• সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

১০ কোটি টাকার চিনি ও চিটাগুড় অবিক্রিত

  সাজ্জাদুল আলম শাওন, দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর)

২২ নভেম্বর ২০২১, ১৫:১৬
ছবি : অধিকার

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে জিল বাংলা চিনি কল লিমিটেডের প্রায় ৬ কোটি টাকার চিনি ও প্রায় ৪ কোটি টাকার মোলাসেস বা চিটাগুড় অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। গত ২০২০-২০২১ আখ মাড়াই মৌসুমে উৎপাদনকৃত এসব চিনি ও চিটাগুড় বিক্রির উদ্দেশ্যে মজুদ রাখা হয়েছে বলে মিল কর্তৃপক্ষ জানায়। অন্যদিকে চিনি ও চিটাগুড় অবিক্রিত থাকলেও মিলের নিকট আখ চাষিদের কোনো পাওনা নেই বলে জানা যায়।

গত ২০২০-২০২১ আখ মাড়াই মৌসুমে ৫৮ হাজার ৯শত ৫১. ৮০ মেট্রিকটন আখ মাড়াই করে ৩ হাজার ৯ শত ৮.৫০ মেট্রিকটন চিনি উৎপাদন করেছে মিলটি। তার মধ্যে ৩ হাজার ১ শত ৪৩.৬০ মেট্রিকটন চিনি এ পর্যন্ত বিক্রি করেছে। তার মধ্যে ৭ শত ৬৪.৯০ টন চিনি এখনো অবিক্রিত রয়েছে। যার মূল্য ৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা। ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে ১২৭১.৯৩৮ মেট্রিকটন মোলাসেস বা চিটাগুড় অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। যার মূল্য প্রায় ৪ কোটি টাকা।

জিল বাংলা চিনি কল সূত্রে জানিয়েছে, এ বছর ২০২১-২০২২ আখ মাড়াই মৌসুমে আখের ফলন ৬১ হাজার মেট্রিকটন হয়েছে। তার মধ্যে ৩১ হাজার মেট্রিকটন পরবর্তী আখ মাড়াই মৌসুমের জন্য বীজ হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। বাকি ৩০ হাজার মেট্রিকটন আখ মাড়াই লক্ষ্য মাত্রা ধার্য করেছেন এবং ২ হাজার ৪ শত মেট্রিকটন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করেছে। মিলটির উৎপাদিত চিনির গুনগতমান উৎকৃষ্ট বলে বেসরকারির পাশাপাশি সরকারিভাবে এ মিলের উৎপাদিত চিনির চাহিদা রয়েছে। অবিক্রিত ৭৬৪.৯০ মেট্রিকটন চিনি বাংলাদেশ পুলিশ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বিভাগে ব্যবহারের জন্য সরবরাহ হবে বলে এখনও অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। মিল থেকে প্রতি কেজি খুচরা ও পাইকারি চিনির মূল্য ৭৪ টাকা হিসাবে বিক্রি করা হচ্ছে।

২০২১-২০২২ আখ মাড়াই মৌসুম শুরু হবে আসছে ১৭ ডিসেম্বর। এই মৌসুমে চিনি উৎপাদনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করছে মিলটি এবং পরবর্তী মৌসুমে আখের উৎপাদন বৃদ্ধিতে চিনির উৎপাদন কয়েক গুণ বাড়ানোর জন্য সব রকমের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মিলটির কর্তৃপক্ষ।

উপ-ব্যবস্থাপক (বাণিজ্যিক) আজিজুল ওয়াহাব দৈনিক অধিকার'কে জানান, এই মিলটি দেশের সর্বৎকৃষ্ট চিনি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। এই মিলের চিনির বেসরকারি খাতের পাশাপাশি সরকারি খাতে চাহিদা রয়েছে। অবিক্রিত চিনি চলতি বছরের বিক্রয় হবে বলে আশা করছি। তবে চিটা গুড় বিক্রি হতে সময় লাগবে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুর আজম দৈনিক অধিকারকে বলেন, জিল বাংলা চিনি কলের উৎপাদিত চিনি গুনে মানে অন্যান্য। বর্তমানে মিলে অবিক্রিত চিনি সরকারি খাতে ব্যবহৃত হবে। পরবর্তী আখ মাড়াই ও চিনি উৎপাদনের আগেই মজুদকৃত চিনি বিক্রয় হবে বলে আশা করছি।

ওডি/এমএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড