• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মঠবাড়িয়ায় নিঃসন্তান নারীকে পিতৃভূমি থেকে উচ্ছেদের অভিযোগ

  মো. রুম্মান হাওলাদার, মঠবাড়িয়া

০৯ জুন ২০২১, ১৬:০৪
মঠবাড়িয়ায় নিঃসন্তান নারীকে পিতৃভূমি থেকে উচ্ছেদের অভিযোগ
মঠবাড়িয়ায় নিঃসন্তান নারীকে পিতৃভূমি থেকে উচ্ছেদের অভিযোগ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় এমিলি (৪৫) নামের এক স্বামী পরিত্যক্তা নিঃসন্তান নারীকে মারধর করা হয়েছে। পরে তার পৈত্রিক ভিটে-মাটি থেকে উচ্ছেদ করে সেই গৃহে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এমন অভিযোগ উঠেছে এমিলির নিজ ভাইয়ের ছেলেদের বিরুদ্ধে। এখন এমিলির আশ্রয় গাছতলায়।

অভিযুক্ত এমাদুল ও জহিরুল হকের এমন অমানবিক কাজে শারীরিক ও মানসিকভাবে ভেঙে পরেছে সে। রবিবার (৬ জুন) থেকে সে খোলা আকাশের নিচে। বৃষ্টি হলে গাছের নীচে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে ওই অসহায় নারী।

জানা যায়, স্বামী পরিত্যক্তা এমিলি দীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়নের পাঠাকাটা গ্রামে পিতা মৃত. আ. মজিদ কবিরাজের গৃহে বসবাস করে আসছিল। মজিদ কবিরাজ জীবিত থাকাকালীন ৬ ছেলে মেয়ের মধ্যে মৌখিক ভাবে অসিয়ত করে যান। তখন তিনি এমিলি স্বামী পরিত্যক্তা ও অসহায় বিধায় তার পুরাতন ঘরে আমৃত্যু থাকার কথা বলে যান। এতে তার ভাই-বোন ও ভাইয়ের ছেলেরা সে প্রস্তাবকে মৌখিক ভাবে মেনে নেন।

এদিকে, এমিলির পিতা আ. মজিদ কবিরাজ ও দুই ভাই শামছুল হক ও সিরাজুল হকের মৃত্যুর পরে শামছুল হকের ছেলেরা এমাদুল হক (৩৮) ও জহিরুল হক মিন্টু (৩৬) পূর্ব পরিকল্পিত ও ষড়যন্ত্রমূলক মঠবাড়িয়া থেকে ভাড়াটে লোকজন নিয়ে এমিলিকে মারধর করে ঘর থেকে উচ্ছেদ করে। ঘরে থাকা আসবাবপত্র ও গৃহস্থালি মালামাল ভাংচুর করে।

এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এমাদুল ও জহিরুল হক মিন্টু প্রভাবশালী বিধায় এলাকার কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেন না। এমিলি বর্তমানে খোলা আকাশের নিচে ভারি বর্ষণের মধ্যে ক্ষুধার্ত অবস্থায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এমিলি বেগম জানান, আমি স্বামী পরিত্যক্তা অসহায় নিঃসন্তান একজন নারী। আমার অতিরিক্ত কোন চাওয়া পাওয়া নেই। ভাইয়ের ছেলেদের সাথে আমার কোনো দ্বন্দ্ব নেই, শত্রুতা নেই। দীর্ঘদিন ধরে বাবার ভিটে-মাটিতে বসবাস করে আসছি এটাই ভাইয়ের ছেলেদের চোখে অপরাধ। এখন আমি অনাহারে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছি খোলা আকাশের নিচে গাছের তলায়। আমি আমার বাবার স্মৃতি বিজড়িত ভিটে-মাটিতে ফিরতে চাই। সেখানে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে চাই।

এমিলি প্রশাসনের কাছে আকুল আবেদন করেন। তিনি বলেন, আমাকে আমার বাবার ভিটে-মাটিতে ফেরানোর সহযোগিতা করুন তা না হলে আমাকে জীবিত কবর দিন। একজন নারী হয়ে এত অত্যাচার নির্যাতন আর সইতে পারছি না।

অভিযুক্ত এমাদুল হক এর মতে, এমিলি ওই গৃহে দীর্ঘদিন বসবাস করছেন ঠিকই তবে সমাধান না হওয়া পর্যন্ত ঘরের তালা খুলবেন না।

আরও পড়ুন : ফেনীতে শ্বাসকষ্ট রোগীদের জন্য অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপন

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আকাশ কুমার কুন্ডু জানান, স্থানীয় বেশ কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মীর মাধ্যমে বিষয়টি জানার পর আমি তাৎক্ষণিক ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সাথে ফোনে আলাপ করলে, তিনি বিষয়টি দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন।

ওডি/এএইচ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড