• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি রাউজানের মা হারা দুই বোনের

  মো. আরফাত হোসাইন, রাউজান, চট্টগ্রাম

০৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৬
নিখোঁজ
নিখোঁজ নিঝুম ও ঋর্তিকা। ছবি : অধিকার

চট্টগ্রামের রাউজানে নিখোঁজ হওয়ার আট দিন অতিবাহিত হলেও সন্ধান মেলেনি মাতৃহীন দুই বোনের। তারা কোথায় গেছে বা কোন জায়গায় আছে কেউ বলতে পারছে না। পুলিশ বলছে, তাদের সন্ধানের চেষ্টা করছেন, তবে ওই দুই বোনের অবস্থান শনাক্ত করতে পারছেন না তারা। ফলে দীর্ঘ আট দিনেও দুই বোনকে খুঁজে না পাওয়ায় একদিকে যেমন রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে তেমনি অন্যদিকে রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছেন নিখোঁজ ওই দুই বোনের স্বজনরা।

নিখোঁজ ওই দুই শিক্ষার্থীরা হলেন- রাউজান উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের শীল পাড়া এলাকার সৌদি প্রবাসী মিন্টু শীলের মেয়ে নিঝুম শীল (১৬) ও তার ছোট বোন ঋর্তিকা শীল (৮)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৮ সেপ্টেম্বর বই-খাতাসহ নিঝুম শীল তার প্রতিবন্ধী ছোট বোনকে নিয়ে ডাবুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু বিদ্যালয় ছুটি হওয়ার পরও ওইদিন তারা ফিরে আসেনি। এরপর থেকে ওই দুই বোন নিখোঁজ রয়েছেন।

এ ঘটনায় স্বজনরা সম্ভাব্য সব স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তাদের কোনো সন্ধান পাননি। পরে নিরুপায় হয়ে ঘটনার পরদিন ২৯ সেপ্টেম্বর তাদের কাকা ঝন্টু শীল রাউজান থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

এ দিকে, গত বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সকালে নিখোঁজ দুই বোন কুমিল্লায় পুলিশ হেফাজতে আছে বলে খবর দেওয়া হয় রাউজান থানায়। পরে রাউজান থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক মো. হানিফ স্থানীয় ইউপি সদস্য মিঠু শীলকে ফোন করে কুমিল্লা থেকে পুলিশ পরিচয়ে ফোন করা নম্বরটি দেন। একপর্যায়ে সেই নম্বরে যোগাযোগ করলে কুমিল্লায় যেতে বলা হয়। এরই মধ্যে অজ্ঞাত পুলিশ পরিচয় দেওয়া ওই ব্যক্তি ১০ হাজার টাকা পাঠাতে বলেন। পরে ৭ হাজার টাকা বিকাশে পাঠানোর পর কুমিল্লার উদ্দেশ্যে রওনা দেন স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ স্বজনরা।

এ দিকে, বিকাশে টাকা প্রেরণের পর থেকে কুমিল্লার পুলিশ পরিচয়দাতা ওই ব্যক্তির নম্বরটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। রাউজান থানা পুলিশকে বোকা বানিয়ে ওই ব্যক্তি টাকা হাতিয়ে নিলেও এ ব্যাপারে পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলেও অভিযোগ উঠেছে। ওই ঘটনায় কুমিল্লায় গিয়ে থানা-পুলিশ ফাঁড়িতে খবর নিয়ে ৯৯৯ ফোন করার পর কোনো তথ্য না পেয়ে ইউপি সদস্যসহ অন্যরা ফিরে আসেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মিঠু শীল দৈনিক অধিকারকে বলেন, রাউজান থানার এসআই হানিফ আমাকে নম্বরটা দিয়ে ফোন করতে বলেছেন। সাথে সন্ধান পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেতে বলেন। পরবর্তীকালে পুলিশ পরিচয় দেওয়া ওই লোক টাকা চাইলে বিকাশে ৭ হাজার টাকা প্রেরণ করি। এ ছাড়া কুমিল্লায় গিয়ে বুঝতে পারি প্রতারকের ফাঁদে পড়েছি। এ ঘটনায় ৭ হাজার টাকাসহ সবমিলিয়ে প্রায় ২২ হাজার টাকা খরচ হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

বিষয়টিতে রাউজান থানার উপপরিদর্শক মো. হানিফের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক অধিকারকে বলেন, ‘ডিউটি অফিসারের নম্বরে ফোন দিয়েছিল, আমি ইউপি সদস্যকে ফোন দিয়ে দেখি নিখোঁজের বিষয়টি সত্য। তাই আমি পুলিশ পরিচয়ে ফোন করা ব্যক্তির নম্বরটা ইউপি সদস্যকে দিয়েছি। টাকা পয়সা-লেনদেনের বিষয়টি আমাকে জানানো হয়নি। নম্বরটা দিয়ে আমি অপরাধী হয়ে গেলাম আরকি।’

আরও পড়ুন : তালায় খালে ডুবে বৃদ্ধের মৃত্যু

এ দিকে, নিখোঁজ দুই বোনের কাকী রিম্পা শীল বলেন, গত ৭ মাস আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে নিঝুম ও ঋর্তিকার মা মারা যার। বাবা প্রবাস জীবনে আছেন। মা মারা যাওয়ার পর থেকে আমাদের সাথে থাকে। কারও সাথে কোনো ঝামেলা ছিল না। হঠাৎ করে তারা নিখোঁজ হয়ে গেল। এখন পর্যন্ত তাদের কোনো খোঁজ পাইনি।

সার্বিক বিষয়ে রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার উপপরিদর্শক (এসআই) অজয় দেব শীল দৈনিক অধিকারকে বলেন, নিঝুম ও ঋর্তিকা নামে নিখোঁজ ওই দুই বোনের অবস্থান জানার অনেক চেষ্টা করছি, তবে এখনো পাওয়া যায়নি। তাদের কল রেকর্ড নেই। কল রেকর্ড থাকলে কোথায় আছে জানা যেত। তবুও তাদের খুঁজে পেতে আমাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

ওডি/নিলয়

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড