• শনিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৫ মাঘ ১৪২৮  |   ১৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

১০৯ টাকায় পুলিশে চাকরি পেলেন ৪৮ জন

  তানভীর আহমেদ হীরা, জামালপুর

২৭ নভেম্বর ২০২১, ১৮:০৯
পুলিশে চাকরি
ফলাফল ঘোষণার পর প্রাথমিকভাবে চাকরিপ্রাপ্তদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলার পুলিশ সুপার। ছবি : অধিকার

জামালপুরে ১০৯ টাকায় পুলিশে চাকরি পেয়েছেন ৪৮ জন। এবারের নিয়োগ পরীক্ষায় জেলার মোট ১ হাজার ৯২০ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলেও মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হয়েছে ৪৮ জন। এদের মধ্যে ৭ জন নারী ও ৪১ জন পুরুষ। প্রত্যেকেই সরকারি চালানের জন্য একশত ও ফি বাবদ আরও নয় টাকা খরচ করে মোট ১০৯ টাকায় সরকারি চাকরি পেয়েছে। এবার যারা চাকরি পেয়েছেন তাদের অধিকাংশই অসচ্ছল পরিবারে মেধাবী শিক্ষার্থী।

এ দিকে, চাকরি পাওয়ায় খুশিতে চোখের জলে সব ক্লান্তি আর হতাশার গ্লানি ভাসিয়ে দিয়েছেন গরিব-মেধাবীদের পরিবারের সদস্যরা। ঘুষ ছাড়া চাকরি পাওয়ায় তারাও সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

অন্যদিকে, মেধার ভিত্তিতে পুলিশে চাকরি পাওয়াকে সফলতা হিসেবে দেখছেন জেলা পুলিশ সুপার। তার দাবি, শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) জামালপুর পুলিশ লাইন্সে দিন থেকে রাত পর্যন্ত পরীক্ষার সকল প্রক্রিয়া শেষে নিরপেক্ষভাবে বিনা টাকায় মেধাবীরাই জয়ী হয়েছেন। পাশাপাশি পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে অভিভাবকরাও সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

শরিফপুর ইউনিয়নের গোদাশিমলা গ্রামের ভ্যানচালক ফরিদ উদ্দিনের মেধাবী কন্যা ফাহিমা তাবাসসুম কোনোমতো কষ্ট করে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু হঠাৎ একদিন অভাবের সংসারে বাবার অটোরিকশা চুরি হওয়ার পর তাদের সংসারে ঘোর অন্ধকার নেমে আসে। তাবাসসুম চাকরির জন্য ছুটাছুটি শুরু করেন। টাকা ছাড়া নাকি কোথাও চাকরি হয় না- এমন কথায় অনেকটাই হতাশ হয়ে চাকরির আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি।

এরই মধ্যে তিনি জানতে পারেন জামালপুরে পুলিশে লোক নেবে। কোনো তদবির-টাকা ছাড়াই শুধু যোগ্য মেধাবীদের নিয়োগ প্রদান করা হবে। পরে বিশ্বাস না হলেও একবার যাচাই করার জন্য পরীক্ষা দিয়েছিলেন তিনি। পুলিশ বাহিনীর নিরপেক্ষতায় মেধা তালিকায় নাম উঠে আসে ভ্যান চালকের মেয়ে তাবাসসুমের।

চাকরি পাওয়ায় তার পরিবারও হতবাক যে টাকা ছাড়া চাকরি হয়েছে। এই সংবাদ শুনে বাবা-মেয়ে কান্নার ভেঙে পড়ে পরিবারে সকল দুঃখ-কষ্ট চোখের জলে ভাসিয়ে বর্তমানে নতুনভাবে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন।

তাবাসসুমের মতো শহরের পাথালিয়া এলাকায় বাবা-মাসহ পরিবারের সবাইকে ফেলে বসবাস করতেন মো. আফছার আলী। পরিবারে হাল ধরতে মা বুকে পাথর বেঁধে মানুষের বাসা-বাড়িতে কাজ করে এক প্রতিবন্ধী মেয়েকে লালন-পালন করাসহ তার লেখাপড়ার খরচ যোগান। এতে মায়ের যেমন কষ্টের সীমা নেই, তেমনি পড়াশোনার খরচও যেন শেষ হতে চায় না। এমতাবস্থায় আফসারের পক্ষে চাকরি পাওয়া একটি দুঃস্বপ্নের মতো ছিল। অভাবের সংসারে চাকরি খুব জরুরি হয়ে গেছে বলে সাহস করে সেও একশ টাকা জোগাড় করে চালান জমা দিয়েছিলেন। পরীক্ষাও ভালো হয়েছে কিন্তু চাকরি হবে- এমন ভাবাটা তার জন্য অসম্ভব ব্যাপার ছিল। কিন্তু জেলা পুলিশের নিরপেক্ষ ভূমিকায় চাকরি পেয়েছে আফসারও।

এমন তালিকায় আরও আছে সদর উপজেলার নুরুন্দি ইউনিয়নের ৫ নম্বর ইটাইল এলাকার দিনমজুর মোস্তফা কামালের ছেলে মো. সবুজ পারভেজ, মেলান্দহ উপজেলার হাজরাবাড়ীর ব্রাক্ষপাড়ার খেতমজুর ও মেধাবী মেয়ে নুসরাত জাহান, পৌরসভার অসুস্থ কৃষক মন্টু মিয়ার ছেলে হোসেনের মতো আরও কয়েকজন।

আরও পড়ুন : অগ্নিকাণ্ডে নিঃস্ব বস্তিবাসী, শেষ ঠিকানা হলো মহাসড়কে

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদ অধিকারকে বলেন, আইজি স্যারের দিক নির্দেশনায় মোতাবেক নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ নিরপেক্ষ সম্পন্ন করেছি। এখানে চাকরি নিতে কোনো প্রকার অবৈধ টাকার লেনদেনের তদবিরের প্রয়োজন হয় না। বিনা টাকায় পুলিশের চাকরি হয়েছে। এতে মানুষ সন্তুষ্ট হয়েছে। জেলা পুলিশ শুধু যোগ্যতা ও মেধার মূল্যায়ন করেছে। এটা জেলা পুলিশের আরও একটা সফলতা। আমরা আগামীতেও এভাবেই বিনা টাকায় চাকরি দেব।

এ দিকে, ফলাফল ঘোষণার পরে প্রাথমিকভাবে চাকরিপ্রাপ্তদের সকলকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছে জেলার পুলিশ সুপার।

ওডি/নিলয়

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড