলিয়ায় বাণিজ্যিক আকারে টিউলিপ চাষ সম্ভব। কারণ টিউলিপ চাষ করতে ৮ থেকে ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা প্রয়োজন। এর বেশি হলে টিউলিপ সাধারণত হয় না। মূলত ক্ষুদ্র চাষিদের সহযোগিতা এবং পর্যটন শিল্পের বিকাশের জন্য তারা টিউলিপ চাষে উদ্যোগী হয়েছেন। ভবিষ্যতে টিউলিপ চাষ আরও সম্প্রসারিত করতে চান তারা।

তিনি আরও বলেন, ক্ষুদ্র চাষিদের মাধ্যমে টিউলিপ চাষ আমরাই প্রথম শুরু করলাম। তেঁতুলিয়া একটি পর্যটন এলাকা। টিউলিপ চাষ এই এলাকার পর্যটনকে আরও এগিয়ে নেবে। সেই সাথে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নও ঘটবে। আমরা টিউলিপের বাজারজাত করণের জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। কিছু ফুল ব্যবসায়ী ইতোমধ্যে আমাদের টিউলিপ কেনার জন্য যোগাযোগ করছেন। আমরা শুধু টিউলিপ নয় দেশ-বিদেশের প্রখ্যাত ফুলগুলোও তেঁতুলিয়ায় চাষ করতে চাই।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, ক্ষুদ্র চাষিদের মাধ্যমে টিউলিপ চাষ করে তেঁতুলিয়ায় নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে। শীতকালের তাপমাত্রায় এই এলাকায় বাণিজ্যিক আকারে টিউলিপ চাষ করা সম্ভব। আমরা সব ধরনের সহযোগিতা দিয়েছি। অন্য কেউ উদ্যোগী হলে আমরা সহযোগিতা করব।

এ ফুলটি মূলত বর্ষজীবী ও শীত প্রধান দেশের বসন্তকালীন ফুল হিসেবে পরিচিত। এটি মুকুল থেকে জন্মায়। পৃথিবীর শীত প্রধান অঞ্চলগুলোতে টিউলিপ বাগানে কাট ফ্লাওয়ার হিসেবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ হয়। ফুলদানীতে সাজিয়ে রাখলে ফুলটির অনন্য সৌন্দর্য ছড়িয়ে পড়ে। বর্ষজীবী ও কন্দযুক্ত প্রজাতির এ গাছটি লিলিয়াসিয়ে পরিবারভুক্ত উদ্ভিদ। টিউলিপের প্রায় ১৫০ প্রজাতি এবং এদের অসংখ্য সংকর রয়েছে। বাণিজ্যিক চাষের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের জলবায়ুর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে টিউলিপ ফুলের জাত উদ্ভাবন করতে গবেষণা চলছে।

ওডি/এসএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড