• সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

লামায় প্রবল বর্ষণে পাহাড় ধসের আশঙ্কা

  মো. নুরুল করিম আরমান, লামা

০৭ জুন ২০২১, ১৪:৪২
পাহার
লামায় পাহাড় ধসের আশঙ্কা (ছবি: দৈনিক অধিকার)

বান্দরবানের লামা উপজেলায় কয়েকদিনের টানা বর্ষণে পাহাড় ধসের আশঙ্কা দেখা দেওয়ায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে ঝুঁকিপূর্ণদের নিরাপদ স্থানে যেতে বলা হয়েছে। তবে কিছু পরিবার আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে আশ্রয় নিলেও বেশিরভাগ পরিবার যাচ্ছে না।

সোমবার (৭ জুন) পর্যন্ত টানা বর্ষণ অব্যাহত থাকলেও কোন দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। দুর্যোগকালীন সময়ে পৌরসভা দুইটি এলাকায় ও সাতটি ইউনিয়নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আশ্রয় কেন্দ্র ঘোষণা করা হয়। জরুরি প্রয়োজনে যোগাযোগের জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন, লামা পৌরসভা এলাকা, লামা সদর, গজালিয়া, রূপসীপাড়া, সরই, আজিজনগর, ফাঁসিয়াখালী ও ফাইতং ইউনিয়নে সাড়ে ৪ হাজার পরিবারের মানুষ ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে।

এদিকে বর্ষণের কারণে উপজেলার পাহাড়ি ঝিরি, খাল ও মাতামুহুরী নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে দুর্গম পাহাড়ি এলাকার হাজার হাজার মানুষ পানিবন্ধী হয়ে পড়েছে। তাছাড়া পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে আতংকে আছেন ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীরা।

ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাকের হোসেন মজুমদার, আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দীন কোম্পানি, ফিটন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জালাল উদ্দিন কোম্পানি জানান, পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদেরকে মাইকিং ও ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যদের মাধ্যমে নিরাপদে আশ্রয় নেওয়ার জন্য বারবার বলা হচ্ছে।

রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছাচিংপ্র মার্মা ও লামা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন তিনিও একই কথা বলেন, পৌরসভা এলাকায় যারা পাহাড়ে কিংবা সমতলে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছেন তাদেরকে নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার জন্য মাইকিংয়ের মাধ্যমে তাগাদা দেওয়া হয়েছে।

পৌরসভার মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম জানান, লামা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে আশ্রয় কেন্দ্র খোলার পাশাপাশি আশ্রয়গ্রহিতাদের জন্য তাৎক্ষনিকভাবে শুকনো খাবার, খিচুড়ি ও পানির ব্যবস্থা রয়েছে ।

এ বিষয়ে লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রেজা রশীদ বলেন, দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে। ইতোমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন স্থানের পাহাড়ে ঝুঁকিপুর্ণ বসবাসকারীদেরকে নিরাপদে সরে যাওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে বলা হচ্ছে। পাশাপাশি জরুরি প্রয়োজনে যোগাযোগের জন্য কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে বলেও জানান।

এছাড়া সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে খোলা রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে দুর্যোগকালীন সময়ে মানুষ সেখানে আশ্রয় নিতে পারেন।

গেল বছরগুলোর বর্ষা মৌসুমে প্রবল বর্ষণের ফলে ব্যাপকহারে পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এ বছর যেন এর পুণরাবৃত্তি না ঘটে সে জন্য বান্দরবান জেলার লামা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগাম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

ওডি /এসএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড