• মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জামান মার্কেটের অগ্নিকাণ্ডে ৩৫ কোটি টাকার ক্ষতি

  শফিউল করিম শফিক, রংপুর

০২ মার্চ ২০২১, ১২:১৫
জামান মার্কেটের পুড়ে যাওয়া দোকান।
জামান মার্কেটের পুড়ে যাওয়া দোকান।। (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে রংপুর মহানগরীর নিম্ন ও মধ্যবিত্তের পোশাক কেনাকাটার কেন্দ্রস্থল জামান মার্কেট। এতে পথে বসেছে আড়াই শতাধিক দোকানী ও কর্মচারী।

মঙ্গলবার (২ মার্চ) সকালের এ অগ্নিকাণ্ডে গোডাউন, কারখানাসহ অন্তত ৩০ টি দোকান পুড়ে গেছে। প্রায় ৩৫ কোটি টাকার প্রাথমিক ক্ষতির দাবি করছেন দোকান মালিক সমিতি। সরকার ও বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান করছেন তারা।

ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও দোকান মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, রংপুর মহানগরীর জামান মার্কেটের পেছনের দিকে জোবায়ের গার্মেন্টস ও ভাইভাই গার্মেন্টসে ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে আগুনের সূত্রপাত। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক উপস্থিত হয় ফায়ার সার্ভিস। আগুনের তীব্রতা দেখে রংপুরের ৮টি এবং হারাগাছের ২টি ইউনিট এনে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হয়। স্থানীয় লোকজন, পুলিশের সহায়তায় সকাল সাড়ে সাত টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় ফায়ার সার্ভিস। ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয়ে যায় পোশাক কারখানা, গোডাউনসহ অন্তত ৩০ টি দোকান। পুড়ে যাওয়া জোবায়ের গার্মেন্টসের মালিক আব্দুল আউয়াল জানান, ঈদ উপলক্ষে ১০ দিন আগেও ১৯ লাখ টাকার বিভিন্ন ধরনের তৈরি পোশাক এনে রেখেছিলেন তিনি। এছাড়াও প্রায় ৭০ লাখ টাকারও বেশি মালামাল ছিল তার দোকানে। ভাই রনিসহ ব্যবসা করতেন তিনি। এখন আর কিছুই নেই দোকানে। সব আগুনে পুড়ে গেছে।

তিনি জানান, ঢাকার ব্যবসায়ীরা তার কাছে ৬০ থেকে ৭০ লাক টাকা বকেয়া পাবেন। ব্যাংক লোণ আছে ১৫ লাখ টাকা। এখন কি করবেন তারা। কষ্ট সহ্য করতে না পেরে অজ্ঞান হয়ে পড়লে তার ভাই রনিকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে রনির পিতা লালমিয়া জানিয়েছেন, বাড়ির জমিজমা বিক্রি করে ব্যবসায় লাগিয়েছিলেন। সব শেষ। পথের ভিখারি হয়ে গেছেন তারা।

হাসান গার্মেন্টসের মালিক ওয়াদুদ বেপারী জানান, ৪০টি অটো সেলাই মেশিন নিয়ে ছিল তার কারখানা। ৫০ জন শ্রমিক কাজ করতো সেখানে। এছাড়াও পোশাক তৈরির জন্য ৩০ লাখ টাকার মালামাল ছিল তার দোকানে। কিন্তু এখন কিছুই নেই। সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। তিনি প্রশ্ন রাখেন, একসাথেই সব দোকান পুড়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু ৫/৬ দোকান পরপর কেন দোকান ও কারখানা পুড়ল। সেটি তার বোধগম্য নয়।

ভাইভাই গার্মেন্টসের মালিক আব্দুর রাজ্জাক জানান, আমার ৩টি দোকান ও ২টি গোডাউন পুড়ে গেছে। প্রায় ৪৫ লাখ টাকার তৈরি পোশাক ছিল এখানে। যা ঈদ উপলক্ষে আনা হয়েছিল। সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি এখন নিঃস্ব। পথের ভিখারি।

তাদের মতো অন্তত ৩০টি দোকানের সব কিছুই পুড়ে গেছে। সাধারণত মার্কেটটিতে কম এবং ন্যায্যমূল্যে পোশাক বিক্রি হত। ঈদ উপলক্ষে এসব দোকান ও গোডাউনে বিপুল পরিমাণ মালামাল মজুদ করেছিল দোকানিরা। মার্কেটের দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস বেপারী জানান, প্রায় ৩০-৩৫ টি গোডাউন, কারখানাসহ দোকান পুড়ে গেছে। সবাই ঈদ উপলক্ষে ঋণ দেন দফা করে মালামাল ক্রয় করেছিলেন। প্রাথমিক ভাবে অন্তত ৪০ কোটি টাকার ক্ষতির আশংকা করছি আমরা। আমাদের জরুরি ভিত্তিতে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন।

দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শফিক আহমেদ ভোলা জানান, ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে আগুনে। এ ঘটনায় পরিকল্পিত কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ফায়ার সার্ভিসের পাশাপাশি আমরাও তদন্ত করছি। কেন কয়েকটি দোকান পর পর আগুন লাগলো।

রংপুর জেলা মোটরসাইকেল দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তানবির হোসেন আশরাফী জানান, এখানে মূলত নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা কেনাকাটা করে। কম ও ন্যায্যমূল্যে এখানে বেচাকেনা হয়। এখন যেসব গোডাউন, কারখানা ও দোকান পুড়ে গেলো তাতে তারা মহা সংকটে পড়লেন। যাদের ঋণ আছে তারা কিভাবে ঋণ শোধ করবেন। সেটা বড় ব্যাপার। কোভিড-১৯ এর কারণে গত বছর বেচা-বিক্রি হয়নি। এবার তার ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য মালামাল মজুদ করেছিলেন। কিন্তু এখন কিছুই নেই। দ্রুত সময়ের মধ্যেই সরকারকে ব্যবসায়ীদের পাশে দাঁড়ানোর দাবি করেন তিনি।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স রংপুর বিভাগের উপ পরিচালক ওহিদুল ইসলাম জানান, ভোর ৫ টা ৫৫ মিনিটে খবর পেয়ে আমরা প্রথমে দুটি টিম আসি। পরে আগুনের ভয়াবহতা দেখে রংপুরের ৬টি এবং হারাগাছের ২টি টিমকে নিয়ে আমরা অপারেশন চালাই। মোটামুটি ২ ঘণ্টার মধ্যেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই। আগুনের সূত্রপাত এবং ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে ১৬টি দোকান পুরোপুরি এবং আরও ১০ টি দোকান আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে পরিমাণ এখনও নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি।

ওডি

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড