• রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইট ভাটার ট্রাক ও ট্রলিতে নষ্ট হচ্ছে সড়কগুলো

  কাজী শাহরিয়ার রুবেল, আমতলী (বরগুনা)

২৯ এপ্রিল ২০২১, ১৬:৪০
ইট ভাটার ট্রাক ও ট্রলিতে নষ্ট হচ্ছে সড়কগুলো
ট্রাক ও ট্রলিতে নষ্ট হওয়া সড়ক (ছবি : দৈনিক অধিকার)

বরগুনার আমতলী উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ পাকা ও কাঁচা সড়কগুলো ইটভাটার ট্রাক ও ট্রলির কারণে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ওই সকল সড়কে বেপরোয়াগতিতে ট্রাক ও ট্রলি চলার কারণে ইট, পিচ, খোয়া উঠে ও মাটি ডেবে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। অতি দ্রুত মেরামত করা না হলে এ সকল সড়কে চলাচলকারী যানবাহন ও জনসাধারণের দূর্ভোগ চরমে উঠবে বলে ভূক্তভোগী এলাকাবাসীরা মনে করছেন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের অধিকাংশ ও গুরুত্বপূর্ণ কাঁচা, পাকা ও আধাপাকা সড়কগুলো দিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকার মাঠ, পুকুর ও ধানী জমি থেকে মাটি কেঁটে ট্রাক ও ট্রলির সাহায্যে ইট ভাটায় নিয়ে যায়। শুধু তাই না ট্রাক ও ট্রলিতে মাটি বহনের কারনে ওই মাটি সড়কে পড়ে সড়কগুলি যেমন নষ্ঠ হচ্ছে তেমনি ধুলার সৃষ্টি হচ্ছে। দিন রাত ট্রাক, ট্রলি চলার কারণে ও এগুলোর বিকট শব্দে সড়কের পাশে বসবাসকারী বাসিন্ধারা চরম কষ্টে দিন পার করছেন।

এছাড়া ৭টি ইউনিয়নের গুরুত্বপুর্ন গ্রামীন সড়ক দিয়ে স্থানীয় মানুষেরা উপজেলা সদরসহ এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে যাতায়াত করে থাকেন। বর্ষাকাল ব্যতীত সারা বছরই গ্রামীন সড়কগুলি ইটভাটার ট্রাক ও ট্রলির দখলে থাকে। সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত সড়কগুলোতে বেপরোয়াগতিতে চলাচলের কারণে ভালো সড়ক ভেঙে ও ডেবে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের ইট, পিচ, খোয়া উঠে ও মাটি ডেবে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামনে বর্ষা মৌসুম দ্রুত ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামীর সড়কগুলি মেরামত করা না হলে ওইসব সড়কে চলাচলকারী যানবাহন ও জনসাধারণের দূর্ভোগ চরমে উঠবে বলে স্থাণীয় ভূক্তভোগীরা জানায়।

ক্ষতিগ্রস্থ সড়কগুলির মধ্যে ডাক্তার বাড়ী- খেকুয়ানী ভায়া গুলিশাখালী- গোজখালী সড়ক, কল্যানপুর- ছোনাউঠা সড়ক, খুড়িয়ার খেয়াঘাট- তারিকাটা সড়ক, চাওড়া তালুকদার বাজার- চালিতাবুনিয়া ভায়া ঘটখালী সড়ক, ইসলামপুর- কাউনিয়া- নাচনাপাড়া সড়ক, কুকুয়া সাহেববাড়ী- হরিমৃত্যুঞ্জয় সড়ক, কুকুয়া হাট- হাজার টাকার বাঁধ ভায়া রায়বালা সড়ক, আমতলী- তালতলী আ লিক সড়কের একটি অংশ, মহিষকাটা - গোজখালী সড়ক, বান্দ্রা থেকে চারঘাট পর্যন্ত ওয়াবদা ভেরীবাঁধ, মুন্সীর হাট- চাউলা ওয়াবদা ভেরীবাঁধসহ আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীন সড়ক।

উপজেলার গুলিশাখালী গ্রামের লিটন জোমাদ্দার বলেন, ডাক্তার বাড়ী থেকে খেকুয়ানী- গুলিশাখালী বাজার হয়ে গোজখালী পর্যন্ত সড়কটি ইটভাটার মাটি ও ইট পরিবহনের কারনে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। এছাড়া এ ইউনিয়নের অধিকাংশ কাঁচা পাকা সড়কগুলি ইটভাটার টাক ও ট্রলিতে নষ্ট করে ফেলেছে।

কল্যানপুর (কলংক) গ্রামের ফারুক মিয়া বলেন, আমাদের এলাকাটি কৃষিনির্ভর। কৃষিপণ্য নিয়ে আমরা এই সড়কটি (কল্যানপুর- ছোনাউঠা) দিয়ে উপজেলা সদরে যাই। কিন্তু সড়কটি দিয়ে ট্রাক ও ট্রলিতে করে ইট ভাটায় মাটি টানার কারনে যেভাবে ভেঙে গেছে তাতে এ সড়ক দিয়ে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে দূর্ভোগ চরমে পৌছেছে।

খেয়াঘাট বাসিন্ধা ফেরদৌস বলেন, খুড়িয়ার খেয়াঘাট থেকে তারিকাটা এমপির বাজার পর্যন্ত সড়কটি দিয়ে ইটভাটার ট্রাক ও ট্রলি চলাচল করার কারনে সড়কের বিভিন্ন স্থানে মাটি পড়ে ও সড়কের পিচ, খোয়া উঠে এবং ডেবে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামনে বর্ষা মৌশুমে এ সড়ক দিয়ে যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

বান্দ্রা এলাকার বাসিন্ধা মো. আবুল হোসেন বলেন, এখানে একটি সরকারী প্রাইমারী বিদ্যালয়ের পাশে অবস্থিত “আরএএবি” নামক ইট ভাটায় মাটি ও ইট টেনে ওয়াবদা বেরিবাঁধটির ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে।

উপজেলা প্রকৌশলী মো. আল-মামুন বলেন, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামীণ সড়কগুলোতে অধিক লোড নিয়ে বেপরোয়াগতিতে ইট ভাটার ট্রাক ও ট্রলি চলাচল করে। এ কারনে অধিকাংশ সড়কগুলি ভেঙে ও ডেবে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বেশী ক্ষতিগ্রস্থ সড়কগুলো দ্রুত মেরামত করার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান দৈনিক অধিকার নিউজকে বলেন, গ্রামীন সড়কগুলোতে যাতে অধিক লোড নিয়ে ট্রাক ও ট্রলি চলাচল করতে না পারে সেজন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড