• শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বেনাপোল বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, কোটি টাকার ক্ষতি

  জাহিরুল মিলন, শার্শা (যশোর)

১৭ জুলাই ২০২১, ১৬:০০
অগ্নিকাণ্ড
অগ্নিকাণ্ডের খবরে ঘটনাস্থলে স্থানীয়দের ভিড়। ছবি : দৈনিক অধিকার

যশোরের শার্শা উপজেলাধীন বেনাপোল বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ১৪টি দোকানের মালামাল পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে। এতে নগদ টাকাসহ কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করছেন ভুক্তভোগীরা। ফায়ার সার্ভিসের টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের সহায়তায় প্রায় দুই ঘণ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

শনিবার (১৭ জুলাই) সকালের দিকে বেনাপোল বাজারের চুড়িপট্রির মাঝে অবস্থিত তোতা মিয়ার চায়ের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা। আবার কেউ কেউ বলছেন, বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগতে পারে।

ভয়াবহ ওই অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ১৪টি দোকানের মালামাল পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে। দোকানগুলোর মধ্যে রয়েছে ৭টি কসমেটিকস, একটি কাপড়ের দোকান, একটি বীজ ভাণ্ডার ও ৫টি মুদি দোকান।

স্থানীয়রা জানান, আগুনের লেলিহান শিখা চারিদিকে দাউদাউ করে ছড়িয়ে পড়লে সকাল ৬টা ১৫ মিনিটের দিকে বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে অগ্নি নির্বাপণের কাজ শুরু করে। প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর তারা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ দিকে, খুব ভোরে এ অগ্নিকাণ্ড সংঘটিত হওয়ার কারণে অনেক দোকানদার ঘটনাস্থলে পৌছাতে পারেনি। তবে আশেপাশের অনেক দোকানিরা তাদের মালামাল জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বের করে যশোর বেনাপোল মহাসড়কের উপর জড়ো করেন।

বাজারের চুড়িপট্টির কাপড় ব্যবসায়ী ও রজনী বীজ ভাণ্ডারের মালিক ছলেমান দাবি করেন ভয়াবহ এই আগুনে নগদ টাকাসহ তার ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। কান্না বিজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আমার সব শেষ হয়ে গেছে। ইদ বাজার ধরার জন্য নতুন কাপড় তুলেছিলাম দোকানে। এছাড়া ঢাকায় আরও নতুন মাল আনার জন্য দোকানের মধ্যে নগদ ৫ লাখ টাকা রেখেছিলাম, তাও পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমার দুটি দোকান পুড়ে শেষ হয়েছে।’

এ দিকে, সরেজমিনে দেখা যায়, দীর্ঘদিন লকডাউনের বন্ধ থাকায় দোকানগুলোতে মালামাল মজুদ ছিল। এছাড়া ইদের বাজার ধরার জন্য নতুন নতুন মালামালও তুলেছিল দোকানিরা। আবু রায়হান নামে কসমেটিকস দোকানি জানান, ‘আমার দোকানে প্রায় ৬০ থেকে ৭০ লাখ টাকার কসমেটিকস পণ্য ছিল। ব্যাংক লোণ রয়েছে। কোথা থেকে কী করব ভেবে পাচ্ছি না।’

এ ব্যাপারে বেনাপোল ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ রতন দেবনাথ বলেন, আমরা খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পৌঁছে কাজ শুরু করি। প্রায় দুই ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছি। এ সময় তদন্ত সাপেক্ষে আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে বলা বলে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এ দিকে, বেনাপোল বাজার কমিটির সেক্রেটারি ও বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান বলেন, অগ্নিকাণ্ডে আনুমানিক কয়েক কোটি টাকার পণ্য ও নগদ অর্থ পুড়ে ছাই হয়েছে। সঠিক তদন্তে বেরিয়ে আসবে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ। তবে বাজারের পাশে একটি খাল থাকায় আগুন আরও দ্রুত নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সেখান থেকে ফায়ার সার্ভিস ইউনিট পানি সংগ্রহ করতে পেরেছে।

আরও পড়ুন : ফরিদপুরে করোনা হাসপাতালে একদিনে ২১ জনের মৃত্যু

অন্যদিকে, অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মীর আলীফ রেজা ইতোমধ্যেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি বলেন, কীভাবে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে এবং কত টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে তা তদন্ত না করে এই মুহূর্তে বলা সম্ভব না।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet