• সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সন্ধ্যা নামলেই ভয়ংকর হয়ে ওঠে নওগাঁর ‘বান্ধা সাঁকো’

  রেজা রায়হান, পত্নীতলা, নওগাঁ

০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৯
আহত
ডাকাতির ঘটনায় আহত নুরুজ্জামান ও মহব্বত। ছবি : দৈনিক অধিকার

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার শিহাড়া ইউনিয়নের শিহাড়া ব্রিজ ‘বান্ধা সাঁকো’ নামেই এলাকাবাসীর কাছে বেশি পরিচিত। এই সাঁকো দিয়ে চলাচলকারী অনেকেই ডাকাতির শিকার হয়েছেন। রাতের আধারে হওয়া প্রত্যেকটি ডাকাতির সময়েই বেঁধে ফেলা হতো পথযাত্রীর হাত-পা। আর সেই থেকেই এলাকাবাসীর কাছে সেতুটি ‘বান্ধা সেতু’ নামে পরিচিতি পায়।

সন্ধ্যা নামলেই এলাকাবাসী সেই বান্দা সাঁকোর রাস্তা দিয়ে চলাফেরা করতে ভয় পান। কখনো কেউ একা সেই রাস্তা দিয়ে যেতেও চান না। ফলে এলাকায় নতুন এক আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে এই বান্ধা সাঁকো।

সর্বশেষ মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে সাপাহার থেকে শিহাড়া হয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে বাসায় ফেরার পথে এই বান্ধা সাঁকোতেই ডাকাতদের কবলে পড়েন স্থানীয় দুইজন ব্যক্তি। শিহাড়া ব্রিজ বা বান্ধা সাঁকোতে পৌঁছালে শিহাড়া উত্তর পাড়া এলাকার মো. ইউসুফ আলীর ছেলে মহব্বত (২৫) ও আমন্ত গ্রামের খাদেম এর ছেলে নুরুজ্জামানের (২৭) গতিরোধ করে তাদের ঘিরে ফেলেন ডাকাতরা। এ সময় নুরুজ্জামান ও মহব্বতকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরুতর জখম করে তাদের কাছে থাকা নগদ অর্থ ও মোটরসাইকেলটি লুটে নেয় অস্ত্রধারী ডাকাতদল।

গ্ৰামবাসীরা জানিয়েছেন, বছরে ৪ থেকে ৫ বার এমন ঘটনা ঘটে থাকে ওই শিহাড়া ব্রিজ বা বান্ধা সাঁকোতে। মঙ্গলবার রাতের ঘটনাতেও একইভাবে বান্ধা সাঁকো থেকে প্রায় একশ মিটার দূরে একটি বাঁধের কাছে বেঁধে রাখা হয়েছিল নুরুজ্জামান ও মহব্বতকে। পরে চিৎকার শুনে সেখানে গিয়ে এলাকাবাসী দেখতে পায়, ডাকাতের একটি দল সেখানে বিভিন্ন জিনিসপত্র ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রেখে মাদক সেবন করেছে। ওই সময় লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত দলের একজন সদস্য ব্যতীত বাকিরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। তবে উপস্থিত এলাকাবাসীর হাতে আটক হন জেলার সাপাহার থানার পিছলডাঙ্গা গ্রামের লাল মোহাম্মদের ছেলে শামসুল আলম। পরে রাতেই তাকে পত্নীতলা থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এর আগেও বহুবার পুলিশকে জায়গাটির বিষয়ে বলা সত্ত্বেও কোনো সমাধান মেলেনি। রাতে পুলিশ কোনো এক অজানা কারণে সেখানে যেতে চায় না বলেও অনেক এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।

এ বিষয়ে পত্নীতলা থানার ইন্সপেক্টর হাবিবুর রহমান দৈনিক অধিকারকে বলেন, মঙ্গলবার যে ঘটনা ঘটেছে ইতোমধ্যে আমরা একজনকে গ্রেফতার করেছি। আটক সামছুল ডাকাতির ঘটনায় নিজের জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। এ ছাড়া পলাতক একজনের নাম-পরিচয় জানা গেছে।

আরও পড়ুন : পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, আপাতত ৩৯৪/৪১২ পেনাল কোডে দুইজনের নামে মামলা হয়েছে। এ ছাড়া আটক সামছুলকে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরেই আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। তবে পলাতক অপর আসামীদের খুব শীঘ্রই গ্ৰেফতার করা হবে বলেও জানিয়েছেন পত্নীতলা থানার ইন্সপেক্টর হাবিবুর রহমান।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড