• মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

চাঁদপুরে আজ থেকে ইলিশ ধরা শুরু

  শিহাবুদ্দীন সেলিম, চাঁদপুর

০১ মে ২০২১, ১১:৩০
ছবি : দৈনিক অধিকার

মার্চ এপ্রিল দুই মাস বন্ধ থাকার পর আজ (১ মে) থেকে নদীতে ইলিশসহ সকল ধরনের মাছ ধরা শুরু হয়েছে। জাতীয় সম্পদ ইলিশ রক্ষায় ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুই মাস মেঘনা নদীর মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত প্রায় ৯০ কিলোমিটার মাছের অভয়াশ্রম এলাকায় জাটকাসহ সকল ধরনের মাছ আহরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মওজুদ ও পরিবহন সম্পূর্ণ নিষেধ ছিল।

দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে মেঘনায় এখন ইলিশসহ অন্যান্য মাছ শিকার করার জন্য প্রস্তুত জেলেরা। তারা ১ মে মধ্যরাত অর্থাৎ গতকাল দিবাগত মধ্যরাত থেকে নদীতে নেমে পড়েছে। এখন থেকে জেলার অর্ধলক্ষ জেলে মাছ শিকারে ব্যস্ত সময় পার করবে। অপরদিকে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গত দুই মাসে এক শ্রেণীর অসাধু মৌসুমী জেলে জাটকা ধরার অপরাধে ২৯০জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে সদর উপজেলার আনন্দবাজার, শহরের পুরাণবাজার রনাগোয়াল, দোকানঘর, সাখুয়া, বহরিয়া, হরিণা ফেরিঘাট ও আখনের হাট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, জেলেরা নদীতে মাছ শিকারের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নৌকা ও জাল মেরামত করছেন। ছোট থেকে বড় একেক নৌকায় ৮-১৪ জন জেলে মাছ ধরার জন্য প্রস্তুত হয়েছেন।

চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র থেকে জানা গেছে, দুই মাসের অভিযানে অভয়াশ্রম এলাকায় জেলা ও উপজেলা টাস্কফোর্স, নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ডের ৫৮২টি অভিযান এবং ৯৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ। অভিযানে জাটকা জব্দ হয়েছে ৩৮.৯২৭ মেট্রিক টন। অন্যান্য মাছ জব্দ হয়েছে ৪৫ কেজি। কারেন্টজাল জব্দ হয়েছে ৪ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার মিটার। অন্যান্য জাল জব্দ হয়েছে ৭৮.৫ মিটার। জব্দকৃত জালের আনুমানিক মূল্য ৮ কোটি ৬৬ লাখ ১ হাজার টাকা। এসব ঘটনায় মামলা হয়েছে ২৮৭টি। অভিযানগুলোতে আটক হয়েছে ৩১০জন জেলে। তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। এছাড়াও কিশোর জেলে আটক হয়েছে ৪৫০জন। তাদের কাছ থেকে ৮ লাখ ৯৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

হাইমচর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন, হাইমচর উপজেলা জাটকা বিচরণের মূল কেন্দ্র হিসেবে অভিযানও বেশি হয়েছে। ১৪৭টি অভিযান ও ৪২টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। ১০৯জন জেলেকে আটক করা হয়। বিশেষ করে এ বছর অভিযানে আটক ২৮টি মাছ ধরার নৌকা নিলামে ১১ লাখ ৪১ হাজার ৮০৫ টাকা বিক্রি করা হয়।

চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুল বাকি বলেন, সরকারের জাটকা রক্ষা কর্মসূচি বাস্তবায়নে দিন ও রাতে মৎস্য বিভাগ, টাস্কফোর্স, কোস্টগার্ড ও নৌ পুলিশ কাজ করেছে। এর মধ্যে একশ্রেণীর জেলে নিরাপদ এলাকায় জাটকা নিধন করেছে। তারপরেও আমি মনে করি ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধির ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে এবং জেলেরা ইলিশ পাবে। ইতোমধ্যে জাটকা ধরা থেকে বিরত থাকা জেলেদের ৩ মাসের ভিজিএফ চাল ৪০ কেজি করে ১২০ কেজি বিতরণ করা হয়েছে। মে মাসের ৪০ কেজিও দেয়া হবে।

জাটকা রক্ষায় আরও বেশী প্রশাসনিক তৎপরতা বৃদ্ধি করতে পারলে ভবিষ্যতে মৎস্য সম্পদ সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলা সম্ভব বলে মনে করেন সচেতন মহল।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড