• বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ২৩ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মুনিয়া হত্যার বিচার চেয়ে রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি

  ভোলা প্রতিনিধি

০৩ মে ২০২১, ২০:৪২
ভোলা মিউনিসিপ্যাল কো-অপারেটিভ ভবনে এক প্রতিবাদ সভা
ভোলা মিউনিসিপ্যাল কো-অপারেটিভ ভবনে এক প্রতিবাদ সভা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ভোলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন মুনিয়াকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে আনবীরকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছে। সোমবার (৩রা মে) দুপুরে ভোলা মিউনিসিপ্যাল কো-অপারেটিভ ভবনে এক প্রতিবাদ সভায় এ দাবি করা হয়।

মানবাধিকার কর্মী মোবাশ্বির উল্লাহ চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা সুজন’র অন্যতম নেতা আ.ন.ম রিয়াজ উদ্দিন, সহকারী অধ্যাপক কামরুল আহসান, সহকারী অধ্যাপক বাসেদ হোসেন, নারী নেত্রী বিলকিস জাহান মুনমুন, সমাজকর্মী আলমগীর গোলদার, মানবাধিকার কর্মী মো. হোসেন, সাংস্কৃতিক কর্মী বাহাউদ্দিন, প্রকৌশলী চিত্তরঞ্জন শীল, শিক্ষক নেতা গোলাম মাহমুদ ও মো. ইব্রাহীম প্রমুখ।

সভায় বক্তাগন বলেন, মুনিয়ার বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কায় ফ্লাট মালিকের কাছে ফ্লাট থেকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা চেয়েছিলেন। তার মানে মুনিয়া বেঁচে থাকার জন্যে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। সেখানে সে আত্মহত্যা করেছে মানা যায় না। তাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলে মনে করা হয়। এ হত্যাকাণ্ডে আনবীরের মা ও স্ত্রীকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা উচিৎ।

সভাপতির বক্তব্যে মোবাশ্বির উল্লাহ চৌধুরী বলেন, বসুন্ধরার এম ডি আনবীর অসহায় মুনিয়াকে প্রলুব্ধ করে বনানীতে রেখে ১ বছর ধরে স্ত্রীর মত ব্যবহার করেছে। অথচ তাকে বিয়ে করেনি। সন্দেহাতীতভাবে এটি ধর্ষণ পর্যায়ের ঘটনা।

এক বছর পর মুনিয়া কুমিল্লায় চলে যাবার পর আনবীর আবারও তাকে বিয়ে করবে বলে গত মার্চ মাসে তাকে ঢাকা নিয়ে আসে এবং ২ মাসের মাথায় মুনিয়ার মৃত্যু হয়।

মোবাশ্বির উল্লাহ চৌধুরী দাবি করেন বসুন্ধরার এমডি সায়েম সোবহান আনবীর বিয়ের প্রলোভনে মুনিয়াকে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ করেছে এবং শেষে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখেছে। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে তার মা ও স্ত্রীর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে কিনা তাদের গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার।

আরও পড়ুন : লাভের আশায় বাজারে উঠেছে অপরিপক্ক লিচু

সভা শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি বরাবরে মুনিয়ার অপমৃত্যুর সাথে জড়িত সায়েম সোবহান আনবীরকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চেয়ে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি গ্রহন করেন ভোলার জেলা প্রশাসক মো. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী।

ওডি/এএইচ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড