• রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দোহাজারীতে স্তুপকৃত মাটি অপসারণ করে পানি নিষ্কাশনের দাবিতে মানববন্ধন

  মো. কামরুল ইসলাম মোস্তফা, চন্দনাইশ (চট্টগ্রাম)

০৭ জুন ২০২১, ১৩:৫২
মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্পের কাজের জন্য দোহাজারী পৌরসভার জামিজুরী এলাকায় রেলওয়ে ব্রিজের সামনে মাটি স্তূপ করে পানি চলাচল বন্ধ রাখার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতার শিকার হয়ে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় ২০ হাজার পরিবার। এতে পৌরসভার ৫, ৬ ও ৭ নং ওয়ার্ডের বাড়ি-ঘর, মৎস্য প্রজেক্ট, মুরগীর খামার, ডেইরি ফার্ম, রাস্তা-ঘাটসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ডুবে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

অবিলম্বে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করার জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এলাকাবাসীর উদ্যোগে ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় সোমবার (৭ জুন) সকাল থেকে প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শিক্ষক রুপস চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে ইরফান উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- আবুল কাশেম লেদু ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. লোকমান হাকিম, উপজেলা কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক নবাব আলী, সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল্লা আল নোমান বেগ, প্রধান শিক্ষক বিষ্ণুযশা চক্রবর্তী, সাংবাদিক আবিদুর রহমান বাবুল, ব্যবসায়ী নেতা কাজী হাছান, আবছার উদ্দিন, আলাউদ্দিন, নুরুল ইসলাম, নাদের হোসেন, ফারুক প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আমরা উন্নয়নকাজের বিরোধী নই, তবে আমরা চাই পরিকল্পিত উন্নয়ন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অদূরদর্শিতার কারণে প্রায় ২০ হাজার পরিবার এখন পানিবন্দি। অবিলম্বে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না নিলে আমাদের বাড়ি ঘর পানির নিচে তলিয়ে যাবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না নিলে আমরা এলাকাবাসী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অফিস ঘেরাওসহ পানি নিষ্কাশনের বাঁধ কেটে দিতে বাধ্য হবো।

এ ০.১ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তমা কন্সট্রাকশন এন্ড কো. লি. এর ইঞ্জিনিয়ার আতিকুর রহমান দৈনিক অধিকারকে বলেন, জামিজুরী এলাকার বিদ্যমান ছোট কালভার্টটির স্থানে বড় ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ব্রিজ করার আগে কিছু ট্রিটমেন্ট করতে হয় যাকে সারচার্জ বলে। মাটি স্তূপ করে তা কতটুকু স্যাটেল হয় সেটি তিনমাস পর্যবেক্ষণে রাখতে হয়।

স্থানীয় লোকজনের সমস্যা বিবেচনায় পানি নিষ্কাশনের জন্য ইতিমধ্যে দুটি পাইপ বসানো হয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, সারচার্জ পিরিয়ড শেষ না হওয়া পর্যন্ত সেখানে স্তুপকৃত মাটি সরানোর সুযোগ নেই। দীর্ঘস্থায়ী সুফল ভোগের জন্য সাময়িক দুর্ভোগ মেনে নেয়ারও অনুরোধ জানান তিনি।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে দোহাজারী-কক্সবাজার-ঘুনধুম রেলপথ নির্মাণকাজের প্রকল্প পরিচালক মো. মফিজুর রহমান দৈনিক অধিকারকে বলেন, যে কোন উন্নয়নকাজ জনগণের কল্যাণের জন্য করা হয়। রেললাইনের ব্রিজ বন্ধ করার ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির বিষয়টি আমাকে কেউ অবহিত করেনি। জলাবদ্ধতা নিরসণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করা হবে বলে জানান তিনি।

ওডি/এমএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড