• রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মেহেরপুরে 'তৃপ্তি তরমুজ' চাষে জাহিরুলের সফলতা

  শাকিল রেজা, মেহেরপুর

০১ মে ২০২১, ১৪:০২
afgdh
ছবি : দৈনিক অধিকার

ইউটিউব দেখে মাচা পদ্ধতিতে গ্রীষ্মকালীন থাইল্যান্ড এর হাইব্রিড তরমুজ (তৃপ্তি) চাষে সাফল্য অর্জন করেছে মেহেরপুরের জাহিরুল ইসলাম। মেহেরপুরের মাটিতে এমন একটি ফল চাষ করে মুগ্ধ করেছে জেলা কৃষি বিভাগকেও। এ প্রথম মেহেরপুরের মাটিতে মাচা পদ্ধতিতে ‘তৃপ্তি’ জাতের হলুদ রঙের তরমুজ চাষ হয়েছে।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভালো ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ। কৃষি বিভাগের পরামর্শে সদর উপজেলার উজ্জলপুর গ্রামের মাঠে জাহিরুল ইসলাম তরমুজ চাষ করে সফলতা অর্জন করেন।

জাহিরুল উজ্জলপুর গ্রামের বাসিন্দা। সরেজমিনে দেখা যায়, মাচায় ঝুলছে তৃপ্তি (হাইব্রিড) জাতের হলুদ রঙের তরমুজ। উচ্চমূল্য লাভজনক ফসল ৬৫-৭০ দিনে ফসল সংগ্রহ করা যায়। ফেব্রুয়ারি মাসে বীজ বপন করলে বৈশাখে রমজান মাসে ফসল উঠলে বিঘা প্রতি প্রায় ১ লক্ষ টাকার বেশি লাভ হতে পারে। এছাড়া ও সেপ্টেম্বর মাসের শেষ অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে বীজ বপন করলে নভেম্বর মাসের শেষে ফসল পাওয়া যায়। তখন বাজারে ফল কম থাকে। ফলে তরমুজ আবাদ করে সহজেই লাভ করা যায়। এই হাইব্রিড তরমুজের ফুল আসার সময় তাপমাত্রা, বর্ষা কম থাকা ভালো। তাপদাহের মধ্যে এখন তরমুজের ব্যাপক চাহিদা। জমি থেকেই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে তরমুজ। দেশি তরমুজ মাটিতে থাকে। এ তরমুজ মাচায় চাষ করতে হয়।

তরমুজ চাষি জাহিরুল ইসলাম জানান, মাচায় ঝুলে থাকার কারণে তরমুজের ওজন বাড়ার সাথে সাথে তরমুজ ছিঁড়ে পড়ে যাবে। এজন্য যখন তরমুজ ২শ গ্রাম ওজন হয় তখন প্রতিটি তরমুজ নেটের ব্যাগ দিয়ে মাচার সঙ্গে বেঁধে রেখেছি। তরমুজ রোপণের পর থেকে ৬০ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ দিনের মধ্যে বাজারজাত করা যায়। তিনি ২৫ কাঠ জমিতে এ তরমুজ চাষ করেছেন। এ পর্যন্ত খরচ হয়েছে ৬০ হাজার টাকা। ২ লাখ টাকার বেচাকেনা হবে বলে আশা করছেন।

তিনি আরও জানান, নিরাপদ ফল উৎপাদন এবং সুষম সার ব্যবস্থাপনায় তৃপ্তি (হাইব্রিড) জাতের তরমুজ মারাত্মক সুস্বাদু। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না থাকার কারণে ফলন হয়েছে ভালো। অসময়ের এ তরমুজের ব্যাপক চাহিদা বাজারে। জমি থেকে প্রতি মণ তরমুজ ১৬শ টাকা থেকে ১৮শ টাকা দরে ব্যবসায়ীরা কিনে নিয়ে যাচ্ছে।

মকলেস আলীসহ এলাকার চাষীরা জানান, আমরা এই ধরনের তরমুজ আগে কখনো দেখিনি। জাহিরল ইসলাম এই প্রথম হলুদ রঙের তরমুজের চাষ করেছে। এই ধরনের চাষি দেখে আমাদের ভালো লাগছে। ৫০-৬০ হাজার টাকা খরচ হলেও ১ লক্ষ টাকার বেশি দামে বিক্রয় হবে মনে হচ্ছে। এ ধরনের চাষ আমরা কৃষি বিভাগের সাথে যোগাযোগ করে আগামী বছর করব বলে ভাবছি।

উপসহকারী কৃষি অফিসার ও সুপাইভাইজার কামারুল ইসলাম জানান, জাহিরুল ইসলাম ইউটিউব থেকে দেখে আমাকে বলে এই জাতের তরমুজ চাষ করতে চাই। সেই অনুযায়ী আমিও ভালো করে দেখে কৃষি অফিসের সাথে কথা বলে এখানে একটি প্রজেক্ট তৈরিতে সহযোগিতা করেছি। বর্তমান করোনাকালে যে বাজারমূল্য রয়েছে তাতে চাষি অনেক লাভবান হবে বলে আমি মনে করছি।

মেহেরপুর সদর উপজেলা কৃষি অফিসার নাসরিন পারভিন জানান, অসময়ে তরমুজের চাষ করে জাহিরুল ইসলাম যে সাফল্য পেয়েছে আমরা এতে খুশি। সাধারণত তরমুজ বৃষ্টির মৌসুমের আগেই শেষ হয়ে যায়। ১ বিঘা জমিতে সর্বোচ্চ সাত থেকে আটটি বেড তৈরি করা যাবে। চারা রোপণের মাত্র ৩০ দিনেই পুরো মাচায় গাছ উঠে যাবে এবং ফুল ও ফল ধরা শুর হবে। বাকি ৩০ দিনের মধ্যে তরমুজ তোলার উপযুক্ত সময় হয়ে যাবে। সকাল বেলা স্ত্রী ও পুরষ ফুল ফোটার সাথে সাথে স্ত্রী ফুলকে পুরুষ ফুল দিয়ে পরাগায়ন করে দিলে ফলন ভালো হয়। তবে জমিতে অবশ্যই পানি নিষ্কাশনের সুব্যবস্থা থাকতে হবে। এ তরমুজ অক্টোবর মাসে চাষ করা লাভজনক। কারণ ডিসেম্বরে সাধারণত দেশি ফল তেমন পাওয়া যায় না।

এ সময় বাজারজাত করতে পারলে আর্থিক লাভবান নিশ্চিত। তিনি আরও জানান, হাইব্রিড জাতের তরমুজ বীজ দেশের বাইরে থেকে আসায় বীজের দাম বেশি। বারি উদ্ভাবিত দুইটি হাইব্রিড জাত লাল ও হলুদ এর বীজ রাখা যায়। এটা সম্প্রসারণ করা গেলে কৃষকের উৎপাদন ব্যয় কমে যাবে।

ওডি/

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড