• শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইয়াছিনের শিকলে বন্দি ৬ বছর

  রাইসুল ইসলাম খোকন, সরিষাবাড়ী (জামালপুর)

১৬ জুলাই ২০২১, ১১:০২
শিকল পায়ে বাঁশ ঝাড়ে বেধে রাখা হয়েছে ইয়াছিনকে
শিকল পায়ে বাঁশ ঝাড়ে বেধে রাখা হয়েছে ইয়াছিনকে। (ছবি : দৈনিক অধিকার)

১৪ বছর বয়সে হঠাৎ করেই মানসিক ভারসাম্য হারায় ইয়াছিন অন্তর। এরপর প্রাথমিক চিকিৎসা করা হলেও কিছুদিন সুস্থ থাকার পর আবার আগের মতো অসুস্থ হয়ে পড়ে। পারিবারিক অস্বচ্ছলতার কারণে আর চিকিৎসা করা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে তার বয়স ২০ বছর। ৬ বছর ধরে পায়ে শিকল লাগিয়ে বেধে রাখা হয়েছে বাঁশ ঝাড়ে।

সে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের চরবালিয়া পূর্বপাড়া গ্রামের সুমর আলীর ছেলে। খোলা আকাশের নিচে বাঁশ ঝাড়ের সাথে লোহার শিকল দিয়ে সারাদিন বেধে রাখা হয় ইয়াছিনকে। মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় সে কয়েকবার বাড়ি থেকে হারিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর পরিবার তার খোঁজে পায়। এরপরই তার পায়ে শিকল লাগানো হয়। ঠাই হয় বাঁশ ঝাড়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খোলা আকাশের নিচে বাঁশ ঝাড়ের সাথে পায়ে শিকল দিয়ে বেধে রাখা হয়েছে ইয়াছিনকে। বাঁশ ঝাড়ের পাশেই রয়েছে ডোবা। মশা মাছির প্রচণ্ড উপদ্রব সত্ত্বেও সহ্য করতে হচ্ছে মুখ বুঝে। রোদ-বৃষ্টি, দিন-রাত সব সময় সেখানেই থাকতে হচ্ছে। বাবা সুমর আলী ভূমিহীন ও দিনমজুর হওয়ায় ছোট্ট একটি ঘরে স্ত্রী ও এক মেয়েকে নিয়ে বসবাস করেন। সেখানে জায়গা হয় না ভারসাম্যহীন ইয়াছিনের।

বাবা সুমর আলী জানান, ঘরটি ছোট হওয়ায় ইয়াছিনকে এখানে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা গরিব মানুষ, টাকা পয়সা কোথায় পামু। পোলাডারে টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছি না। আমি মাননীয় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানসহ প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

এ ব্যাপারে স্থানীয় লাভলু মিয়া জানান, মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে হলেও ভারসাম্যহীন ইয়াছিনকে চিকিৎসা করানো উচিত। তার চিকিৎসায় আমি সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তিদেরকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

ইউপি সদস্য আনিছুর রহমান জানান, ইয়াছিনকে আমি একটি প্রতিবন্ধী কার্ড করে দিয়েছি। এ ছাড়া আমার আর কিছুই করার নাই।

এ ব্যাপারে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আরিফুর রহমান বলেন, তথ্যটা আমার জানা নেই। প্রত্যেক মানুষের অধিকার আছে। তাকে অবশ্যই প্রপার চিকিৎসা করতে হবে। পরিবারের সম্ভব না হলে সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতা নিয়ে করতে হবে। এটা আমাদের সবারই দায়িত্ব। এটা না করার কোন সুযোগ নেই।

ওডি/জেআই

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet