• বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পেতে তুলকালাম

  সুমন খান, লালমনিরহাট

১০ জুন ২০২১, ১৮:১১
মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা
মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতার ভাগ নিয়ে চলা দ্বন্দ্ব গড়ায় মামলা পর্যন্ত (ছবি: সংগৃহীত)

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছাত্তার মারা গেছেন ২৫ বছর আগে। এতোদিন ধরে তার সম্মানী ভাতা ভোগ করছিলেন তার স্ত্রী। সবকিছু ঠিকঠাক চলছিল। সম্প্রতি মনোয়ারা বেগম নামে এক নারী আব্দুস ছাত্তারের দ্বিতীয় স্ত্রী ও রবিনা বেগম নিজেকে তার মেয়ে দাবি করলে শুরু হয় তুলকালাম কাণ্ড। মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা ও সম্পত্তির ভাগ নিয়ে চলা দ্বন্দ্ব গড়ায় মামলা পর্যন্ত।

ঘটনাটি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের বনচৌকি এলাকার। সম্প্রতি মনোয়ারা বেগম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অবেদন করে সম্মানী ভাতা দাবি করেন। তবে ওই মুক্তিযোদ্ধার ছেলে দুলাল হোসেন তার বাবার দ্বিতীয় স্ত্রী ও মেয়ে দাবি করা দুজনকে অস্বীকার করেন। এ নিয়ে চলতি বছরের ৪ মার্চ উপজেলা সমাজসেবা অফিসও তদন্ত করে। সে সময় দু পক্ষের মধ্যে বাক বিতণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এদিকে তদন্ত শেষে মনোয়ারা বেগম ও রবিনা বেগম, দুলাল হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় হুমকির অভিযোগ করেন। ওই দিন রাতেই মুক্তিযোদ্ধার ছেলে দুলাল হোসেন, রবিনা বেগমের স্বামী শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের অভিযোগ এনে মামলা করেন।

রবিনা বেগম বলেন, তার বাবার মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা তার মা দীর্ঘ দিন ধরে না পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেন। এতে সৎ ভাই দুলাল হোসেন তার উপর ক্ষিপ্ত হন। গত ৪ মার্চ তদন্তের দিন তাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দেন। এর বিচার চেয়ে ওই দিন থানায় অভিযোগ করেন বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, এ ঘটনার পর রাতে নাটক সাজিয়ে তার স্বামীর (শহিদুল ইসলাম) বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের মিথ্যা মামলা করা হয়। থানায় হুমকির অভিযোগ গ্রহণ করা হয়নি জানিয়ে, তার স্বামীর বিরুদ্ধে করা মামলাটি মিথ্যা বলে দাবি করেন রবিনা।

দুলাল হোসেন বলেন, তার বাবা প্রায় ২৫ বছর আগে মারা গেছেন। দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে তার মা সম্মানী ভাতা গ্রহণ করছেন। এত দিন পর কেন তারা, সৎ মা ও বোন দাবি করলেন, সম্মানী ভাতা দাবি করলেন? যে কাবিন নামাটি আবেদনের সাথে দেওয়া হয়েছে তা ভুয়া বলেও দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, তার পরিবারকে হয়রানি করতেই এতকিছু। নীলফামারী থেকে ছোট ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করে ফেরার পথে তার মোটরসাইকেলটি রবিনা বেগমের স্বামী শহিদুল ইসলাম ছিনতাই করেন বলেনও অভিযোগ করেন তিনি।

হাতীবান্ধা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মাহাবুবুল আলম বলেন, দুই পক্ষ প্রমাণ দেখিয়েছেন। বিষয়টি গোপনে ও প্রকাশ্য তদন্ত হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছাত্তার ও মনোয়ারা বেগমের বিয়ের কাবিননামা চেয়ে নিকাহ রেজিস্ট্রারকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। বিয়ের কাবিননামা আসলেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: জীবন বাঁচাতে লোকালয়ে হরিণ

হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলম বলেন, দুলাল হোসেন তার মোটরসাইকেল ছিনতাই হয়েছে দাবি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটির তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড