• বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হরেকরকম আম-লিচুতে সরগরম ফেনীর বাজার, দাম দ্বিগুণ

  এসএম ইউসুফ আলী, ব্যুরো প্রধান, ফেনী

০৯ জুন ২০২১, ১৪:৩৫
ছবি : দৈনিক অধিকার

হরেকরকম আম-লিচুতে সরগরম ফেনীর ফল বাজার। ভর মৌসুমে সরবরাহ বাড়তে থাকলেও পাইকারির চেয়ে খুচরা বিক্রেতারা প্রায় দ্বিগুণ দামে বিক্রি করছেন রসালো এ ফল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এলাকাভিত্তিক বিভিন্ন জাতের আম বিক্রি করায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

বুধবার (৯ জুন) শহরের মহিপালে ফলের আড়ৎ ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, চাহিদা অনুযায়ী আম, লিচুর পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে। আড়তের আম খুচরা বাজারে গেলেই বেড়ে দ্বিগুন দামে বিক্রি হচ্ছে। আর বাধ্য হয়েই বিক্রেতাদের বেঁধে দেওয়া দামে কিনছেন ক্রেতারা। হিমসাগর পাইকারি কেজিপ্রতি ৪০-৪৫ টাকা হলেও খুচরা বাজারে স্থান ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা। ২০-২২ টাকার লকনা খুচরা বাজারে বিক্রি হয় ৫০ টাকায়। এছাড়া ২৮-৩০ টাকার ল্যাংড়া ৬০ টাকা, রূপালী ৩৮ টাকার রূপালী খুচরা বাজারে ৭০ টাকা এবং ২০-৩০ টাকার গুটি আম প্রকারভেদে খুচরা বাজারে ৫০ টাকা থেকে ৬০টাকায় কিনতে হচ্ছে।

মৌসুমী ফল লিচুর দাম বেড়েই চলেছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে লিচুর দাম ২শ ২০টাকা থেকে বেড়ে ৩শ টাকায় পৌঁছেছে। প্রতি জোড়া আনারস বিক্রি হচ্ছে ১শ ২০ টাকায় ও কালো জাম প্রকারভেদে ১শ থেকে ১শ ৫০টাকা দাম চাইছেন বিক্রেতারা।

মহিপালে লিচু নিতে এসে দাম শুনেই ফিরে যান দাগনভূঞার বাসিন্দা মহিউদ্দিন। তিনি জানান, এক সপ্তাহ আগে শত হিসেবে ২শ টাকা দামে লিচু কিনেছি। এখন একই লিচু ৩শ থেকে ৩শ ৫০টাকা দাম চাইছেন বিক্রেতারা। বাজারে ফলের সরবরাহ থাকলেও খুচরা বিক্রেতারা ইচ্ছেমত দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

মহিপালের ফলের আড়তদার জসিম উদ্দিন জানান, এবার আমের দাম অনেক কম। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ ঠিক আছে। এ বছর ফলন ভালো হওয়ায় আমের দামও কমেছে। আম পচনশীল হওয়ায় বিক্রি না করে একদিনও যদি ধরে রাখি আরও কম দামে বিক্রি করতে হবে। গত রবিবারের বৃষ্টিতে সারাদিন আম বিক্রি হয়নি, এখন কম দামে ছেড়ে দিতে হচ্ছে।

নজির আহম্মদ ফল মার্কেটের বাবলু এন্টার প্রাইজের মালিক বাবলু জানান, এখন পাইকারি ৩০ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে বিভিন্ন জাতের আম বিক্রি হচ্ছে।

মহিপাল ছায়েদ এন্টার প্রাইজের মালিক মাছুম খোন্দকার জানান, আম-লিচুর মৌসুম শুরু হয়েছে। আমরা গত প্রায় এক মাস ধরে রাজশাহীর বাঘা পাইকারি বাজার থেকে এনে বিক্রি করছি। আমের সরবরাহ বাড়ার সাথে সাথে দামও কমে আসছে।

মহিপাল ফল আড়তদার মালিক সমিতির আহবায়ক আবদুল মতিন পাইকারি আর খুচরা বাজারে দামের পার্থক্য প্রসঙ্গে বলেন, খুচরা বিক্রেতাদের ফল নষ্ট হয়ে যায়। ক্ষতি পোষাতে কম-বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।

আরও পড়ুন : তাকসিম মসজিদে মুসল্লিদের উপচে পড়া ভিড়

এদিকে অনলাইনেও বড় পরিসরে আম বিক্রি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। অসংখ্য ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে উদ্যোক্তারা বিভিন্ন জাতের আম বিক্রি করছেন। দোকানে বিক্রি করা আমের কাছাকাছি কেজিপ্রতি ৮০ থেকে ৮৫ টাকা।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড