• বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ময়মনসিংহে শিশু গৃহকর্মীকে নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ

  এম ইদ্রিছ আলী, ময়মনসিংহ

১০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৩৬
শিশু
নির্যাতিত শিশু। ছবি : দৈনিক অধিকার

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায় এক শিশু গৃহকর্মীর (৯) সারা শরীরে ব্লেড দিয়ে নির্মমভাবে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে আসমা আক্তার (৩৫) নামে এক গৃহকর্তীর বিরুদ্ধে। শরীরের বিভিন্ন অংশের পাশাপাশি গোপনাঙ্গেও ব্লেড দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করাও অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বাড়ির পাশে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়েছেন ওই গৃহকর্তী। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ওই শিশু গৃহকর্মীকে ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করেছে।

নির্যাতিত শিশুর পরিবার জানিয়েছে, ফুলবাড়িয়া উপজেলার কুশমাইল ইউনিয়নের পানের ভিটা গ্রামের মৃত ওয়াজেদ মিয়ার মেয়ে আসমা আক্তার ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে কর্মরত। তিনি নগরীর চরপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। নিজ এলাকা থেকে দরিদ্র ওই শিশুকে গৃহকর্মী হিসেবে নিয়ে আসেন আসমা। ওই ভাড়া বাসাতেই গত তিন মাস ধরে তাদের শিশুকে নানাভাবে নির্যাতন করে আসছেন তিনি।

নির্যাতনের শিকার গৃহকর্মীর চাচা সিরাজুল ইসলাম বলেন, বড় ভাইয়ের সংসারে অভাব-অনটনের কারণে মাসিক এক হাজার টাকা বেতনে আনুমানিক তিন মাস আগে তাকে আসমার বাসায় কাজে দেন। কাজে দেওয়ার পর থেকে বিভিন্ন অজুহাতে তাকে অমানুষিক নির্যাতন করত।

তিনি বলেন, এইভাবে তিন মাস নির্যাতন করার পর বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) নির্যাতনের সময় সে অজ্ঞান হয়ে পড়লে গৃহকর্তী আসমা অন্য একজন মহিলা দিয়ে ওইদিন বিকাল ৫টার দিকে ওই শিশুকে আমাদের বাড়ির পাশে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে বাড়ির আশপাশের লোকজন ওই শিশুকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের লোকজনকে বিষয়টি জানায়। একপর্যায়ে পরিবারের লোকজন শিশুকে উদ্ধার করে প্রথমে ফুলবাড়িয়া থানায় নিয়ে যায়। পরে পুলিশের সহায়তায় ওই শিশুকে ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও জানান, বৃহস্পতিবার যখন ওই শিশুকে বাড়ির পাশে ফেলে রেখে যায়, তখন ওই শিশুর সমস্ত শরীরে ব্লেডের আঘাতের চিহ্ন ছাড়াও বুকে ও পিঠে এমনকি গোপনাঙ্গেও ব্লেডের আঘাতের ক্ষত দেখা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফুলবাড়িয়া থানার এসআই জোতিষ চন্দ্র দৈনিক অধিকারকে জানান, ওই শিশুকে রাতে তার পরিবারের লোকজন থানায় নিয়ে আসার পর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে সকালে হাসপাতালে গিয়ে শিশুর পরিবারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি যেহেতু সদরের, তাই কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। সেখানেই প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন : খাগড়াছড়িতে ছেলের দায়ের কোপে জীবনপ্রদীপ নিভল বাবার

এ দিকে, ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি (তদন্ত) ফারুক হোসেন দৈনিক অধিকারকে জানান, এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে ফুলবাড়িয়া থানা থেকে বিষয়টি জানানোর পর রাতেই ওই মহিলাকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তৎপরতা চলছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড