• মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হঠাৎ ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, নিহত ৩

  সারাদেশ ডেস্ক

০৪ এপ্রিল ২০২১, ২২:২৬
ছবি : প্রতীকী

হঠাৎ করেই দমকা ও ঝড়ো হাওয়ায় গাইবান্ধা সদর উপজেলাসহ বিভিন্ন উপজেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রচণ্ড গতির বাতাসে কাচা-পাকা ঘর ভেঙে পড়াসহ উড়ে গেছে টিনের চালা। এছাড়া আমের মুকুল, লিচু ও উড়তি জমির আমন ধানের গাছসহ বিভিন্ন জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কোথাও কোথাও গাছ ভেঙে সড়কের ওপরে পড়ায় যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার খবরও পাওয়া গেছে।

এদিকে, প্রচণ্ড বাতাসে গাছ ভেঙে পড়ে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ ও পলাশবাড়ি উপজেলাতে দুই নারীসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন, পলাশবাড়ী উপজেলার ডাকেরপাড়া গ্রামের ইউনুস আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম, মোস্তফাপুর গ্রামের গোফফার রহমান, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ময়না বেগম। ময়না বেগম ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের দোয়ারা গ্রামের ছোলায়মান মিয়ার স্ত্রী।

রবিবার (৩ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে হঠাৎ করে গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলাসহ বিভিন্ন উপজেলাতে শুরু হয় ঝড়ো বাতাস। বিকেল পৌনে ৪টা পর্যন্ত থেমে থেমে চলে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে দমকা বাতাস। সেই সঙ্গে কোন কোন এলাকাতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাতের খবরও পাওয়া গেছে। বাতাসের পর পরেই বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ায় বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।

বৈশাখের শুরুতেই হঠাৎ করে জেলাজুড়েই শুরু হওয়া ধমকা হাওয়া আর কালবৈশাখীর থাবায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে মানুষ। হঠাৎ বয়ে যাওয়া এমন ঝড় হাওয়াকে প্রকৃতির অশনি সংকেত বা বড় ধরনের কালবৈশাখী ঝড়ের আশংকা করছে জেলার মানুষ।

ঝড়ো হাওয়ার পর সরেজমিনে দেখা যায়, গাইবান্ধা সদর উপজেলার স্টেশন রোড, ট্রাফিক মোড়, বাংলাবাজারসহ শহরের বিভিন্ন রাস্তাঘাট ও পাড়া মহল্লায় প্রবাহিত হয় দমকা হাওয়া। এতে এসব এলাকার অনেক কাচা-পাকা টিনের ঘরবাড়ি ভেঙে পড়াসহ টিনের চালা উড়ে গেছে। ভেঙে ও উপড়ে পড়েছে বসতবাড়ি ছাড়াও বিভিন্ন সড়কের দুই পাশের ছোট বড় বেশকিছু গাছপালা। এছাড়া হাসেমবাজার এলাকায় একটি বিদ্যুতের খুঁটিও ভেঙে যোগাযোগ বন্ধ হয়েছে।

একই অবস্থা দেখা গেছে সাদুল্লাপুর উপজেলাতেও। প্রচণ্ড গতির বাতাস আর গুঁড়ি বৃষ্টির কারণে উপজেলা শহর, কাজিবাড়ি, জয়েনপুর, জামুডাঙ্গাসহ বিভিন্ন গ্রামের অসংখ্য কাচা ঘরবাড়ি আর গাছপালা সড়কে উপড়ে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমের মুকুল, উড়তি জমির ধানের গাছসহ জমির বিভিন্ন ফসলের। ঘণ্টাব্যাপী ধরে চলা এই ঝড়ে সাদুল্লাপুর ভূমি অফিসের প্রধান গেটে একটি বড় ইউক্লিপটস গাছও ভেঙে পড়েছে। এতে সাদুল্লাপুর-নলডাঙ্গা পুরাতন সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক আবদুল মতিন জানান, হঠাৎ করেই জেলায় বয়ে যাওয়া দমকা হাওয়ায় কোথাও কোথাও কিছু বাড়িঘর ও গাছপালা ভেঙে পড়াসহ বিভিন্ন এলাকার ধানের জমি এবং ফসলের ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া বাতাসে গাছ ভেঙে পড়ায় সুন্দরগঞ্জ ও পলাশবাড়ী উপজেলাতে দুই নারীসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহত প্রত্যেক পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হয়েছে। বাতাসে বিভিন্ন সড়কে ভেঙে পড়া গাছ অপসারণে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ করছেন। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তিনি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড