• শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হাটহাজারীতে ডেন্টিস্টের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ 

  আবুল মনছুর, হাটহাজারী (চট্টগ্রাম)

২০ জুলাই ২০২১, ১৩:০৭
হাটহাজারীতে ডেন্টিস্টের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ 
অভিযুক্ত ডেন্টিস্টের চেম্বার (ছবি : দৈনিক অধিকার)

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে বিধান কান্তি দে নামে এক ডেন্টিস্টের বিরুদ্ধে কলেজ শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (১৯ জুলাই) দুপুরে হাটহাজারী থানার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত বি ডেন্টাল কেয়ার নামে ঐ ডেন্টিস্ট দাঁত চেকআপের সময় শ্লীলতাহানি করেছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থীর অভিযোগ, দাঁতের সমস্যা নিয়ে সোমবার দুপুরে ডেন্টিস্ট বিধান রায়ের চেম্বারে যান তিনি। তার দাঁতের চেকআপের এক পর্যায়ে শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন বিধান। এরপর শিক্ষার্থী তাকে বাঁধা দিয়ে দ্রুত ডেন্টিস্টের ফি দিয়ে সেখান থেকে বেরিয়ে আসেন।

এ দিকে পরবর্তীকালে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর কাছে থানায় অভিযোগ করবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আত্মসম্মান বোধে থানায় অভিযোগ করব না।

যদিও তার দাবি, মিডিয়াতে বিষয়টি এনেছি এ জন্য যাতে আর কোনো মহিলার এই চিকিৎসকের দ্বারা শ্লীলতাহানির শিকার না হোন। তিনি নারী রোগীদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, অভিভাবক ছাড়া কেউ যেন কোনো চিকিৎসকের কাছে না যান। চিকিৎসকের রুমে অবশ্যই একজন প্রাপ্ত বয়স্ক অভিভাবক থাকতে হবে। তাহলে নারীরা অন্তত তাদের এ ধরনের ঘৃণ্য থাবা থেকে রক্ষা পাবেন।

আরও পড়ুন : দাফনের ছয়দিন পর অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর মরদেহ উত্তোলন

জানা গেছে, দীর্ঘ ৩৮ বছর ধরে হাটহাজারী মডেল থানার দক্ষিণ-পূর্বে আলী মার্কেটে এ ব্যবসা করে আসছেন বিধান কান্তি দে। এমবিবিএস কিংবা বিডিএস না হয়েও নামের আগে ডা. লিখে রোগীদের সাথে প্রতারণা করছেন তিনি। রোগীদের দেওয়া ব্যবস্থাপত্রে তার সত্যতা পেয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। শ্লীলতাহানির বিরুদ্ধে বলেন, আমি ভুল করেছি মেয়েটির কাছে ক্ষমা চেয়েছি।

জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সৈয়দ মো. ইমতিয়াজ হোসাইন বলেন, এমবিবিএস কিংবা বিডিএস না হলে কেউ নিজের নামের সঙ্গে ডা. লিখতে পারবে না। যদিও তারা চাইলে ডেন্টিস্ট লিখতে পারবে। এ ধরনের কেউ ডা. লিখলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন : গাজীপুরের মহাসড়কে ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড়

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. শাহিদুল আলম বলেন, বিষয়টা শুনেছি এটা শ্লীলতাহানি। এটা মোবাইল কোর্টের আওতায় পড়ে না। পড়লে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া যেত। এখন বিষয়টা ভিকটিমের পর নির্ভর, উনি চাইলে বিষয়টা চাপিয়ে যেতে পারেন চাইলে থানায় অভিযোগ করতে পারেন। নামের আগে ডা. লেখার বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান এই ইউএনও।

ওডি/কেএইচআর

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet