• বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কালিগঞ্জে কথিত সাংবাদিকের মামলার তদন্তে পিবিআই

  আরাফাত আলী, কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা)

২৩ নভেম্বর ২০২১, ১৭:১৭
ছবি : দৈনিক অধিকার

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে এক গ্রাম ডাক্তারের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে কথিত সাংবাদিকের নামে মামলার তদন্ত করছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। মামলার আসামিরা হলেন, উপজেলার মথুরেশপুর ইউনিয়নের ছনকা গ্রামের মৃত শেখ আব্দুর রহিমের ছেলে শেখ লুৎফর রহমান (৬২) এবং তার ছেলে শেখ ইসলামুল হক জজ’র (৩৫)।

মামলা দায়েরের দীর্ঘ সাতমাস পর আদালতের নির্দেশে গত রবিবার সাতক্ষীরা পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর মো. শাফিন মাহমুদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তদন্ত করেন। এ সময় তার সঙ্গে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মো. রইচ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

মামলার এজাহারে জানা যায়, বাদী মথুরেশপুর ইউনিয়নের ছনকা গ্রামের শেখ আব্দুর রহমানের ছেলে গ্রাম ডাক্তার শেখ শরিফুল ইসলামের সাথে একই গ্রামের সাংবাদিক পরিচয় দানকারী শেখ লুৎফর রহমানের দীর্ঘদিন যাবৎ জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। যার সূত্র ধরে লুৎফর ও তার সহযোগীরা শরিফুল ইসলামের কাছে ৪ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা না দিলে তার ক্রয়কৃত জমি দখল করে নিবে বলে হুমকি প্রদান করে লুৎফর ও তার ছেলে।

পরবর্তীতে গত ২৬ এপ্রিল সকালে লুৎফর রহমান তার ছেলে ইসলামুলসহ অজ্ঞাতনামা ৩-৪ জন ভুক্তভোগীর বাড়িতে এসে এলোপাথাড়ি মারপিট করতে থাকে। এরপর শরিফুল ইসলামের গলায় চাইনিজ কুড়াল ধরে তার শয়নকক্ষে প্রবেশ করে নগদ ৯৪ হাজার ৭শ টাকা নিয়ে নেয় লুৎফর ও তার সহযোগীরা।

এছাড়া আরও টাকা দাবি করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যায় বলে মামলার এজাহারে ভুক্তভোগী উল্লেখ করেছেন।

আরও পড়ুন : কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যায় এখনও মামলা হয়নি

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার বরাত দিয়ে পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক লস্কর জায়াদুল হক জানান, মামলাটি প্রথমে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করার নির্দেশ দেন আদালত। জেলা গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করে আদালতের কাছে অভিযুক্তদের অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করেন। পরবর্তীতে বাদী শরিফুল ইসলাম ডিবির তদন্ত রিপোর্টে রাজি বা খুশি না হয়ে বিজ্ঞ আদালতে না-রাজি পিটিশন দাখিল করেন। তার প্রেক্ষিতে আদালত জেলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের উপর তদন্তভার প্রদান করেন। আদালতের নির্দেশে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর মো. শাফিন মাহমুদ ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মো. রইচ উদ্দিন বলে জানান তিনি।

ওডি/এএম

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড